বিদ্যুতের ভর্তুকি সেচযন্ত্রের মালিকদের পকেটে

0
84
Print Friendly, PDF & Email

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে বিদ্যুতে চালিত নলকূপের নয় সহস্রাধিক সেচ গ্রাহক সরকারের দেওয়া বিদ্যু বিলের ভর্তুকির সুবিধা পাচ্ছেন নাগ্রাহকদের অভিযোগ, সেচযন্ত্রের মালিকেরা সরকারের দেওয়া মোট বিদ্যু বিলের ওপর ২০ শতাংশ ভর্তুকির টাকা তাঁদের ফিরিয়ে দিচ্ছেন নাবরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) গভীর নলকূপের গ্রাহকেরাও এ সুবিধা পাচ্ছেন না
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, উপজেলায় বিদ্যুতে চালিত অগভীর সেচযন্ত্রের সাহায্যে সাড়ে ছয় হাজার কৃষক পাঁচ হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছেনসব মিলিয়ে উপজেলায় বিদ্যুতে চালিত ১৭৭টি গভীর নলকূপ ও ৭৯৩টি অগভীর নলকূপের মাধ্যমে এবার সাড়ে নয় হাজার কৃষক বোরোর আবাদ করেছেন
সিন্দাগড় গ্রামের আশানন্দ রায় অভিযোগ করেন, সেচযন্ত্রের মালিক ইশাহাক আলী গত বোরো মৌসুমে একরপ্রতি সেচ বাবদ সাড়ে তিন হাজার টাকা নিয়েছিলেনএ বছর তিনি সাড়ে চার হাজার টাকা আদায় করেছেন
রঘুনাথপুর গ্রামের সেচযন্ত্রের মালিক সফিউর রহমান বলেন, ‘সরকারি ভর্তুকি পেয়েছিকিন্তু সেচযন্ত্র, বিদ্যু বিলসহ অন্যান্য খরচ বৃদ্ধি পাওয়ায় আমি এমনিতেই আর্থিক ক্ষতির মধ্যে আছি অবস্থায় সেচ গ্রাহকদের ভর্তুকির টাকা ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়
পীরগঞ্জের মাছখুড়িয়া এলাকায় বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন সংস্থা (বিএডিসি) ৯ নম্বর গভীর নলকূপের সেচ গ্রাহক আব্বাস আলী বলেন, ‘সরকার ভর্তুকি দিচ্ছে শুনেছিকিন্তু এর সুফল আমি বুঝতে পারলাম নাগ্রাহকদের ভর্তুকি দেওয়া হলে প্রিপেইড কার্ডের দাম কমে যাওয়ার কথা, কিন্তু দুই-তিন বছর ধরে ওই দামেই (প্রতি ঘণ্টা ১০০ টাকা) প্রিপেইড কার্ড কিনতে হচ্ছেতাহলে ভর্তুকির টাকা গেল কোথায়?’
বিএমডিএর পীরগঞ্জ কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী খায়রুল আলম জানান, মন্ত্রণালয় পর্যায়ে বোর্ড মিটিংয়ের মাধ্যমে ভর্তুকির টাকা বাদ দিয়েই সেচ চার্জ নির্ধারণ করা হয়েছে
পল্লী বিদ্যু সমিতি পীরগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক খান মোহাম্মদ বোরহান জানান, বিদ্যু বিল থেকে ২০ শতাংশ বাদ দিয়েই সেচযন্ত্রের বিল করা হয়এ ভর্তুকির টাকা সেচযন্ত্রের মালিকেরা সুবিধাভোগী চাষিদের কাছে ফেরত দেবেন বলে বিধান আছে

 

 (রুপশী বাংলা নিউজ) ২৬ এপ্রিল /২০১৩.

 

শেয়ার করুন