এবার পুলিশ পেটাল গণজাগরণ মঞ্চ

0
105
Print Friendly, PDF & Email

এবার পুলিশ পেটাল গণজাগরণ মঞ্চ। গতকাল গোলাম আযমের রায়ের পর পরই গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। ফাঁসির দাবিতে তারা বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ আন্দোলনকারীরা দুটি বাসের কাচ ভাঙচুর করেন। এ সময় পুলিশ বাধা দিলে তারা পুলিশের ওপর চড়াও হন। এক পর্যায়ে একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে পিটিয়ে আহত করেন তারা। এ সময় লাঞ্ছনার শিকার হন পুলিশের সহকারী কমিশনার স্নিগ্ধ। কিন্তু পরে তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা গোলাম আযমের ৯০ বছরের দণ্ডাদেশের রায়ের পর আবারও অবস্থান কর্মসূচি দিয়েছেন মঞ্চের নেতা-কর্মীরা। তারা গতকাল দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। এদিকে রায় প্রত্যাখ্যান করে মঞ্চের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবিতে আজ সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছেন। এ হরতালে সমর্থন জানিয়েছেন প্রগতিশীল ১০টি ছাত্র সংগঠন।

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেন, পুরো জাতি আশা করেছিল একাত্তরের গণহত্যার নায়ক, ঘাতক গোলাম আযমের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে। কিন্তু ঘোষিত রায় মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের প্রতিটি মানুষকে মর্মাহত করেছে। আমরা এ রায় প্রত্যাখ্যান করছি। এদিকে অবস্থান চলাকালে শাহবাগে বিকাল সাড়ে ৩টায় একটি ককটেল বিস্ফোরণ হয়। পুলিশ আরেকটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করে। পরে সন্ধ্যায় আজকের হরতালের সমর্থনে মশাল মিছিল বের করা হয়। গণজাগরণ মঞ্চের পাশাপাশি হরতাল আহ্বানকারী ছাত্র সংগঠনগুলো হলো_ বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রী, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট (খালেকুজ্জামান), ছাত্রফ্রন্ট (মবিনুল হায়দার), জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্র আন্দোলন, ছাত্র সমিতি, বিপ্লবী ছাত্র সংহতি, ছাত্র ঐক্য ফোরাম, বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী ও ছাত্র ফেডারেশন।

শেয়ার করুন