ফন্টেরা গুঁড়োদুধে ব্যাকটেরিয়া! ল্যাব-টেস্ট রেজাল্টের অপেক্ষায় এনবিআর

0
77
Print Friendly, PDF & Email

নিউজিল্যান্ড থেকে আমদানীকৃত ফন্টেরা ব্রান্ডের গুঁড়োদুধে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া রয়েছে। এমন অভিযোগে চট্টগ্রাম বন্দরে আটকা আছে সাড়ে ছয়শত টন গুঁড়ো দুধ।

এই অভিযোগের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম কাস্টমস দুধ খালাস বন্ধ করে দেয়। পরে তারা নমুনা পরীক্ষার বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে চট্টগ্রাম কস্টমস থেকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদর দপ্তরে যোগাযোগ করে।

এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার আমদানীকৃত গুড়ো দুধের প্রত্যেক চালান থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তা পরীক্ষাগারে যাচাই বাছাই এর পর খালাসের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ সংক্রান্ত চিঠি চট্টগ্রাম কাস্টমসসহ প্রত্যেক শুল্ক স্টেশনে পাঠানো হয় বলে এনবিআর সূত্রে জানা যায়। ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম কাস্টমস্ এর উদ্যোগে আমদানীকৃত ফন্টেরা ব্রান্ড গুঁড়োদুধের নমুনা বাংলাদেশ শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষনাগারের ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। এনবিআর এখন সেই পরীক্ষাগারের ফলাফলের অপেক্ষায় রয়েছে।
এনবিআর এর কর্মকর্তারা জানান, জনস্বাস্থ্যের বিষয়টিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে। আমদানীকৃত দুধ নিউজিল্যান্ডের হলেও তা নমুনা পরীক্ষায় ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গেলে দেশের প্রচলিত আইনেই বিষয়টি নিষ্পত্তি হবে।

এনবিআর সূত্রে আরো জানা যায়, চট্টগাম কাস্টমস থেকে রাজস্ব বোর্ডের মূল দপ্তরে দেয়া চিঠিতে পাঁচটি শীর্ষ প্রতিষ্ঠান আবুল খায়ের গ্রুপ, নেসলে বাংলাদেশ লিমিটেড, সানোয়ারা কর্পোরেশন, নিউজিল্যান্ড ডেইরি ও প্রাণ ডেইরি ফন্টেরা ব্র্যান্ডের দুধ আমদানী করেছে বলে জানানো হয়।

এছাড়া এ তালিকায় আরো কয়েকটি ছোট প্রতিষ্ঠানও আছে বলে উল্লেখ করা হয়। এই পাঁচ প্রতিষ্ঠান বিগত ২০১২-১৩ অর্থবছরে ২০ হাজার ৭৪১ টন গুঁড়োদুধ আমদানি করেছে। এদের মধ্যে দেশের শীর্ষস্থানীয় মার্কস ব্রান্ডের আবুল খায়ের গ্রুপ ফন্টেরা থেকে গুঁড়োদুধ আমদানি করে ৯ হাজার ১৬৮টন।নেসলে বাংলাদেশ আমদানি করে ৫ হাজার ৯০০টন। কোয়ালিটি ব্রান্ডের সানোয়ারা কর্পোরেশন আমদানি করে ১০০ টন। প্রাণ ডেইরি আমদানি করে ৫৩২ টন দুধ।

শেয়ার করুন