কম্পিউটার না জানলে চাকরি হবে না

0
76
Print Friendly, PDF & Email

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ই-বাণিজ্য মেলা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে সহায়ক। এই মেলার মাধ্যমে দর্শনার্থীরা ঘরে বসেই কেনাকাটাসহ যাবতীয় সেবা কিভাবে পাবে সেটি জানতে পারছে। তাই ই-বাণিজ্যকে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌছে দেওয়া হবে। তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, প্রসার বাড়াতে সরকার নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছে। সাধারণের কাছে কম্পিউটার পৌছে দেওয়া, বাংলাতে ই-কনটেন্ট তৈরি করা, ই-বুক প্রকাশসহ নানা পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হচ্ছে। সরকার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে কম্পিউটার শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করেছে। ফলে শিক্ষার্থীদেরকে কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের ব্যবহার অবশ্যই জানতে হবে। তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রযাত্রায় কম্পিউটার না জানলে আগামীতে চাকরি হবে না।

তথ্যমন্ত্রী আজ (শনিবার) চট্রগ্রামে অনুষ্ঠিত ঈদ ই-বাণিজ্য মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। কমপিউটার জগৎ এর উদ্যোগে ঢাকা ও সিলেটে ই-বাণিজ্য মেলা সফলভাবে সম্পন্ন করার পর গত বৃহষ্পতিবার থেকে  এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়। ‘ঘরে বসে কেনাকাটার উৎসব’ শ্লোগান নিয়ে এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেশিয়ামে অনুষ্ঠিত এ মেলার আয়োজন করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় ও চট্রগ্রাম জেলা প্রশাসন। সহযোগিতা করেছে মাসিক ‘কমপিউটার জগৎ’।

চট্রগ্রাম জেলা প্রশাসক মো: আবদুল মান্নান এর সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন চট্রগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস, এস আলম গ্রুপের এজিএম কামরুল ইসলাম ও চট্রগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ।

সমাপনী অনুষ্ঠানে মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে ক্রেস্ট ও সনদপত্র প্রদান করা হয়। পরে চট্রগ্রাম জেলা একাডেমির আয়োজনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

তিনদিনব্যাপি এই মেলায় ই-কমার্সের সঙ্গে জড়িত দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য ও সেবা সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরে। মেলায় মোট ৫২টি স্টলে ৫১টি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করে। মেলা উপলক্ষে পণ্য ও সেবা ক্রেতাদের জন্য বিশেষ সুযোগ যেমন ছিল, তেমনি এ বিষয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতে বিভিন্ন ধরণের আয়োজন ছিল। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের পন্য ক্রয়ে ছাড় ও উপহারের ঘোষনা দিয়েছে।

মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- চট্রগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, কমপিউটার জগৎ, আপনজন ডট কম, ইজি বাই ৬৯ ডট কম, বেচা বিক্রি ডট কম, বাঁশখালী ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র, পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, ড্রেজম আইটি, উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি, চট্টগ্রাম, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড, রয়েক্স ডট নেট, রেডিও টুডে, সিসিএল, দৈনিক আজাদী, সময় টিভি, ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক লিমিটেড, আরব বাংলাদেশ ব্যাংক লিমিটেড, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, হাটহাজারী ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র, সীতাকুন্ড ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র, জনতা ব্যাংক লিমিটেড, এক্সিম ব্যাংক লিমিটেড, আনোয়ারা ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র, সীতাকুন্ড ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, তথ্য ও নিরাপত্তা বিষয়ক অফিস, সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি, চুয়েট, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, পটিয়া ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র, ন্যাশনাল ক্রেডিট এন্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেড, ডাটা সফট্, বিটিসিএল, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, মিরসরাই ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র, সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, বোয়ালখালী ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র, বিএসআরএম, ইট এনজয়, প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড ও ফার্স্ট এনড ফাষ্ট আইটি লিমিটেড।

আয়োজকরা জানান, ঈদ ই-বাণিজ্য মেলার স্পন্সর হিসেবে ছিল এস আলম গ্রুপ। মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিল রেডিও টুডে, সময় টেলিভিশন, সিসিএল ও দৈনিক আজাদী। এছাড়া নেটওয়ার্কিং পার্টনার হিসেবে চট্রগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নলেজ পার্টনার হিসেবে সার্দান ইউনিভার্সিটি, কমিউনিকেশন পার্টনার আপনজন ডটকম, ব্লগ পার্টনার হিসেবে সামহোয়্যার ইন ব্লগ এবং ইন্টারনেট পার্টনার হিসেবে ছিল এফএনএফ।

এবারের মেলাকে সহজে তরুণ প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য সামাজিক যোগাযোগের সাইট ফেসবুকের মাধ্যমে মেলার বিভিন্ন আপডেট প্রকাশ করা হয়। আপডেট পেতে িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/ঊঈড়সসবৎপবঋধরৎ ঠিকানার পেজ লাইক করতে হবে। এ ছাড়া মেলার অফিসিয়াল ওয়েবসাইট িি.িব-পড়সসবৎপবভধরৎ.পড়স থেকেও জানা যাবে প্রয়োজনীয় তথ্য। তিন দিনব্যাপী এ মেলার অনুষ্ঠানাদি িি.িপড়সলধমধঃ.পড়স ওয়েবসাইটে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

শেয়ার করুন