প্রতারিত নারীদের বিক্ষোভ

0
139
Print Friendly, PDF & Email

 

(তাড়াশে এক এনজিও  কতৃক হত দরিদ্র নারীদের কাছ থেকে ৩০ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ)

 

 

 

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে এক এনজিও  কতৃক ভিজিডি রেশন কার্ডের মাধ্যমে গম দেওয়ার নাম করে প্রায় ৩০ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছেএ দিকে গত সোমবার প্রতারিত দুশতাধিক হত দরিদ্র নারী গম  না পেয়ে টাকা ফেরতের দাবীতে সারাদিন ওই এনজিও অফিস ঘিরে রেখে বিক্ষোভ প্রর্দশন করেন

 

জানাগেছে, তাড়াশ সদরে হাসপাতাল গেটে অবস্থিত শিশু -কিশোর যুব উন্নয়ন সংস্থা নামে একটি এনজিও গত ৬ মাসে  উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে হত দরিদ্র প্রায় চার হাজার নারীকে ভিজিডি রেশন কার্ডের মাধ্যমে মাসিক বরাদ্দ প্রতিটি কাডের্র অনুকুলে  ৩০কেজি গম অথবা ২৫ কেজি পুষ্টি সমৃদ্ধ আটা দেবার কথা বলে কার্ড ইস্যু করে

 

এ সকল কার্ডে বিতরণকারী কতৃপক্ষের ¯^াক্ষর করার কথা ¯^ ¯^  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের থাকলেও সেখানে ¯^াক্ষর করেছেন এস এম আমজাদ হোসেন নামের ওই এনজিও পরিচালক

 

অভিযোগ উঠেছে কার্ড বিতরণ কালে প্রতি হত দরিদ্র নারী কাছ থেকে ২০০০-২৫০০ টাকা মাঠ কর্মীদের মাধ্যমে আদায় করা হয়েছে

 

পুশো রাণী,  মাজেদা, মর্জিনা, মরিয়ম, সুধারাণী সহ একাধিক প্রতারিত নারীরা জানান, এনজিও কতৃক প্রতারিত নারীর  সংখ্যা দুই হাজারের অধিক

 

 এ দিকে গতকাল সোমবার বিভিন্ন ইউনিয়নের দুই শতাধিক নারী তাড়াশে হাসপাতাল গেট সংলগ্ন শিশু -কিশোর যুব উন্নয়ন সংস্থার কার্যালয়ে গম নিতে এসে তালাবব্ধ দেখতে পানএ সময়ে প্রতারিত হত দরিদ্র নারীরা টাকা ফেরতের দাবীতে  বিক্ষোভ করেন

 

এ ছাড়া কার্ডে ৯ নং কলামে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার ¯^াক্ষরের জায়গা থাকলেও তারা ¯^াক্ষর করেন নিবরং ওই কলামে ¯^াক্ষর করেছেন এনজিওর লোকেরাই

 

 এ ব্যাপারে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মাহফুজা বেগম বলেন, তিনি ৬ মাস পুর্বে এনজিও কতৃক টাকা নেওয়ার বিষয়টি শুনেছেনতবে ওই কার্ডে তিনি কোন ¯^াক্ষর করেন নি। 

 

এ প্রসঙ্গে এনজিওটির পরিচালক এস এম আমজাদ হোসেন , কার্ড ইস্যু করার কথা ¯^ীকার করলেও টাকা নেবার কথা তিনি অ¯^ীকার করে বলেন দেরীতে হলেও ওই হত দরিদ্র নারীরা গম পাবেন

 

 

 

শেয়ার করুন