বিএনপির তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি অগণতান্ত্রিক : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0
418
Print Friendly, PDF & Email

হবিগঞ্জের মাধবপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেছেন, বিএনপি’র তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি অগণতান্ত্রিক। এ সরকারের আমলে প্রত্যেকটি নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবৈধ কোন হস্তক্ষেপ করেনি। তিনি রোববার বেলা ১২টায় হবিগঞ্জের মাধবপুর থানার নব নির্মিত ভবনের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ-৩ (হবিগঞ্জ সদর-লাখাই) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবু জাহির, হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খান, অতিরিক্ত মহা-পুলিশ পরিদর্শক (এডিশনাল আইজি) এ কে এম শহীদুল হক, সিলেটের বিভাগীয় পুলিশ পরিদর্শক (ডিআইজি) মকবুল হোসেন ভূঁইয়া, জেলা প্রশাসক মনীন্দ্র কিশোর মজুমদার, পুলিশ সুপার কামরুল আমীন ও মাধবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান জাকির হোসেন চৌধুরী অসীম।তিনি আরও বলেন- বিগত ৪ দলীয় জোট সরকার অগণতান্ত্রিকভাবে মাগুড়া মার্কা নির্বাচন করেছে। বর্তমান সরকার গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সুষ্ঠ নির্বাচন করেছে। এর প্রমাণ গত ৪টি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। ১৮ দলের সঙ্গে জাপা চেয়ারম্যানের যোগাযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিগত নির্বাচনের আগেও এরশাদের কাছে আমরা যাইনি। এরশাদই এগিয়ে এসেছিলেন।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বি জাহাঙ্গীর নিখোঁজের বিষয়ের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন- গাজীপুরে বর্তমানে উৎসবের আমেজে নির্বাচনী প্রচারণা চলছে। প্রার্থী নিখোঁজের বিষয়টি নির্বাচন কমিশন দেখবে বলে তিনি প্রশ্নটি এড়িয়ে যান। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থানা প্রাঙ্গণে এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন। প্রসঙ্গত, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১০ সালে ১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে জাইকার অর্থায়নে গণপূর্ত অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়িত দোতলা এ ভবনটির নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী এনামূল হক মোস্তাফা শহীদ। পরে সুধী সমাবেশে স্বরাষ্টমন্ত্রী আরো বলেন, আপনারা সকলে সমবেত হয়ে পুলিশকে সহযোগিতা করুন যাতে পুলিশ আইন শৃঙ্খলা উন্নয়নের সুফল আপনাদের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দিতে পারে। ভবনটি এ থানার মূল ভবন। এই ভবনের সাথে উপযুক্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বাসভবন, পুলিশদের থাকার ব্যারাক ও  অফিস কক্ষও নির্মাণ করা হবে। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক সম্প্রতি একটি প্রেিতবদন দিয়েছে। এই প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন বাংলাদেশ ৩টি বিষয়ে অভাবনীয় উন্নতি করেছে। যা বিশ্বের অন্য কোনো দেশ করতে পারেনি। দারিদ্র, শিক্ষা ও নারী কর্মসংস্থানের কথা উল্লেখ করে বিশ্বব্যাংক এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। দারিদ্র- বর্তমানে বাংলাদেশে শতকরা ২২ জনেরও কম লোক দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করে। এরআগে এ হার ছিল ৩০/৩৫ জন। বর্তমানে একজন শ্রমিক প্রতিদিন ৪ থেকে ৫শ টাকা রোজি করে। যা অতীতে কখনো হয়নি। শিক্ষা- বাংলাদেশে শিক্ষার হার যেভাবে বেড়েছে গত ৪ বছরে অন্য কোনো দেশে তা হয়নি। ৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক ঘোষনায় ৩৫ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জাতীয়করণ করে শিক্ষার দ্বার খুলে দিয়েছিলেন। বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাবার পথ অনুসরণ করে আরো ২৩ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে সরকারীকরণ করেছেণ। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রথম থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত জানুয়ারীর ১ম সপ্তাহে ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে বই পৌঁছে দিচ্ছেন এবং গরীব ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তির মাধ্যমে আর্থিক সহযোগিতা করা হচ্ছে। কর্মসংস্থান- মহিলাদের কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ৪ বছরে যত কর্মসংস্থান হয়েছে এর মধ্যে শতকরা ৪০ জন নারী। বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ ধান, গম, ভূট্টাসহ অন্যান্য কৃষিপণ্য উৎপাদন এ সরকার রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশে মাথা পিছু আয় দাড়িঁয়েছে ৯শ ডলারেরও বেশি। যা এ সরকারের আমলেই সম্ভব হয়েছে। আমরা হতদরিদ্র মানুষের কথা চিন্তা করে কমিউনিটি হেল্থ সেন্টার করেছি। যাতে প্রতিটি মানুষ এ থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিতে পারে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ জনগণের দল। এ দলের কোনো নেতাকর্মী জনগণের অর্থ সম্পদ লোট করে বিদেশে পাচার করেনি। যা গত সরকারের  আমলে হয়েছে। কিছু কিছু লোক বলে আওয়ামীলীগ ৪টি সিটিতে নির্বাচনে হেরে গেছে। আমরা এর জবাব দেই এই হারের মাঝে গণতন্ত্রের জয় হয়েছে। তিনি বিরোধীদলীয় নেতৃকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি পরিত্যাগ করে নির্বাচনে আসার আহ্বান জানান।

সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য এডঃ আবু জাহির, এডৎ মজিদ কান, ভারপ্রাপ্ত আইজি একেএম শহীদুল হক, পিপিএম, বিপিএম, ডিআইজি সিলেট মকবুল হোসেন ভূঁইয়া, সিলেটের মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝি, জেলা প্রশাসক মনীন্দ্র কিশোর মজুমদার, উপজেলা চেয়ারম্যান জাকির হোসেন চৌধুলী অসীম, অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন ভাইচ চেয়ারম্যান শ্রীধাম দাস গুপ্ত, পৌর মেয়র হীরেন্দ্র লাল সাহা, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুকোমল রায়, সভার সভাপতি পুলিশ সুপার কামরুল আমীন স্বাগত বক্তব্য রাখেন। সভাটি পরিচালনা করেন সহকারী পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান। এছাড়াও সভায় সিলেট বিভাগের পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন