একান্ত আলোচনায় জাতীয় নির্বাচন

0
64
Print Friendly, PDF & Email

বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন ও চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় শনিবার বিকেলে এক একান্ত বৈঠকে তাঁরা এ আলোচনা করেন।জাতিসংঘের মহাসচিবের মুখপাত্রের দপ্তর ও নিউইয়র্কের কূটনৈতিক সূত্রগুলো গতকাল রোববার প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
জানতে চাইলে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এ কে আবদুল মোমেন গতকাল সন্ধ্যায় মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতিসংঘ মহাসচিবের একান্ত আলোচনার আগে আধা ঘণ্টার একটি বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে রাজনৈতিক প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা হয়নি। তাঁদের দুজনের একান্ত আলোচনায় (১৫ মিনিট) হয়তো চলমান রাজনৈতিক বিষয়গুলো স্থান পেয়েছে।আবদুল মোমেন জানান, জাতিসংঘ সদর দপ্তরে মহাসচিবের সম্মেলনকক্ষে প্রথম বৈঠকে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য (এমডিজি) পূরণসহ বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের সাফল্য ও নারীর ক্ষমতায়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন বান কি মুন। জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের ভূমিকার জন্য কৃতজ্ঞতা জানান তিনি। আর আগামী নির্বাচনের নিরপেক্ষতা যাচাই করতে জাতিসংঘকে পর্যবেক্ষক পাঠানোর অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রথম দফা আলোচনার সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, জাতিসংঘের সদর দপ্তরে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি আবদুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এম জিয়াউদ্দীন, প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ, মুখ্য সচিব শেখ মো. ওয়াহিদ-উজ-জামান ও পররাষ্ট্রসচিব মো. শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্রের দপ্তর তাদের ওয়েবসাইটে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে এমডিজি প্রক্রিয়ায় নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন বান কি মুন। তিনি বাংলাদেশের নারীর ক্ষমতায়নে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।

বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে শান্তিপূর্ণ সংলাপের তাগিদ দিয়ে আসছে জাতিসংঘ। ঢাকার কূটনীতিকদের ধারণা, বাংলাদেশের আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণ ও বিশ্বাসযোগ্যভাবে আয়োজনের স্বার্থে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ অপরিহার্য। নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হলে সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। নির্বাচনের জন্য সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টিতে সব দলকেই দায়িত্ব পালন করতে হবে।

নিউইয়র্কে গত শনিবার শেখ হাসিনার সঙ্গে একান্ত আলোচনায় বান কি মুন এসব প্রসঙ্গই তুলেছেন বলে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো এ প্রতিবেদককে জানিয়েছে।

জাতিসংঘের মহাসচিব গত ২৩ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়াকে ফোন করেছিলেন। রাজনৈতিক সংকট থেকে মুক্তির পথ সুগম করতে গত এক বছরে বান কি মুন অন্তত দুবার তাঁর সহকর্মী অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোকে ঢাকায় পাঠিয়েছেন।

2497মনমোহন সিংয়ের সঙ্গেও একান্ত আলোচনা: বান কি মুনের সঙ্গে বৈঠকের আগে শনিবার নিউইয়র্কে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রথমে দুই প্রতিবেশী দেশের প্রধানমন্ত্রীরা তাঁদের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে প্রায় ৩০ মিনিট বৈঠক করেন। এরপর প্রায় ২৫ মিনিট তাঁরা দুজন একান্তে আলাপ করেন।জানতে চাইলে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি আবদুল মোমেন বলেন, বাংলাদেশে নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে বলে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন প্রধানমন্ত্রী। আর বিরোধী দলও যে প্রস্তুতি নিচ্ছে, তিনি সেটিরও উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রী এ সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে জানান, বিরোধীদলীয় নেতা অন্তর্বর্তী সরকারের প্রধান হিসেবে শেখ হাসিনাকে চান না। এ ছাড়া অন্য বিষয়ে বিরোধীদলীয় নেতার কোনো

শেয়ার করুন