গ্রামীণ ব্যাংকে সরকারি অংশ বৃদ্ধির চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত হচ্ছে

0
99
Print Friendly, PDF & Email

গ্রামীণ ব্যাংকে সরকারের অংশীদারিত্ব বাড়ানোর চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত হচ্ছে। এর ফলে ব্যাংকটির মূলধন সময় সময় বেড়ে যতই হোক না কেন, তাতে সরকারের ২৫ শতাংশ মালিকানা বহাল থাকবে। অর্থাৎ, যত দিন আইনটিতে নতুন সংশোধনী আনা না হবে, তত দিন বহাল থাকবে সরকারের ২৫ শতাংশ মালিকানা। তবে সংশোধনী ছাড়াই বর্তমান আইনে সরকার চাইলে ব্যাংকটিতে তার মালিকানা আরও বাড়াতে পারবে। শুধু তা-ই নয়, গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি নিয়োগ এবং পরিচালক নির্বাচনেও সরকারের কর্তৃত্ব কায়েম করা হচ্ছে।

গ্রামীণ ব্যাংক আইন ইংরেজি থেকে বাংলায় পরিবর্তনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের ওপর নিয়ন্ত্রণ কায়েমের এ প্রক্রিয়াগুলো একে একে সম্পন্ন করবে সরকার। এ লক্ষ্যে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক ডেকেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব ড. এম আসলাম আলমের সভাপতিত্বে আজ বৈঠকটি হওয়ার কথা।

জানা গেছে, যে অধ্যাদেশের মাধ্যমে ১৯৮৩ সালে ব্যাংকটি গঠিত হয়েছে, সেটির মাধ্যমেই সরকারের অংশীদারি বাড়ানো হচ্ছে। আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে এবং পরবর্তী সময়ে সংসদে পাসের মাধ্যমে সামরিক সরকারের আমলে জারি করা প্রয়োজনীয় অধ্যাদেশগুলো এরই মধ্যে আইনে পরিণত হয়েছে। ফলে গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশও ‘গ্রামীণ ব্যাংক আইন’-এ পরিণত হয়েছে। ইংরেজিতে করা ওই আইনটি এখন বাংলায় পরিবর্তন করা হবে। যেটির নাম হবে ‘গ্রামীণ ব্যাংক আইন, ২০১৩’। ওই আইনে সরকারের ২৫ শতাংশ মালিকানার বিষয়টি উল্লেখ থাকছে। এ ব্যাপারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, ইংরেজিতে যে আইনটি রয়েছে, সেটিই আমরা বাংলায় করছি। এ ক্ষেত্রে সুযোগ থাকা সত্ত্বেও গ্রামীণ ব্যাংকের কাঠামোগত কোনো পরিবর্তনের ব্যাপারে সরকার আগ্রহী নয় বলে জানান ওই কর্মকর্তা। তবে অন্য একটি সূত্র বলছে, আইনের মাধ্যমে সরকার মূলত গ্রামীণ ব্যাংকে নিয়ন্ত্রণ বাড়ানোর সুযোগ নিচ্ছে। কেননা আগের সরকারগুলো (এর মধ্যে আওয়ামী লীগ সরকারের ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদের শাসনকালও রয়েছে) ব্যাংকটিতে ঋণগ্রহীতাদের অংশীদারি বাড়ানোর স্বার্থেই পরিশোধিত মূলধন বাড়ায়নি। ফলে এটি কমতে কমতে ৩ শতাংশের কাছাকাছি চলে আসে। কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা এমডি নোবেল লরিয়েট ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সঙ্গে মূলত দ্বন্দ্বের পরিপ্রেক্ষিতেই অংশীদারি বাড়ানোর উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে ২৫ শতাংশ মালিকানা নিশ্চিত করার জন্য সরকারের ট্রেজারি থেকে গ্রামীণ ব্যাংকের নামে ১৩ কোটি ২০ লাখ ছাড় করা হয়েছে। আর এ মালিকানা চিরস্থায়ী করতে ব্যবহার করা হচ্ছে আইনি কাঠামো।

সূত্র জানায়, কাগজে-কলমে গ্রামীণ ব্যাংকে সরকারের ২৫ শতাংশ শেয়ার ধারণের কথা বলা হলেও বাস্তবে সেটি ছিল না। এ পরিমাণ শেয়ার রাখতে হলে যে পরিশোধিত মূলধন দেওয়ার কথা, তা দেয়নি সরকার। পরিশোধিত মূলধনের অভাবে ব্যাংকটিতে সরকারি শেয়ারের পরিমাণ সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী ৩ দশমিক ১৩ শতাংশে নেমে আসে। কিন্তু নামমাত্র এ অংশীদারিত্ব দিয়ে ব্যাংকটিতে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হচ্ছিল না সরকারের পক্ষে। সূত্র জানায়, গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ, ১৯৮৩ অনুযায়ী এর পরিশোধিত মূলধন ছিল তিন কোটি টাকা। বর্তমানে ব্যাংকটির পরিশোধিত মূলধন প্রায় ৫৭ কোটি টাকা। ১৯৮৩ সালে মূল অধ্যাদেশ অনুযায়ী সরকারের শেয়ার ছিল ৬০ শতাংশ। অন্যদিকে গ্রামীণ ব্যাংক সদস্যদের শেয়ার ছিল ৪০ শতাংশ। ১৯৮৬ সালে অধ্যাদেশের সংশোধনীতে গ্রামীণ ব্যাংক সদস্যদের শেয়ার বাড়িয়ে ৭৫ শতাংশ করা হয়। সে ক্ষেত্রে সরকারের শেয়ার দাঁড়ায় ২৫ শতাংশ। কিন্তু সরকার নিজের শেয়ার গ্রহণ না করায়, অর্থাৎ মূলধনের নির্দিষ্ট অংশ পরিশোধ না করায় বাস্তবে শেয়ার দাঁড়ায় ৩ শতাংশের কাছাকাছি। আর গ্রামীণ ব্যাংক সদস্যদের শেয়ার দাঁড়ায় প্রায় ৯৭ শতাংশ। এদিকে বাংলায় করা আইনে গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি এবং পরিচালক নিয়োগেও সরকারের কর্তৃত্ব স্পষ্ট করা হবে। বিধি অনুযায়ী ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্ত অনুসারে এমডি নিয়োগ হওয়ার কথা। তবে গত বছর অধ্যাদেশ পরিবর্তন করে এমডি নিয়োগে সরকারের কর্তৃত্ব কায়েম করা হয়। সংশোধিত আইন অনুযায়ী ব্যাংকটিতে সরকারের নিয়োগকৃত চেয়ারম্যান পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে আলোচনা করে এমডি নিয়োগে একটি সিলেকশন কমিটি গঠন করবেন। ওই সিলেকশন কমিটি যাচাই-বাছাই করে এমডি হওয়ার যোগ্য তিনজনের নাম পরিচালনা পর্ষদে পাঠাবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে পরে তাদের মধ্য থেকে একজনকে দেওয়া যাবে এমডি পদে নিয়োগ। পরিচালক নির্বাচনে সরকারের কর্তৃত্ব ধরে রাখতেও একটি খসড়া বিধিমালা করেছে সরকার। খসড়া বিধিমালা অনুযায়ী সরকারের তদারকিতে নির্বাচিত হবে গ্রামীণ ব্যাংকের শেয়ারধারী পরিচালক। বিধিমালা কার্যকর হলে দুই স্তরের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে শেয়ারধারীদের পরিচালক হতে হবে। আর এ নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন ও কমিশনার দুটোই নিযুক্ত করবে সরকার।

শেয়ার করুন