নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী: প্রধানমন্ত্রী

0
85
Print Friendly, PDF & Email

‘নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। অন্যান্য গণতান্ত্রিক দেশে যে পদ্ধতিতে নির্বাচন হয়, এখানেও সেভাবেই হবে।’
আওয়ামী লীগের ফরিদপুর জেলার তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সরকারপদ্ধতি সম্পর্কে আগের মতো একই ঘোষণা দিলেন।
গতকাল শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। ফরিদপুরের বিভক্ত আওয়ামী লীগের উভয় অংশ সভায় যোগ দেয়। প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রীর সমর্থিত অংশ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জায়নুল আবেদীনের নেতৃত্বে এবং মন্ত্রীবিরোধী অংশ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেনের নেতৃত্বে ঢাকায় আসে।
জায়নুল আবেদীন প্রথম আলোকে বলেন, তৃণমূল আওয়ামী লীগের এ মতবিনিময় সভায় জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সৈয়দ মাসুদ হোসেন ও কোতোয়ালি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অমিতাভ বোস স্বীকৃতি পেয়েছেন।
গতকালের এ মতবিনিময় অনুষ্ঠানে গণভবনের মিলনায়তন ছিল কানায় কানায় পূর্ণ। বাইরেও অনেক নেতা-কর্মী বসে বক্তৃতা শুনেছেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁদের সবাইকে গণভবনে স্বাগত জানিয়ে বলেন, দলকে শক্তিশালী করতে হবে। সরকার কৃষি, খাদ্য, বিদ্যুৎ, দুস্থ ও প্রতিবন্ধীদের উন্নয়ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়াসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে জনকল্যাণমূলক যেসব কাজ করেছে, তা জনগণের কাছে তুলে ধরতে হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, তৃণমূলের নেতা-কর্মীরাই হচ্ছে দলের ভিত্তি। এই ভিত্তি শক্ত হলে দল ও সরকারও শক্তিশালী থাকবে। তিনি বলেন, জাতীয় সংসদের ফরিদপুর সদর আসনটি ১৯৭৩ সালের পর ২০০৮ সালেই আওয়ামী লীগ প্রথম পেয়েছে। আগামী নির্বাচনে যেন সেটি হারাতে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। মানুষকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের আমলটা মনে করিয়ে দিতে হবে।
মন্ত্রী-সাংসদদের প্রতি তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যকার দূরত্ব কমিয়ে আনার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দলের মধ্যে গ্রুপিং করবেন না। সব বিভেদ ভুলে একসঙ্গে কাজ করুন।’
সূত্র জানায়, মতবিনিময় সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও বিভিন্ন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিরা বক্তব্য দেন। সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কে এবং কোতোয়ালি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বৈধতার বিষয়ে আলোচনা হয়।
শেখ হাসিনা বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ২০১০ সালে মারা গেছেন। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।
সৈয়দ মাসুদ হোসেন তাঁর বক্তব্যে আক্ষেপ করে বলেন, দলের নিবেদিতপ্রাণ নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করা হচ্ছে না। মন্ত্রী-সাংসদ ও তৃণমূল নেতারা ভবিষ্যতে একসঙ্গে চলতে না পারলে সমূহ বিপদ এবং তাতে দলের ক্ষতি হবে।
সভায় কোতোয়ালি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অমিতাভ বোস বক্তব্য দিতে শুরু করলে মন্ত্রীর সমর্থিত গ্রুপের মোকাররম হোসেন, খায়রুদ্দিন মিরাজ প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, অমিতাভকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শামসুল আলম চৌধুরীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
শেখ হাসিনা জানতে চান, অমিতাভকে কে বহিষ্কার করেছে? মোকাররম মিয়া বলেন, কোতোয়ালি আওয়ামী লীগের সভায় তাঁকে বহিষ্কার করা হয় এবং জেলা আওয়ামী লীগ তা অনুমোদন করে।
জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, কেন্দ্র ছাড়া এভাবে দল থেকে কেউ কাউকে বহিষ্কার করতে পারে না।

শেয়ার করুন