সচিবালয়ে বিস্ফোরণ মামলার চার্জ শুনানি ১৭ জুলাই

0
88
Print Friendly, PDF & Email

সচিবালয়ে ককটেল বিস্ফোরণ মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১৮ দলীয় জোটের ২৯ নেতার বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের শুনানির জন্য আগামী ১৭ জুলাই দিন ধার্য করেছেন আদালত। 

রোববার এ মামলার চার্জ শুনানির দিন ধার্য ছিল। কিন্তু সংসদ অধিবেশন চলায় এ মামলার আসামি ৭ সংসদ সদস্যের পক্ষে সময়ের আবেদন করা হয়। 

শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. জহুরুল হক সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে চার্জ শুনানির জন্য ওইদিন ধার্য করেন এবং মামলাটি পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতে বদলির নির্দেশ দেন। 

এ সময় আদালতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর হাজির ছিলেন। 

উল্লেখ্য, গত বছরের ৩১ মে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি’র পরিদর্শক তপন চন্দ্র সাহা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১৮ দলীয় জোটের নেতাদের নামে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

প্রসঙ্গত, বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর মুক্তির দাবিতে বিএনপিসহ ১৮ দলীয় জোটের ডাকা হরতালের আগে আসামিরা পারস্পারিক সহযোগিতা, ষড়যন্ত্র, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ নির্দেশ, প্ররোচনা, উস্কানি, আর্থিক সহযোগিতা ও বিস্ফোরক দ্রব্যাদি সংগ্রহে সহযোগিতায় জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টির অভিযোগে এ মামলা করা হয়েছিল। 

উল্লেখ্য, গত ২৯ এপ্রিল বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ডাকা হরতাল চলাকালে সচিবালয়ের ভেতর ও বাইরে দুটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় শাহবাগ থানায় মামলা দায়ের করা হয়।  

মামলার চার্জশিটভুক্ত ২৯ আসামিরা হলেন-  বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ও বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী, ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আব্দুস সালাম, ছাত্রদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিবুন-উন-নবী খান সোহেল, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নীরব, সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, যুবদল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ।

এছাড়াও আসামি করা হয়েছে- দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, সংসদ সদস্য ও ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এমপি, সৈয়দা আশিফা আশরাফী পাপিয়া এমপি, শাম্মী আক্তার শিফা এমপি, বেগম রেহানা আক্তার রানু এমপি, নীলুফার চৌধুরী মনি এমপি, বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ, এলডিপি চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক আবদুল মতিন, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, যুবদলের সহ-দফতর সম্পাদক কামররুজ্জামান দুলাল, বিএনপির সাবেক নির্বাহী কমিটির সদস্য কামরুজ্জামান রতন, মোরতাজুল করিম বাদরু, রেহানা আক্তার ডলি ওরফে রেহানা ইয়াসমিন ডলি ও মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া ওরফে বাদল।

 আসামিপক্ষে আদালতে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া। 

শেয়ার করুন