২০১৫ বিশ্বকাপের সূচি ঘোষণা

0
52
Print Friendly, PDF & Email

Normal 0 false false false EN-US X-NONE X-NONE /* Style Definitions */ table.MsoNormalTable {mso-style-name:”Table Normal”; mso-tstyle-rowband-size:0; mso-tstyle-colband-size:0; mso-style-noshow:yes; mso-style-priority:99; mso-style-qformat:yes; mso-style-parent:””; mso-padding-alt:0in 5.4pt 0in 5.4pt; mso-para-margin-top:0in; mso-para-margin-right:0in; mso-para-margin-bottom:10.0pt; mso-para-margin-left:0in; line-height:115%; mso-pagination:widow-orphan; font-size:11.0pt; font-family:”Calibri”,”sans-serif”; mso-ascii-font-family:Calibri; mso-ascii-theme-font:minor-latin; mso-hansi-font-family:Calibri; mso-hansi-theme-font:minor-latin; mso-bidi-font-family:”Times New Roman”; mso-bidi-theme-font:minor-bidi;}

কেকোনগ্রুপেগ্রুপগ্রুপবিঅস্ট্রেলিয়াভারতনিউজিল্যান্ডদক্ষিণআফ্রিকাবাংলাদেশপাকিস্তানশ্রীলংকাওয়েস্টইন্ডিজইংল্যান্ডজিম্বাবুয়েবাছাইপর্বআয়ারল্যান্ডবাছাইপর্ববাছাইপর্ব

 

মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে ২০১৫ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ড্র ঘোষণা করে আইসিসি কর্তৃপক্ষ। এই সময় অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী কেভিন রুড ও আইসিসির সহ-সভাপতি ও সাবেক বিসিবি সভাপতি আ হ ম মোস্তাফা কামাল উপস্থিত ছিলেন-ওয়েবসাইট২০১৫ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের চূড়ান্ত সূচি ঘোষণা করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। সূচি অনুযায়ী বাংলাদেশকে নিয়ে এই বিশ্বকাপের যৌথ আয়োজক অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড পড়েছে একই গ্রুপে। অপরদিকে একই গ্রুপে পড়েছে উপ-মহাদেশের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত এবং পাকিস্তানও।
মঙ্গলবার মেলবোর্ন এবং ওয়েলিংটনে একই সময়ে ২০১৫ আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের পুল, ভেন্যু এবং সূচি ঘোষণা করা হয়েছে। মেলবোর্নের ডকল্যান্ডের পেনিনসুলা সেন্ট্রাল পিয়ারে এবং ওয়েলিংটনের সিরসা থিয়েটারে আয়োজিত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই ঘোষণা দিয়েছে আইসিসি। উভয় অনুষ্ঠানে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ছাড়াও আইসিসির কর্মকর্তা, বিশিষ্ট ব্যক্তি, বর্তমান এবং সাবেক ক্রিকেটাররা উপস্থিত ছিলেন। মেলবোর্নের ঘোষণাটি দিয়েছেন বাংলাদেশের সাবেক বোর্ড প্রধান এবং আইসিসির সহ-সভাপতি মোস্তফা কামাল। ওই সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্থানীয় আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান রালফ ওয়াটার্স, আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন এবং স্থানীয় আয়োজক কমিটির প্রধান নির্বাহী জন হার্নডেন। অন্যদিকে ওয়েলিংটনে এই সূচি ঘোষণা করেছেন আইসিসির সভাপতি অ্যালান ইসাক এবং নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটির প্রধান থেরেসে ওয়ালস।
আগামী বিশ্বকাপে ১৪টি দল দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে অংশগ্রহণ করবে। ১০টি টেস্ট খেলুড়ে দেশের সঙ্গে থাকছে বাছাইপর্বের সেরা ৪টি দল। ইতোমধ্যেই বাছাইপর্বের প্রথম দল হিসেবে আয়ারল্যান্ড বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। অপর তিনটি দল এখনো চূড়ান্ত হয়নি। অক্টোবরে আইসিসি ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট লীগ চ্যাম্পিয়নশিপের মাধ্যমে বাছাইপর্বের অপর তিনটি দল চূড়ান্ত হবে। ড্র অনুযায়ী ‘এ’ গ্রুপে যৌথ আয়োজক অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে আরো রয়েছে ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ, শ্রীলংকা এবং বাছাইপর্বে ২য় ও ৩য় স্থান অর্জনকারী দল। আর ‘বি’ গ্রুপে পড়েছে ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ে, আয়ারল্যান্ড (বাছাইপর্বের প্রথম দল) এবং বাছাইপর্বের ৪র্থ দল। উভয় গ্রুপের শীর্ষ ৪টি করে দল নকআউট পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে স্বাগতিক দল এবং শ্রীলংকার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পর্দা উঠবে। ওইদিনই অস্ট্রেলিয়ার ঐতিহ্যবাহী মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে দিবা-রাত্রির ম্যাচে স্বাগতিকরা তাদের অ্যাশেজ প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ডের মোকাবেলা করবে। ২৯ মার্চ মেলবোর্নে টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। এ প্রসঙ্গে আইসিসি প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন বলেছেন, ‘২০১৫ টুর্নামেন্টটি যখন অনুষ্ঠিত হবে তখন বিশ্বকাপের বয়স হবে ৪০ বছর। এই দীর্ঘ সময়ে দারুণ সব প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং অসাধারণ কিছু ক্রিকেটারের কারণে বিশ্বব্যাপী ক্রমেই ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, ২০১৫ বিশ্বকাপের সফল আয়োজন ৫০ ওভারের ক্রিকেটের শক্তিকে আরো বৃদ্ধি করবে। টেস্ট এবং টি২০ ক্রিকেটের পাশাপাশি মূলত ক্রিকেটকেই এগিয়ে নিয়ে যাবে।’
ড্রতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে ওয়ানডেতে শ্রীলংকা এবং ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আমাদের সাফল্য রয়েছে। আর তাই তাদের বিপক্ষে বিশ্বকাপে খেলতে পারাটা আমাদের জন্য স্বস্তিদায়ক। প্রথম তিনটি ম্যাচে ওই দুটি দল ছাড়াও বাছাইপর্বের একটি দলের বিপক্ষে আমরা মাঠে নামব। তাই বিশ্বকাপের শুরুটা নিয়ে আমরা আশাবাদী হতেই পারি।’
১৪ ফেরুয়ারি থেকে ২৯ মার্চ পর্যন্ত সর্বমোট ৪৯টি ম্যাচ ১৪টি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে। যার ২৬টি অস্ট্রেলিয়া এবং বাকি ২৩টি আয়োজন করবে নিউজিল্যান্ড। অস্ট্রেলিয়ায় ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে অ্যাডিলেড, ব্রিসবেন, ক্যানবেরা, হোবার্ট, মেলবোর্ন, পার্থ এবং সিডনিতে। অপরদিকে ক্রাইস্টচার্চ, অকল্যান্ড, ডানেডিন, হ্যামিল্টন, নেপিয়ার, নেলসন এবং ওয়েলিংটনে অনুষ্ঠিত হবে নিউজিল্যান্ডের ম্যাচগুলো।

শেয়ার করুন