ইন্দোনেশিয়ায় ২০০ কয়েদির পলায়ন, মৃত ৫

0
91
Print Friendly, PDF & Email

ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপের মেদান শহরের তানজুং গুসতা কারাগার থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ২০০ জন কয়েদি পালিয়ে গেছে। বিদ্যুত্ ও পানি-সংকটের জের ধরে কারাগারে সহিংস দাঙ্গার ঘটনার একপর্যায়ে কয়েদিরা পালিয়ে যায়। কয়েদিদের লাগানো আগুনে পুড়ে মারা গেছে পাঁচজন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিবিসির অনলাইন ও রয়টার্সের খবরে এ কথা জানানো হয়। দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, বিদ্যুত্-সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় ওই কারাগারে পাম্পের মাধ্যমে পানি তোলা যাচ্ছিল না। এতে সেখানে তীব্র পানি-সংকট দেখা দেয়। উত্তর সুমাত্রার প্রাদেশিক পুলিশের মুখপাত্র হেরু প্রাকোসো জানান, বিদ্যুত্ ও পানি-সংকটের কারণে গতকাল কয়েদিরা খুব উত্তেজিত হয়ে পড়ে। কারাগারের কর্মকর্তারা জানান, ক্ষুব্ধ কয়েদিরা গতকাল জেলখানার বিভিন্ন স্থাপনায় আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় পুরো জেলে দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ে। অনেকে জেলরক্ষীদের লক্ষ্য করে বোতল ছুড়ে মারে। একপর্যায়ে তারা কারাগারের আগ্নেয়াস্ত্রও ছিনিয়ে নেয়। জেলখানার এক কর্মকর্তা জানান, কয়েদিদের লাগানো আগুন জেলখানায় ছড়িয়ে পড়লে এতে পাঁচজন মারা যায়। এদের মধ্যে দুজন কয়েদি রয়েছে। আগুন ছড়িয়ে পড়ায় কয়েদিদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। মূলত এর পরই ওই কয়েদিরা পালিয়ে যায়। ওই জেলের ১৫ জন কর্মকর্তাকে জিম্মি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

কয়েদিদের খুঁজতে কারাগারের আশপাশের এলাকা ঘিরে রেখেছে পুলিশ। কয়েক শ পুলিশ ও সেনা পলাতক কয়েদিদের গ্রেপ্তারে কাজ করছে। পলাতকদের মধ্যে অনেকে সন্ত্রাসী কাজে জড়িত থাকার দায়ে দণ্ডিত।

তানজুং গুসতা কারাগারে ৪০০ কয়েদি রাখার ধারণক্ষমতা থাকলেও সেখানে প্রায় আড়াই হাজার কয়েদি রাখা হয়েছে। মাত্রাতিরিক্ত কয়েদি রাখার কারণে কারাগারে প্রায়ই পানি ও বিদ্যুত্-সংকট দেখা দেয়।

শেয়ার করুন