২০ হাজার হেক্টরের বোরো পানির নিচে

0
118
Print Friendly, PDF & Email

ঘূর্ণিঝড় মহাসেনের আঘাতের পর টানা বর্ষণে মাদারীপুরের চারটি উপজেলার ৫০টি বিলের প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান তলিয়ে আছে। এ কারণে কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।
কালকিনি উপজেলার পাথরিয়ারপাড় গ্রামের কৃষক আশিষ বাড়ৈ (৫০) বলেন, ‘বোরো ধান চাষ করতে শতাংশপ্রতি ৬০০-৭০০ টাকা খরচ হইছে। তারপর আবার ঝড়-বৃষ্টিতে ধান পইড়া গেছে। এহন বাকি ধান বৃষ্টির পানিতে তলাইয়া গেছে। এই পানি কবে নামব কে জানে। যদি দু-এক দিনের মধ্যে পানি নামে তা হইলে কিছু ধান ঘরে উডাইতে পারুম। আর যদি পানি না নামে, তা হইলে এ বছর পোলাপান লইয়া না খাইয়া থাকতে হইব।’
জেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে মাদারীপুরের চারটি উপজেলার ৫০টি বিলে প্রায় ৪১ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। জ্যৈষ্ঠ মাসের শুরুতে ধান কাটা শুরু হয়। এ মাসে প্রায় ৯০ শতাংশ ধান কাটা শেষ হওয়ার কথা। ঘূর্ণিঝড় মহাসেনে বেশির ভাগ ধানগাছ মাটিতে পড়ে যায়। যেগুলো দাঁড়িয়েছিল, সেগুলোও ১০ দিনের টানা বর্ষণে প্রায় অর্ধেক তলিয়ে গেছে। বর্ষণ আরও কয়েক দিন অব্যাহত থাকলে সব ধান পানির নিচে চলে যাবে।
মাদারীপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোহাম্মাদ গোলাম মোস্তফা জানান, আসলে এখনো কৃষকের তেমন ক্ষতি হয়নি। যে ধান বাড়িতে তুলেছেন, সেগুলো গজিয়েছে ঠিক। কিন্তু জমিতে যেগুলো রয়েছে তা পানি নামার পরে সংগ্রহ করতে পারবেন।

শেয়ার করুন