জাতীয় পার্টির সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক মধুর: হানিফ

0
56
Print Friendly, PDF & Email

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাদের গোপন বৈঠক প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ সোমবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে তাঁর নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন হানিফ।
গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থীকে জাতীয় পার্টির সমর্থনের বিষয়ে মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘এটা একটা স্থানীয় নির্বাচন। কারোর সমর্থন এতে প্রভাব ফেলবে না। দয়া করে এতে জাতীয় নির্বাচনের উত্তাপ ছড়াবেন না।’
জাহাঙ্গীরকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য করে আওয়ামী লীগ কি নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করল না? এমন প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, ‘জাহাঙ্গীর আমাদের ছেলে। হঠাত্ করে তাঁর জন্য কেন বিএনপির এতো মায়াকান্না বুঝতে পারলাম না। তিনি (জাহাঙ্গীর) প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাননি, গিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর কাছে। বরিশাল সিটি নির্বাচনের সময় তো এবাদুর রহমান চান হেলিকপ্টারে চড়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন। তখন নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়নি? আওয়ামী লীগ করলেই দোষ?’ গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়নি বলেও মন্তব্য করেন হানিফ।
গ্রামীণ ব্যাংক ও ইউনূসকে নিয়ে সরকারের অবস্থানের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বলেন, ‘তিনি (ইউনূস) নোবেল বিজয়ী একজন সম্মানিত ব্যক্তি। তাঁর সঙ্গে অর্থ মন্ত্রণালয়ের একটু ভুল-বোঝাবুঝি হয়েছে। তবে এটা নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে। আমি ইউনূস সাহেবের প্রতি আহ্বান জানাব, তিনি যেন কখনো রাজনীতির বেড়াজালে নিজেকে না জড়ান।’
চুরি-দুর্নীতি না করলে তত্ত্বাবধায়ক এলেও জেলে যেতে হবে না—বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন মন্তব্যের বিষয়ে হানিফ বলেন, ‘তাঁর এই বক্তব্যে প্রমাণিত হয়, তাঁর নেত্রী খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, আরাফাত রহমান চুরি করার দায়ে ২০০৭ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে জেলে গিয়েছিলেন। আপনাকে এ দায় স্বীকার করে নিতে হবে। তা না হলে এ ধরনের বিভ্রান্তিমূলক কথা বলে জাতিকে বিভ্রান্ত করবেন না।’

শেয়ার করুন