হজ ফ্লাইটের শুরুতেই বিপত্তি

0
53
Print Friendly, PDF & Email

হজ ফ্লাইট শুরুর প্রথম দিনেই বিপত্তির মুখে পড়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। প্রথম দিনের তিনটি ফ্লাইটের মধ্যে একটি বাতিল করা হয়েছে। ওই ফ্লাইটের ৪১৯ জন যাত্রীকে ১১ ঘণ্টা পর আজ ভোর সাড়ে ছয়টায় নেওয়া হবে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এ ছাড়া উদ্বোধনী ফ্লাইটের ১৬৩ জন হজযাত্রী নির্ধারিত ফ্লাইটে যেতে পারেননি।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, হজ ফ্লাইটের জন্য নাইজেরিয়ার কাবো এয়ারলাইনস থেকে ভাড়ায় আনা বোয়িং ৭৪৭ উড়োজাহাজটি সৌদি আরবের বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র না পাওয়ায় বিপত্তি দেখা দেয়। গতকাল শনিবার বেলা একটা ৪০ মিনিটে উদ্বোধনী ফ্লাইটে কাবোর ওই উড়োজাহাজে ৫৮২ জন হজযাত্রী যাওয়ার কথা ছিল। পরে ৪১৯ আসনবিশিষ্ট বিমানের নিজস্ব বোয়িং ৭৭৭ দিয়ে নির্ধারিত উদ্বোধনী ফ্লাইটটি ঢাকা ছেড়ে যায়। ফলে ওই ফ্লাইটের ১৬৩ জন হজযাত্রী যেতে পারেননি। তাঁদের পরবর্তী ফ্লাইটগুলোতে পর্যায়ক্রমে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে বিমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

দ্বিতীয় ফ্লাইটটি ৩১২ জন হজযাত্রী নিয়ে নির্ধারিত সময় বিকেল সাড়ে চারটায় ঢাকা ছেড়ে গেছে। তবে সাতটা ৪০ মিনিটে তৃতীয় যে ফ্লাইট ছাড়ার কথা ছিল, সেটা যায়নি। কারণ, এই ফ্লাইটটি যে উড়োজাহাজ দিয়ে পরিচালনার কথা ছিল, সেটি দিয়ে উদ্বোধনী ফ্লাইট পাঠানো হয়। বাতিল হওয়া এই ফ্লাইটের যাত্রীদের আজ রোববার ভোর সাড়ে ছয়টায় পাঠানো হবে বলে বিমান জানিয়েছে।

 গতকাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অনাকাঙ্ক্ষিত এই দুর্ভোগের জন্য বিমান কর্তৃপক্ষ হজযাত্রীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছে। একই সঙ্গে কর্তৃপক্ষ আশা প্রকাশ করেছে, আজ রোববারের মধ্যে কাবোর বোয়িং ৭৪৭ সৌদি কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র পাবে এবং হজ ফ্লাইটে যুক্ত হবে। এ ছাড়া পরিস্থিতি সামাল দিতে অতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনার প্রস্তুতি রয়েছে।

এই সমস্যার জন্য ‘বিতর্কিত’ কাবো থেকে উড়োজাহাজ ভাড়া করাকেই দায়ী করছেন বিমানের একাধিক কর্মকর্তা। এই কাবোকে কেন্দ্র করে কয়েক বছর ধরেই হজের সময় বিতর্কের মুখে পড়ছে বিমান।

গতকাল হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে হজ ফ্লাইটের উদ্বোধন করেন বিমানমন্ত্রী ফারুক খান। তখন তাঁর কাছে সাংবাদিকেরা জানতে চান, কাবো থেকে কেন উড়োজাহাজ ভাড়া করা হয়েছে। জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ছোটখাটো কিছু সমস্যা অতীতে হয়েছিল। আশা করি, আর হবে না।’

এ বছর বাংলাদেশ থেকে মোট ৮৮ হাজার ৯১১ জন হজে যাচ্ছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাচ্ছেন এক হাজার ৫৪৮ জন, বাকিরা বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়। মোট হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করবে বিমান। বাকি অর্ধেক করবে সৌদি এয়ারলাইনস ও নাস এয়ারওয়েজ। বাংলাদেশ প্রাক্-হজ ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে আগামী ৯ অক্টোবর পর্যন্ত। ১৯ অক্টোবর থেকে ফিরতি হজ ফ্লাইট শুরু হবে।

শেয়ার করুন