সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তাসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

0
46
Print Friendly, PDF & Email

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির চেক জালিয়াতির মাধ্যমে ৫৬ লাখ ৬৫ হাজার টাকা আত্মসাতের মামলায় সোনালী ব্যাংক গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর শাখার সাবেক জুনিয়র অফিসার জিল্লুর রহমান চৌধুরীসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক)।

বুধবার দুর্নীতি দমন কমিশনের নিয়মিত সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

চার্জশিট ক্তুক্ত আসামিরা হলেন সোনালী ব্যাংক গাইবান্ধা সাদুল্যাপুর শাখার সাবেক জুনিয়র অফিসার জিল্লুর রহমান চৌধুরী, খোদাবক্স বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহাকারি শিক্ষক মো. দুলাল মিয়া, রসুলপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষিকা মাহমুদা খাতুন, দড়িতাজপুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

এছাড়াও রয়েছেন খোর্দ্দরুহিয়া দারুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক মো. খলিলুর রহমান আকন্দ, শাহজালাল দাখিল মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক মো. আবুল হোসেন সরকার, আলদাদপুর আদর্শ বালিকা বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মো. আবদুর মজিদ সরকার, মোলং বাজার দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের পিয়ন মো. আলমগীর প্রধান, মো. হাসান আলী মন্ডল, মো. রফিকুল ইসলাম মন্ডল, মো. জাহিদুল ইসলাম ও মো. ফেরদৌস বারী।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তা জিল্লুর রহমার চৌধুরী ২০০৯ সালের ২৯ মার্চ থেকে ২০১২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পরিচিতদের ব্যাংকের ফাঁকা চেকে স্বাক্ষর করে নিজের কাছে রেখে দিতেন। ওই সব চেকে ইচ্ছামতো টাকার অংক বসিয়ে উল্টা পিঠে নিজেই স্বাক্ষর করে প্রায় ৫৬ লাখ ৬৫ হাজার টাকা উত্তোলন করেছেন। উল্লেখিত বাকি ১১ জন তাকে এ কাজে সাহায্য করেছেন।

এ ঘটনায় দুদকের সহকারি পরিচালক মো. আব্দুস ছাত্তার সরকার বাদি হয়ে গত বছর ২৬ সেপ্টেম্বর সাদুল্যাপুর থানায় মামলা নং- ২০, ধারা  ৪০৯/১০৯ দায়ের করেন।

মামলাটি তদন্তের পর দন্ডবিধি ৪০৯/১০৯ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় চার্জশিট দায়েরের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন