যেকোন মুহূর্তে গ্রেফতার হতে পারেন এমপি রনি

0
60
Print Friendly, PDF & Email

সরকার দলীয় সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনি যেকোনো মুহূর্তে গ্রেপ্তার হতে পারেন। গোয়েন্দা সংস্থার একাধিক সূত্রে জানা গেছে, সাংসদ রনির গতিবিধির ওপর নজর রাখা হচ্ছে। যেন আদালতের নির্দেশের পর তাকে গ্রেপ্তার করা যায়।

জানা গেছে, ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের সাংবাদিক পেটানোর অভিযোগে করা মামলায় জামিন নিয়েছেন সাংসদ রনি। কিন্তু এ জামিন বাতিলের আবেদন করেছে বাদীপক্ষ। আজ নিম্ন আদালতে এ আবেদনের শুনানি হয়েছে।

বাদীপক্ষের অভিযোগ তদন্ত করে পুলিশ আদালতে যে প্রতিবেদন দিয়েছে, তাতে বলা হয়েছে সাংসদ গোলাম মাওলা রনির জামিন বাতিল না করলে মামলার তদন্ত কাজে বিঘ্ন ঘটবে। আদালত শুনানি শেষে এ বিষয়ে আদেশ অপেক্ষাধীন রেখেছে।

সরকারের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গোলাম মাওলা রনির জামিন আবেদনটি বাতিল হতে পারে। জামিন বাতিল হলে তাকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা দিতে পারে আদালত।

গোয়েন্দা সংস্থার একাধিক সূত্রে জানা গেছে, সাংসদ রনিকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে। আদালতের পরোয়ানার পর পরই যেন তাকে গ্রেপ্তার করা যায় সেজন্য তার গতিবিধির প্রতি নজর রাখা হচ্ছে।

তবে ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের মালিক ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর বেসরকারি খাত বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান-এফ রহমানের বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে সাংসদ রনি যে মামলা করেছেন তাতে সালমান এফ রহমানকে গ্রেপ্তার করা প্রয়োজন বলে মনে করেন সাংসদ রনির শুভাকাঙ্ক্ষিরা।

কারণ, রনি দাবি করছেন তার মামলার অভিযোগের পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে। যা তিনি আদালতে উপস্থাপন করবেন।

এদিকে সরকারের নীতি নির্ধারণী সূত্র গণমাধ্যমকে জানায়, সম্প্রতি পাঁচ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে হার, বিভিন্ন জায়গায় আওয়ামী লীগের অন্তর্দ্বন্দ্ব, হেফাজতসহ বিভিন্ন ইস্যুতে সরকার বেকায়দায় আছে। এ পরিস্থিতিতে সাংসদ রনির বিরুদ্ধে সাংবাদিক নিগ্রহের অভিযোগ সরকারকে নতুন করে বিব্রতকর পরিস্থিতি ফেলেছে।

কারণ, ওই ঘটনার ভিডিও ফুটেজ গণমাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে। যা থেকে প্রতিপক্ষ প্রমাণ করতে চাইছে রনি দোষী। তাছাড়া সাগর-রুনির হত্যাকা- নিয়েও সাংবাদিক সমাজ সরকারের ওপর নাখোশ। এ পরিস্থিতিতে রনির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে সাংবাদিক সমাজকে শান্ত করার কথা ভাবছে সরকার।

এ মতের পক্ষে সরকারের একাধিক মন্ত্রী ও দলের নেতাও রয়েছে। যারা বিভিন্ন সময় গোলাম মাওলা রনির কথা ও লেখার মাধ্যমে আক্রান্ত হয়েছেন। সরকারের মধ্যে এ পক্ষ চাইছে, এই সুযোগে সাংসদ রনিকে একহাত নেয়া উচিত।

তবে রনির শুভাকাঙ্ক্ষীরা মনে করেন, সাংসদ রনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলার তাকে ঘিরে অনেকদিন থেকেই ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। যে করেই হোক তাকে শায়েস্তা করার অপচেষ্টা চলছে। কিন্তু কোনো চক্রান্তই কাজে আসবে না। রনি যে নির্দোষ এটা আদালতেই প্রমাণ হবে।

শেয়ার করুন