জাতিসংঘ ও ইইউয়ের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ইসরায়েলি সেনাদের হাতে লাঞ্ছিত কূটনীতিকেরা

0
52
Print Friendly, PDF & Email

ইসরায়েলি সেনাদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) একদল কূটনীতিক। ওই কূটনীতিকেরা গত শুক্রবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে বেদুইনদের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে গিয়ে ইসরায়েলি বাহিনীর রোষানলে পড়েন।
সম্প্রতি ইসরায়েলি হাইকোর্টের এক রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বেদুইনদের বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল।
কূটনীতিকদের লাঞ্ছিত করার পাশাপাশি তাঁদের সঙ্গে নিয়ে যাওয়া তাঁবু ও অন্যান্য ত্রাণসামগ্রীভর্তি একটি ট্রাকও জব্দ করে নিয়ে যান ইসরায়েলি সেনারা। এ ঘটনায় ইউরোপের বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের পাশাপাশি জাতিসংঘও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। ওই কূটনীতিকেরা হলেন ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, স্পেন, আয়ারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের।
লাঞ্ছিত কূটনীতিকেরা জানিয়েছেন, শুক্রবার তাঁরা পশ্চিম তীরের খিরবেত-আল-মাখুল এলাকায় পৌঁছানোর পরপরই ইসরায়েলি সেনাদের প্রায় ১২টি জিপ সেখানে আসে। সেনারা ট্রাকে থাকা ত্রাণসামগ্রী না নামাতে তাঁদের নির্দেশ দেন।
ফরাসি কূটনীতিক মারিয়ন ফেসনেউ-কাসটায়েং বলেন, ‘তারা (ইসরায়েলি সেনারা) আমাকে ট্রাক থেকে টেনে নামায় এবং জোর করে মাটিতে ফেলে দেয়। আমার কূটনৈতিক সুরক্ষার কোনো ধারই তারা ধারেনি। এভাবেই এখানে আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধা দেখানো হচ্ছে।’
একজন সাংবাদিক পুরো ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, ঘটনার সময় ওই কূটনীতিক দল, ত্রাণকর্মী এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের লক্ষ্য করে সাউন্ড গ্রেনেডও ছুড়েছেন ইসরায়েলি সেনারা।
ইসরায়েলি বাহিনীর এই ‘জঘন্য ও জবরদস্তিমূলক’ কাজের কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইউরোপীয় কর্মকর্তারা। জেরুজালেমে ব্রিটিশ কনস্যুলেটের একজন মুখপাত্র বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনকে মানবিক সাহায্য দিতে ইসরায়েলি বাহিনীর বাধা দেওয়ার খবরে তাঁরা উদ্বিগ্ন। জাতিসংঘের মানবিক সহায়তাবিষয়ক সমন্বয়কারী জেমস রাউলি বলেন, দখলকারী শক্তি হিসেবে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের তাদের অধীন মানুষকে রক্ষার দায় রয়েছে।
ঘটনার বিষয়ে হারেৎজ পত্রিকার ওয়েবসাইটে ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর (আইডিএফ) উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, কিছুসংখ্যক ফিলিস্তিনি, বিদেশি কর্মী ও কূটনীতিকেরা তাঁবু খাটানোর চেষ্টা করছিলেন। এটাকে ‘উসকানি’ হিসেবে দেখেছে আইডিএফ। ঘটনার সময় জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়া হয়।
ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ফরাসি কূটনীতিক ফেসনেউ-কাসটায়েং যদি ওই কার্যক্রমে অংশ নেন, তবে তাঁর বিরুদ্ধে একটি আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হবে। কারণ, কূটনীতিকেরা এ রকম আচরণ করতে পারেন না। বিবিসি ও রয়টার্স।

শেয়ার করুন