এমপি রনির জামিন আবেদন নামঞ্জুর

0
44
Print Friendly, PDF & Email

সাংবাদিক পেটানোর মামলায় পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনির জামিনের আবেদন এবার নাকচ করলেন জজ আদালত।এমপি রনির জামিন আবেদন নামঞ্জুর
ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান শুনানি শেষে গতকাল এ আদেশ দেন। এর আগে রনির আইনজীবীরা হাকিম আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে ২৮ জুলাই ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে ফৌজদারি বিবিধ মামলা (সিআর মিস/জামিনের আবেদন) করেন। ওই দিন প্রাথমিক শুনানি শেষে এ বিষয়ে অধিকতর শুনানির জন্য ১৩ আগস্ট দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।

আদালতে রনির পক্ষে শুনানিতে তার আইনজীবী কবির হোসাইন ও আবদুল্লাহ আল মনসুর রিপন বলেন, যেদিন রনির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, পরদিন আদালতে আত্দসমর্পণ করেছেন তিনি। একজন সাধারণ মানুষের মতো আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে জামিনের প্রার্থনা করেছেন ক্ষমতাসীন দলের সংসদ সদস্য হয়েও। তিনি এমপি হিসেবে কোনো বাড়তি সুবিধা নিতে চাননি। আদালতের প্রতি তার সম্মান থাকায় ওই দিন রনিকে জামিন দিয়েছিলেন মহানগর হাকিম। এরপর হাকিম আদালত আত্দপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়েই এমপি রনির জামিন বাতিল করেন। জামিন বাতিলের আগে তাকে নিয়ম অনুযায়ী নোটিসও দেওয়া হয়নি। এ ছাড়া রনির বিরুদ্ধে ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের কর্মকর্তা ইউনুস আলীর করা মামলা এবং হুমকির অভিযোগে করা সাধারণ ডায়েরির তদন্ত একই পুলিশ করায় তদন্তের নিরপেক্ষতা ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তার আইনজীবীরা। এ সময় বাদী ইউনুছ আলী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে জামিনের বিরোধিতা করে বাদীর ব্যক্তিগত আইনজীবী আনিসুল হক আদালতকে বলেন, এ মুহূর্তে তাকে জামিন দিলে মামলার তদন্তে তিনি বাধা সৃষ্টি করতে পারেন। এ ছাড়া মামলার সাক্ষীদেরও ভয়ভীতি দেখাতে পারেন আসামি। তাই নির্বিঘ্নভাবে মামলার তদন্ত করা না গেলে মামলা দুর্বল হয়ে পড়বে। শুনানি শেষে রনির জামিন আবেদন নাকচ করে দেন বিচারক। আদালতের এ আদেশের পর রনির আইনজীবী আবদুল্লাহ আল মনসুর রিপন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হবে।’

সাংবাদিক পেটানো ও হত্যাচেষ্টা মামলার বাদী ইউনুছ আলীকে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগে ২৪ জুলাই রনির জামিন বাতিল করে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর হাকিম শাহরিয়ার মাহমুদ আদনান। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির দুই ঘণ্টার মধ্যে এমপি রনিকে রাজধানীর বাড্ডা এলাক থেকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। পরদিন ২৫ জুলাই আদালতে হাজির করা হয় তাকে। ওই দিন তার জামিনের আবেদন করলে হাকিম আদালত তা নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেন। সাংবাদিক পেটানোর মামলায় ২১ জুলাই আদালতে আত্দসমর্পণ করে জামিন পেয়েছিলেন রনি। এরপর ওই দিন রাতে এমপি রনির বিরুদ্ধে জিডি করেন বাদী ইউনুছ আলী। জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন, জামিন পাওয়ার পর এমপি রনি তাকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিয়েছেন। পরদিন বাদী আদালতে রনির জামিন বাতিলের আবেদন করেন।

২০ জুলাই ইনডিপেনডেন্ট টিভি চ্যানেলের দুই সংবাদকর্মীকে পেটানোর অভিযোগে মামলা হয় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনির বিরুদ্ধে।

শেয়ার করুন