র্যা বের অস্ত্র মামলা থেকে লিমনকে অব্যাহতি

0
112
Print Friendly, PDF & Email

র‌্যাবের করা অস্ত্র মামলা থেকে ঝালকাঠির রাজাপুরের কলেজছাত্র লিমন হোসেনকে অব্যাহতি দিয়েছে আদালত। গতকাল বেলা সাড়ে ১২টায় ঝালকাঠি জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল মান্নান রসুল বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-২ এ লিমনকে অব্যাহতি প্রদানের আবেদন করলে বিচারক কিরণ শংকর হালদার এ আদেশ দেন। এদিকে মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে লিমনের বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধাদানের অপর মামলাটি বিচারক না থাকায় আগামী ২৮ আগস্ট পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়। এ সময় লিমন ও তার মা হেনোয়ারা বেগম এবং তার আইনজীবী নাসির উদ্দির কবির, নাসিমুল হাসান, মানিক আচার্য্য ও আক্কাস সিকদার উপস্থিত ছিলেন। কাউখালীর ভাড়া বাসা থেকে সকালে লিমন তার মায়ের সঙ্গে নকল পায়ে ভর করে আদালতে হাজির হন।

পিপি আবদুল মান্নান রসুল জানান, গত ৯ জুলাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় লিমনের বিরুদ্ধে দায়ের করা দুটি মামলা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়। গত ১৬ জুলাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত আদেশ ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের কাছে পৌঁছায়। ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তাকে (পাবলিক প্রসিকিউটরকে) অনুরোধ করেন। তিনি গত ২১ জুলাই সংশ্লিষ্ট আদালতে আবেদন করেন। আদালতে সোমবার (গতকাল) এ বিষয়ে শুনানির দিন ধার্য করেন। অপরদিকে অস্ত্র মামলা থেকে লিমনকে অব্যহতি দিলেও সন্ত্রাসী মোর্শেদ জমাদ্দারসহ অপর ৭ আসামির বিরুদ্ধে যথারীতি মামলার কার্যক্রম চলবে বলে পিপি আরও জানান। অপরদিকে ছয় র‌্যাব সদস্যের বিরুদ্ধে লিমনের মায়ের দায়ের করা লিমন হত্যাপ্রচেষ্টা মামলাটি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তার আইনজীবীরা।

মামলা থেকে অব্যাহতির প্রতিক্রিয়ায় লিমন সাংবাদিকদের বলেন, আমি নিরাপরাধ তাই ন্যায়বিচার পেয়েছি। তবে আমাকে চিরতরে পঙ্গু করা র‌্যাব সদস্যদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমি পুরোপুরি খুশি না। মামলা থেকে অব্যাহতির জন্য প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে লিমন ধন্যবাদ জানান।

২০১১ সালের ২৩ মার্চ ঝালকাঠির রাজাপুরের কলেজছাত্র লিমন হোসেন বাড়ির পাশে মাঠে গরু আনতে গেলে র‌্যাবের কথিত বন্ধুকযুদ্ধে আহত হয়। চিকিৎসকরা বাঁচাতে তার বা পা কেটে ফেলেন। এ ঘটনায় র‌্যাব লিমনের বিরুদ্ধে রাজাপুর থানায় দুটি মামলা দায়ের করে। একটি অস্ত্র আইনে, অপরটি সরকারি কাজে বাধাদান অভিযোগে।

শেয়ার করুন