সিরিয়া আক্রান্ত হলে আমরা জানি কি করতে হবে: পুতিন

0
48
Print Friendly, PDF & Email

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, সিরিয়ায় মার্কিন সামরিক আগ্রাসন হলে এ ব্যাপারে মস্কো তার নিজস্ব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে।

প্রেসিডেন্ট পুতিন বুধবার বার্তা সংস্থা এপি ও রাশিয়ার এক নম্বর টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাতকারে এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, পরিস্থিতি যদি বলপ্রয়োগের দিকে গড়ায় তাহলে আমরা কি করবো এবং কিভাবে করব সে সম্পর্কে আমাদের নিজস্ব পরিকল্পনা রয়েছে।

আমেরিকা ও তার হাতে গোনা কিছু মিত্র অভিযোগ করছে, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ নিজ দেশের জনগণের ওপর রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে। কাজেই দেশটির ওপর হামলা চালিয়ে আসাদকে ‘উচিত শিক্ষা’ দিতে হবে যাতে তিনি আর এ ধরনের হামলা চালানোর ধৃষ্ঠতা না দেখান।

কিন্তু রাসায়নিক হামলা চালানোর অভিযোগ সরসারি প্রত্যাখ্যান করে প্রেসিডেন্ট আসাদ বলেছেন, তার দেশের ওপর আগ্রাসন চালানোর অজুহাত হিসেবে এ অভিযোগ এনেছে পাশ্চাত্য যার কোন ভিত্তি নেই।

সিরিয়ার কৌশলগত মিত্র রাশিয়া বলেছে, সিরিয়ায় আদৌ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে কি-না এবং হলে তা কোন পক্ষ ব্যবহার করেছে সে সম্পর্কে আগে নিশ্চিত হতে হবে। এ ছাড়া, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের অনুমতি ছাড়া সিরিয়ায় হামলা করা যাবে না।

বুধবার রুশ প্রেসিডেন্সিয়াল হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলের বৈঠকে প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেন, একমাত্র জতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদই দিতে পারে অন্য কোনো দেশের বিরুদ্ধে সামরিক হামলার অনুমতি। তবে, এ ক্ষেত্রে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ দিতে হবে যে, প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের নেতৃত্বাধীন সরকার ওই রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে।

বৈঠকে পুতিন এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চুক্তির কথা উল্লেখ করে বলেন, সিরিয়া সরকারের সঙ্গে সামরিক চুক্তি রক্ষার বিষয়ে রাশিয়া প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তিনি জানান, এরইমধ্যে আমরা এস-৩০০ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার কিছু যন্ত্রাংশ দামেস্কের কাছে হস্তান্তর করেছি এবং বর্তমানে তা বন্ধ আছে। তবে যদি দেখি যে, আন্তর্জাতিক প্রথা ভেঙে সিরিয়ার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে তাহলে ভবিষ্যতে আমরা কি ধরনের ব্যবস্থা নেব বিশেষ করে এই সংবেদনশীল অস্ত্র বিশ্বের বিভিন্ন এলাকায় সরররাহ করার বিষয়টি ভেবে দেখব।

সিরিয়া সংলগ্ন ভূমধ্যসাগরে আমেরিকা ও তার মিত্রদের পাশাপাশি একাধিক যুদ্ধজাহাজ ও সাবমেরিন পাঠিয়েছে রাশিয়া।

শেয়ার করুন