নির্বাচিত মেয়রদের দায়িত্ব হস্তান্তরের দাবি বিএনপির

0
123
Print Friendly, PDF & Email

চার সিটি কর্পোরেশনের জনপ্রতিনিধি হিসাবে শপথ নেয়া মেয়র ও কাউন্সিলরদের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তরের দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

সোমবার সকালে চার সিটি মেয়রকে নিয়ে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা জানানোর পর দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ এ দাবি জানান।

তিনি বলেন,  “আমরা খুশি হয়েছি, বিলম্বে হলেও চার সিটি মেয়রকে প্রধানমন্ত্রী শপথ পড়িয়েছেন। শুনেছি, মেয়াদ পূর্ণ  হওয়া পর্যন্ত নির্বাচিত মেয়রদের দায়িত্ব পেতে অপেক্ষা করতে হবে। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি, অবিলম্বে শপথ নেয়া মেয়রসহ নির্বাচিত পরিষদকে দায়িত্ব হস্তান্তর করা  হোক।”

আগের দিন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে চার সিটি মেয়রকে শপথ পাঠ পড়ান। নির্বাচিত কাউন্সিলরদের শপথ পড়ান স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

গত ১৫ জুন রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১৮ দলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থীরা মেয়র নির্বাচিত হন।

সকালে রাজশাহীর মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, খুলনার মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, বরিশালের মেয়র আহসান হাবিব কামাল ও সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে নিয়ে মওদুদ শেরেবাংলা নগরে জিয়াউর রহমানের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, যুগ্ম মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু, রুহুল কবির রিজভী, মহানগর সদস্য সচিব আবদুস সালামসহ শতাধিক নেতাকর্মী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মওদুদ আহমদ বলেন, “চার সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের ভরাডুবিতে প্রমাণ হয়েছে, দেশের মানুষের এই সরকারের প্রতি কোনো আস্থা নেই। তারা এই সরকারের পরিবর্তন চায়। চার সিটির মানুষ সরকারের দুর্নীতি, অপশাসন ও বিরোধী দলের ওপর নির্যাতন ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছে।”

সিটি নির্বাচনে জনগণ দলীয় সরকার নয়, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে পক্ষে রায় দিয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

নির্বাচনে বিরোধীদলীয় জোট সমর্থিতরা জয়ী হলেও মওদুদ বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের প্রতি তাদের আস্থা নেই।

চার সিটিতে দুর্নীতিগ্রস্তরা নির্বাচিত হয়েছে- প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে বক্তব্যে দুঃখ প্রকাশ করে রাজশাহীর মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, “এর মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত মেয়র ও জনগণকে অপমান করেছেন। শপথগ্রহণের মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সঠিক ছিল না।”

সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শপথ  পড়ানোর মাধ্যমে প্রমাণ করেছেন, তিনি আমাদের সম্পর্কে যা কিছু বলেছেন, তা সঠিক বলেননি। আমি মনে করি, তিনি তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিয়ে আমাদের শপথ করিয়েছেন ।”

অবিলম্বে নির্বাচিত পরিষদের দায়িত্ব হস্তান্তরের দাবি জানিয়ে খুলনার মেয়র মনিরুজ্জামান মনি বলেন,  “নাগরিক সেবা নিশ্চিত করার স্বার্থে সরকারের আর কালক্ষেপণ করা উচিৎ নয় বলে আমি মনে করি।”

বরিশালের মেয়র আহসান হাবিব কামাল বলেন, “আমরা নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে দুর্নীতিমুক্ত সেবার মাধ্যমে দায়িত্ব পালন করে বিএনপির ভাবমূর্তি উজ্জল করবো।”

শেয়ার করুন