নির্দলীয় ১১ ব্যক্তির সমন্বয়ে বিএনপির প্রস্তাব প্রস্তুত

0
47
Print Friendly, PDF & Email

নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের রূপরেখা তৈরি করেছে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। ২৫ অক্টোবরের পর যে কোনো সময় ওই রূপরেখা তুলে ধরবে দলটি। তবে সরকারের সঙ্গে কোনো সমঝোতা হলে এর আগেও রূপরেখা প্রকাশ করা হতে পারে। দলের প্রস্তাবিত রূপরেখায় রয়েছে- ক্ষমতাসীন ও বিরোধী প্রধান দুই দল বা জোট পাঁচজন করে মোট ১০ জন নির্দলীয় নিরপেক্ষ ব্যক্তিকে নির্বাচিত করবে। ওই ১০ জনের উপদেষ্টা পরিষদ একজন নিরপেক্ষ ব্যক্তিকে প্রধান উপদেষ্টা নির্বাচিত করবেন। তারা নির্বাচনকালীন সরকারের রুটিনওয়ার্ক করবেন এবং নির্ধারিত সময়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবেন নির্বাচন কমিশনকে। তবে রূপরেখায় একটি বিকল্প প্রস্তাবও রাখা হয়েছে। যদি সমঝোতা হয় সে ক্ষেত্রে দুই দলের পাঁচজন করে বর্তমান সংসদ সদস্যের সমন্বয়ে একজন নিরপেক্ষ ব্যক্তিকে প্রধান উপদেষ্টা করে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া হতে পারে। দলীয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে প্রকৌশলীদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা তৈরির বিষয়টি অবহিত করেন। সেখানে তিনি রূপরেখার সামান্য ধারণাও দেন। তিনি প্রকৌশলীদের বলেন, আমরা নির্বাচনকালীন সরকারের একটি রূপরেখা তৈরি করেছি। সময়মতো তা প্রকাশ করব। তবে তত্ত্বাবধায়ক কিংবা অন্তর্বর্তীকালীন সরকার- যাই হোক না কেন, প্রধানমন্ত্রী বা দলীয় কোনো ব্যক্তির অধীনে বিএনপি আগামী নির্বাচনে যাবে না। এ ক্ষেত্রে নির্দলীয় সরকারের দাবি আদায়ে যে ধরনের আন্দোলনের প্রয়োজন তাতে পিছপা হব না। বেগম জিয়া আরও বলেন, বাংলাদেশে দল করে না এমন বহু লোক রয়েছে। মনে মনে কোনো দল করলেও প্রকাশ্যে তারা কোনো রাজনীতি করে না। তাদের মধ্য থেকে ১১ জনকে বেছে নেওয়া কোনো কষ্টকর বিষয় হবে না।
এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আগামী নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা আমরা তৈরি করেছি। সময়মতো তা প্রকাশ করা হবে। তিনি বলেন, রূপরেখা যাই হোক দলীয় কিংবা দ্বিদলীয় সরকারের অধীনে আমরা নির্বাচনে যাব না। এমনকি বহুদলীয় সরকারের অধীনেও আমাদের আপত্তি আছে। নাম তত্ত্বাবধায়ক কিংবা অন্তর্বর্তী যাই হোক আমাদের আপত্তি থাকবে না। তবে শর্ত হলো, নির্বাচনকালীন সরকারের কর্তাব্যক্তিদের নির্দলীয় হতে হবে।
সূত্রে জানা যায়, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান করে দুই দল থেকে নির্বাচিত পাঁচজন করে সংসদ সদস্যের সমন্বয়ে একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনে রাজি হওয়ার জন্য বিএনপিকে চাপ দিচ্ছে দেশি-বিদেশি কূটনৈতিক মহল। এমনকি দেশের সুশীল সমাজের একটি অংশও বিএনপিকে এ প্রস্তাব মেনে নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে। এতে বিএনপি বিপুল ভোটে জয়ী হবে বলে তারা বিএনপিকে আশ্বস্ত করে। তবে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি তা বিনয়ের সঙ্গে প্রত্যাখ্যান করেছে। দলের পক্ষ থেকে কূটনীতিকসহ সংশ্লিষ্টদের বলা হচ্ছে, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে কোনো সরকারের অধীনে বিরোধী দল নির্বাচনে যাবে না। দলীয় অন্য কোনো ব্যক্তির অধীনেও নয়। এমনকি রাষ্ট্রপতি কিংবা স্পিকারের অধীনেও নির্বাচনে না যাওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি।
বিএনপির কূটনীতিসংশ্লিষ্ট নেতারা জানিয়েছেন, বিএনপিকে টোপে ফেলতে সরকার নানা কৌশলের আশ্রয় নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে দেশি-বিদেশি কূটনৈতিক মহল দিয়ে বিএনপিকে বোঝানোর চেষ্টা করা হচ্ছে- দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে গেলেও বিএনপির বিজয় নিশ্চিত। যার প্রমাণ সম্প্রতি অনুষ্ঠিত পাঁচটি সিটি নির্বাচনে পাওয়া গেছে। এ ছাড়া বলা হচ্ছে, দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষক ও শক্তিশালী গণমাধ্যমের সরব ভূমিকার কারণে কোনো ধরনের কারচুপি কিংবা নির্বাচনী ফলাফল পাল্টানোর সুযোগ থাকবে না। নেতারা জানান, অতীতের মতো আর এ ধরনের পাতা ফাঁদে পা দেবে না বিএনপি, এমনকি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার ছাড়া কোনো নির্বাচনে অংশ নেওয়া হবে না। জনগণও দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন মেনে নেবে না বলে মনে করেন তারা।
দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অধীনে ১৮ দল নির্বাচনে যাবে না। তা প্রধানমন্ত্রীও জানেন। রাষ্ট্রপতি বা স্পিকারের অধীনে জাতীয় সরকার গঠনের কথাও কোনো কোনো পত্রিকায় লেখা হচ্ছে। রাষ্ট্রপতি ও স্পিকার দলীয় ব্যক্তি। কোনো দলীয় ব্যক্তির অধীনে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না। সমঝোতা ছাড়া সংঘাতময় পরিস্থিতি এড়ানোর সুযোগ নেই মন্তব্য করে সাবেক আইনমন্ত্রী বলেন, সরকার চাইলে সংসদের ভেতরে-বাইরে যে কোনো জায়গায় আলোচনায় বসতে বিএনপি রাজি। তবে সরকারকে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কারণ এজেন্ডা ছাড়া কোনো আলোচনা ফলপ্রসূ হয় না।

শেয়ার করুন