রোজার আগেই ছোলার দাম বাড়ল

0
106
Print Friendly, PDF & Email

রমজান মাস শুরু হতে এখনো প্রায় ২৫ দিন বাকি। তবে প্রতিবছরের মতো এবারও রোজা শুরু হওয়ার আগেই ছোলার দাম বাড়িয়েছেন খুচরা বিক্রেতারা। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি ছোলায় পাঁচ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে।
এদিকে বিভিন্ন ধরনের সবজির দাম দুই থেকে পাঁচ টাকা, ব্রয়লার মুরগি কেজিতে ১০ টাকা ও খোলা সয়াবিন তেল লিটারপ্রতি দুই টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। রাজধানীর নারিন্দা ও কারওয়ান বাজার ঘুরে গতকাল শুক্রবার এ চিত্র দেখা গেছে।
ছোলার দাম বাড়ার কারণ জানতে যোগাযোগ করলে বাংলাদেশ ডাল ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সভাপতি শফি মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, ছোলার দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই। পাইকারি বাজার স্থিতিশীল আছে। ছোলা আমদানি করে বেশি দিন গুদামে রাখা যায় না, পোকা ধরে যায়। বৃষ্টি শুরু হওয়ায় পাইকাররা বরং কম দামে ছোলা বিক্রি করে দিচ্ছেন।
শফি মাহমুদ আরও বলেন, ‘রমজানে যে ছোলা আমরা খাই, সেটি এখনো আমদানি হয়ে আসেনি। আসলে বোঝা যাবে দাম বাড়বে, না কমবে।’ বর্তমানে যে ছোলা খুচরা বাজারে ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, তা পাইকারি বাজারে ৫৫ থেকে ৫৯ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।
গতকাল কারওয়ান বাজারে দেশি ও বিদেশি পেঁয়াজ কেজিপ্রতি যথাক্রমে ৩৫ ও ৩০ টাকা, আলু মানভেদে ১২ থেকে ১৫, মরিচ ৪০, পটোল ২০, গোল বেগুন ২০ থেকে ৪০, বরবটি ৩০, শসা ২০, চিচিঙ্গা ২০, ঢ্যাঁড়স ৩০, কচুর লতি ২৫ থেকে ৩০ টাকা, ছোট আকারের মিষ্টিকুমড়া ২০ থেকে ৩০, ঝিঙা ও করলা ৩০, পেঁপে ২০, কাঁচকলার হালি ১০, দেশি-বিদেশি রসুন ৮০, চায়না আদা ৮০ ও ভারতীয় আদা ১২০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।
এর মধ্যে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিপ্রতি পেঁয়াজে দাম বেড়েছে দুই থেকে চার টাকা, আলুতে দুই, শসায় পাঁচ থেকে আট ও করলায় দুই থেকে চার টাকা পর্যন্ত। অন্যদিকে গত সপ্তাহের চেয়ে গতকাল ১০ টাকা বেশি দরে ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৬০ টাকায় বিক্রি হয়। এ ছাড়া পাকিস্তানি মুরগি প্রতি কেজি ১৬০, মাঝারি আকারের দেশি মুরগি প্রতিটি ২২০ থেকে ২৮০, গরু ২৮০ ও খাসি ৪৫০ টাকা দর হাঁকেন বিক্রেতারা। এ ছাড়া ফার্মের ডিমের হালি ৩০ থেকে ৩২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
সবজির দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে কারওয়ান বাজার কাঁচামাল আড়ত ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান বলেন, গত মাসের ঘূর্ণিঝড় মহাসেন ও তার আগে-পরে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়েছে। এতে দেশের অধিকাংশ এলাকার শাকসবজির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ জন্য সবজির দাম এখন একটু বাড়তির দিকেই আছে।
আবদুল মান্নান আরও বলেন, আগামী মাসেই রমজান। তখন চাহিদা বাড়বে। আবার নতুন সবজি উঠতে কমপক্ষে ৯০ দিন লাগবে। ফলে আগামী দুই মাস শাকসবজির দাম কিছুটা বাড়তি থাকবে বলেই মনে করেছেন তিনি।
সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, চাল, আটা ও বিভিন্ন ধরনের ডালের দাম অপরিবর্তিত আছে। তবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচাবাজারে চিনি কেজিতে দুই টাকা, খোলা সয়াবিন ও পাম তেলের লিটারপ্রতি এক থেকে দুই টাকা বেড়েছে।

শেয়ার করুন