সঞ্জয়ের জন্য ভালোবাসা

0
70
Print Friendly, PDF & Email

বলিউডের অভিনেতা সঞ্জয় দত্তের বাড়িতে আছেন ৩২ কর্মচারী। অস্ত্র মামলায় সাজা খাটতে কারাগারে যাওয়ার আগে সঞ্জয়ের সেবায় ২৪ ঘণ্টা নিয়োজিত ছিলেন তাঁরা। বাড়ি থেকে মাসে মাত্র চার হাজার ভারতীয় রুপি হাতখরচা পাচ্ছেন সঞ্জয়। সামান্য এ অর্থে মনিবের মাস চলার কথা জানার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন সঞ্জয়ের কর্মচারীরা।
সঞ্জয়ের হাতখরচার জন্য মাসে চার হাজার রুপির বেশি পাঠানোর অনুমতি দেয়নি ইয়েরাওয়ারা জেল কর্তৃপক্ষ। প্রতি মাসে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে জেল কর্তৃপক্ষের কাছে চার হাজার রুপি মানি অর্ডার করেন সঞ্জয়ের স্ত্রী মান্যতা। মানি অর্ডার পাওয়ার পর সঞ্জয়কে কুপন সরবরাহ করে জেল কর্তৃপক্ষ। কুপন ব্যবহার করে চিঠির খাম, টিকিট, সাবান, টুথব্রাশসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী কেনেন ৫৩ বছর বয়সী এই তারকা অভিনেতা। জানিয়েছে ‘জিনিউজ’।
ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, একদিন দুপুরের খাবারের জন্য বান্দ্রার ফ্ল্যাটে সন্তানদের সঙ্গে অপেক্ষা করছিলেন মান্যতা। কিন্তু অনেক সময় পেরিয়ে গেলেও খাবার টেবিলে কোনো খাবার না পেয়ে তিনি হেঁশেলে উঁকি দেন। খাবার পরিবেশনে দেরির কারণ খুঁজতে গিয়ে তিনি এক অভূতপূর্ব দৃশ্য দেখতে পান। তিনি দেখেন, সব কর্মচারী পাশাপাশি বসে কানাকানি করছেন। তাঁদের কেউ কেউ আবার কাঁদছেন।

এ অবস্থায় মান্যতা জানতে চান কেন তাঁরা এমন অদ্ভুত আচরণ করছেন। তখন তাঁকে বলা হয়, মাত্র চার হাজার রুপিতে মনিবের মাস চলতে কতটা কষ্ট হচ্ছে তা উপলব্ধি করে তাঁদের খুব কষ্ট হচ্ছে। তাঁরা বিশ্বাসই করতে পারছেন না, তাঁদের প্রত্যেকের বেতনেরও কম টাকায় মাস চলতে হচ্ছে সঞ্জয় দত্তকে। তখন মান্যতা তাঁদের বুঝিয়ে বলেন, চার হাজার রুপিতে মাস চলতে সঞ্জয়ের খুব বেশি সমস্যা হচ্ছে না। এটা জানার পর যাঁর যাঁর কাজে ফিরে যান তাঁরা।

সঞ্জয়ের উদারতার জন্যই তাঁর প্রতি কর্মচারীদের ভেতর এই গভীর মমত্ববোধের জন্ম হয়েছে। কর্মচারীদের সঙ্গে দারুণ হূদ্যপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে সঞ্জয়ের। ভালো আচরণের পাশাপাশি মাঝেমধ্যেই মনিবের কাছ থেকে বাড়তি অর্থ পান তাঁরা। গত বছর সঞ্জয় অভিনীত ‘অগ্নিপথ’ ছবিটি দারুণ ব্যবসা করে। ছবিটির ঝুলিতে জমা পড়ে প্রায় ২০০ কোটি রুপি। এই খুশিতে সঞ্জয় তাঁর ৩২ কর্মচারীর প্রত্যেককে ২৫ হাজার রুপি বখশিশ দিয়েছিলেন। শুধু বাড়ির কর্মচারীদেরই নয়, বিভিন্ন উপলক্ষকে কেন্দ্র করে প্রায়ই ছবির দলের সদস্যদেরও তিনি চার থেকে পাঁচ হাজার রুপি বখশিশ দিয়ে থাকেন।

১৯৯৩ সালে মুম্বাইয়ের ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগ থেকে শুরু করে বাড়িতে অবৈধ অস্ত্র রাখার মতো গুরুতর অপরাধে জড়িয়ে ব্যাপক আলোচিত ও সমালোচিত হয়েছেন ‘খলনায়ক’ তারকা সঞ্জয়। বাড়িতে অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে ২০ বছর আগের এক মামলায় গত ২১ মার্চ সঞ্জয়কে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। এ মামলায় আগে দেড় বছর সাজা খাটায় তাঁকে আর সাড়ে তিন বছর জেলের চার দেয়ালে বন্দী থাকতে হবে।

আদালতের বেঁধে দেওয়া সময়সীমা অনুযায়ী গত ১৬ মে আত্মসমর্পণ করেন ‘মুন্নাভাই’ তারকা সঞ্জয়। প্রথমে তাঁকে মুম্বাইয়ের আর্থার রোড কারাগারে রাখা হয়েছিল। পরে সেখান থেকে পুনের ইয়েরাওয়ারা কারাগারে স্থানান্তরিত হন তিনি। এখন সেখানেই আছেন সঞ্জয়। কারাগারের ভেতর কাগজের ফাইল তৈরির কাজ পেয়েছেন এ তারকা অভিনেতা। প্রতিদিন তাঁর মজুরি হচ্ছে মাত্র ২৫ ভারতীয় রুপি।

শেয়ার করুন