আবারও বেড়েছে গুঁড়োদুধ মাছ সবজি ও রসুনের দাম

0
95
Print Friendly, PDF & Email

গুঁড়োদুধ, মাছ, সবজি ও রসুনের দাম আবারও বেড়েছে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে এসব পণ্যের দাম কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। সম্প্রতি ডিম, গরু ও খাসির মাংসের দাম বাড়ার পর তা কমার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। নিত্যপণ্যের বর্ধিত এ দামে সংসার চালাতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠলেও অযৌক্তিক দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারের কোনো তত্পরতা লক্ষ্য করা যায়নি।
গতকাল রাজধানীর মালিবাগ, মগবাজার, রামপুরা, কারওয়ান বাজারসহ বেশ কয়েকটি বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সব ব্র্যান্ডের ননীযুক্ত গুড়া দুধ বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। ৪০০ গ্রামের ডানো প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকায়। কয়েকদিন আগে এর দাম ছিল ১৪৫ টাকা এবং গত মাসে ছিল ১৩৫ টাকা। একইভাবে মার্কস প্রথম দফায় ১৮০ থেকে ২০০ টাকা এবং দ্বিতীয় ২০০ টাকা থেকে বেড়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ২১০ টাকায়। ডিপ্লোমা ২৩০ থেকে বেড়ে ২৫০ টাকা, রেডকাউ ২৩০ থেকে বেড়ে ২৫০ টাকায় এবং ড্যানিস দুধ ১৮০ টাকা থেকে বেড়ে ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
কয়েক দিনের বৃষ্টির কারণে সবজির দাম কিছুটা বেড়েছে। গতকাল বেগুন ৪০ থেকে ৫০, টমেটো ২৫-৩০, পটল ৩০-৩৫, ঢেঁড়স ২৫-৩৫, করলা ২০-২৫, বরবটি ৩০-৪০ টাকা, সজনে ৬০-৭০ টাকা, চিচিঙ্গা ৩০-৪০ টাকা এবং ঝিঙ্গে ৩৫-৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। এছাড়া লাউ আকারভেদে ৩০-৫০, মিষ্টি কুমড়া ২০-৪০ টাকায় বিক্রি হয়। গত সপ্তাহের চেয়ে বেগুন, ঢেঁড়স ও পটলের দাম বেড়েছে।
আদা, পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচের দাম আগের মতোই রয়েছে। আমদানিকৃত আদা ৮০ টাকা কেজি, দেশি আদা ১০০-১১০ টাকা, দেশি পেঁয়াজ আগের মতোই ৩০-৩৪ টাকায় এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ২৫-২৬ টাকা, কাঁচা মরিচ ৬০-৭০ টাকা এবং শুকনা মরিচ ১৬০-১৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।
তবে রসুনের দাম কেজিতে আগের সপ্তাহের চেয়ে ১০ টাকার মতো বেড়েছে। প্রতিকেজি দেশি রসুন ৭০-৭৫ টাকা ও আমদানি করা বড় কোষের চীনা রসুন ১০০-১০৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে বাজারে আসা নতুন চালের দাম কিছুটা কমলেও আগের মতোই স্থিতিশীল রয়েছে পুরনো চালের দাম। বিআর-আটাশ চাল পুরাতন ৩৮ টাকা কেজি হলেও নতুন আসা চালের দাম ৩২-৩৪ টাকা। একইভাবে পুরাতন মিনিকেটের দাম ৪৬-৪৮ টাকা হলেও নতুনের দাম গত সপ্তাহ থেকে ২ টাকা কমে ৪০-৪২ টাকায় বিক্রি হয়। অন্য চালের মধ্যে নাজিরশাইল ৪৪-৪৬, লতা ৩৮-৩৯, পারিজাত (মোটা) ২ টাকা বেড়ে ৩৪-৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
গত সপ্তাহের মতোই আটা ৩০-৩২ এবং ময়দা ৪০-৪২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি দেশি মসুর ডাল ১১০-১২০ টাকা, নেপালি ক্যাঙ্গারু মসুর ডাল ১২০ এবং হাইব্রিড ৮০-৮৫ টাকায় বিক্রি হয়।
বাজারে সরবরাহ কম থাকায় মাছের দাম কিছুটা বেড়েছে। গতকাল বাজারে প্রতিটি আধা কেজি ওজনের ইলিশ ৫৫০-৬০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। এছাড়া রুই প্রতিকেজি ২২০-২৫০ টাকা, নলা (ছোট রুই) ১৫০-১৬০ টাকা, বড় কাতলা প্রতিকেজি ৩০০-৩৫০ টাকা, ছোট ২২০-২৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১২০-১৬০ টাকা, পাঙ্গাস ১২০-১৪০ টাকা, কাচকি ২০০-২৪০ টাকা, কই ১৮০-২২০, সরপুঁটি ১৬০-২০০ টাকা, শিং ৫০০-৫৫০ টাকা, চিংড়ি আকারভেদে কেজিপ্রতি ৩০০-৬০০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে।
এছাড়া বাজারে মাংস ও ডিম আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১৪০-১৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ৭০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের প্রতিটি দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৫০-৩০০ টাকা দামে।
গরুর মাংসের দাম প্রতি কেজি ২৭০-২৮০ এবং খাসির মাংস ৪০০-৪২০ টাকা। ভোজ্যতেলের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

শেয়ার করুন