মেসি ছাড়াই জিতল আর্জেন্টিনা

0
61
Print Friendly, PDF & Email

ভক্তদের চোখ খুঁজে ফিরছে লিওনেল মেসিকে। ইনজুরির কারণে তিনি মাঠে অনুপস্থিত। রোমের অলিম্পিক স্টেডিয়ামের ৩৫ হাজার দর্শক খুঁজছিল মারিও বালোতেলি্লকেও। তিনিও ইনজুরির কারণে সাইড লাইনে বসে আছেন। আর্জেন্টিনা-ইতালি প্রীতিম্যাচে প্রধান দুই তারকার অনুপস্থিতি ভক্তদের অনেকটাই হতাশ করেছিল। তবে পুষিয়ে দিলেন হিগুয়েন-ডি মারিয়া। দুই আর্জেন্টাইন শৈল্পিক ফুটবল দর্শকদের চোখ ধাঁধিয়ে দিয়েছে। দর্শকের সারিতে বসে পোপ ফ্রান্সিস দেখলেন আর্জেন্টিনার কাছে ইতালিয়ানদের ২-১ গোলের পরাজয়। এক যুগ আগে এই মাঠে একই ব্যবধানে ইতালি হেরেছিল আলবেসিলেস্তদের কাছে! অতীতটা বদলাতে পারলেন না ডি রোসিরা।

আর্জেন্টিনার কাছে ইতালি দুঃখ পেয়েছে বেশ কয়েকবার। ১৯৯০ সালের বিশ্বকাপেই সম্ভবত সবচেয়ে বড় আঘাতটি পেয়েছিল ম্যারাডোনার আর্জেন্টিনার কাছে। সেবার স্বাগতিক ইতালি নেপলসের স্যান পাউলো স্টেডিয়ামে ১-১ গোলের ড্রয়ের পর টাইব্রেকারে ম্যাচটি হেরেছিল ৪-৩ ব্যবধানে। অথচ এর আগে বিশ্বকাপে চারবারের সাক্ষাতে একবারও জয় পায়নি আলবেসিলেস্তরা! ইতালিয়ানরা আর্জেন্টিনার কাছে পাওয়া দুঃখগুলো মুছতে ব্যর্থ হলো আরও একবার। মেসিহীন ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে জয় এনে দিয়েছেন সদ্যই রিয়াল মাদ্রিদ থেকে ইতালিয়ান ক্লাব নেপোলিতে যোগ দেওয়া আর্জেন্টাইন তারকা গঞ্জালো হিগুয়েন। ২১ মিনিটে কেবল নিজে একটি গোলই করেননি সেই সঙ্গে ৪৯ মিনিটে এভার ব্যানেগাকে দিয়ে একটি গোল করানও তিনি। ২-০ গোলে পিছিয়ে থাকা ইতালিকে সান্ব্তনার গোল উপহার দেন লরেঞ্জো (৭৫)।

ইতালির বিপক্ষে ম্যাচে কোচ আলেসান্দ্রো স্যাবেলার অনেক কিছুই প্রমাণ করার ছিল। ইতালির বিশ্ববিখ্যাত রক্ষণভাগের সামনে তিনি দল সাজান ৪-৩-৩ আক্রমণাত্দক ফরম্যাটে। সেই সঙ্গে ডিফেন্সেও চোখ রেখেছেন তিনি। গ্যারে, ফার্নান্দেজ, আরমান্দো এবং হোসে মারিয়ারা কোচকে হতাশ করেননি। ইতালির আক্রমণগুলো রুখে দিয়েছেন তারা। তবে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিক হলো গোলরক্ষক মারিয়ানো গঞ্জালোর দুর্দান্ত পারফরম্যান্স। ব্রাজিল বিশ্বকাপের আগে একটা ভারসাম্যপূর্ণ দল গঠনের চেষ্টায় আছেন স্যাবেলা। মেসিকে ছাড়া ইতালির বিপক্ষে অগি্ন পরীক্ষা দিয়ে পাস মার্কই পেয়ে গেলেন স্যাবেলা। অন্যদিকে ইউরোপীয়ানদের সামনে আরও একটি বিষয় স্পষ্ট হয়ে গেল। ল্যাটিন আমেরিকা থেকে বিশ্বকাপ সহজে আনতে পারছে না তারা। ইতালিয়ান ডিফেন্স যদি আর্জেন্টিনাকে রুখতে ব্যর্থ হয়, তবে অন্য দলগুলোর ল্যাটিনদের রুখবার সাধ্য কোথায়! বিশ্বকাপটা কি তবে ব্রাজিল কিংবা আর্জেন্টিনাতেই থাকছে?

শেয়ার করুন