ভবিষ্যদ্বাণী

0
117
Print Friendly, PDF & Email

ভবিষ্যদ্বাণী করা এক কঠিন কাজকিন্তু এই সত্য জেনে বা না জেনে অনেকেইভবিষ্যদ্বাণী করতে পিছপা হন নাতাই ব্যর্থতার ফল তাঁরা যথাসময়ে হাতে হাতেপানসাধারণ মানুষের ভবিষ্যদ্বাণী ব্যর্থ হবে, সেটাই স্বাভাবিক বলে ধরেনেওয়া হয়তবে বিশ্বের বিখ্যাত বিজ্ঞানীও মাঝে মাঝে এমন সব ভবিষ্যদ্বাণীকরেছেন, পরে যা ভুল প্রমাণিত হয়েছেএ দলে আছেন আইনস্টাইন থেকে হাল আমলেরবিল গেটসও

শর্টওয়েভ, লংওয়েভ পেরিয়ে এখন এফএম রেডিও তরুণ প্রজন্মেরজনপ্রিয়তার শীর্ষেএ রেডিওকে ঘিরে গড়ে উঠেছে এফএম প্রজন্মআজ থেকে ১০০বছর আগে এ রকম ভাবতেও পারত না কেউ১৮৯৪ সালের কথাসে সময় ইংল্যান্ডেররয়্যাল সোসাইটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন বিখ্যাত গণিত ও পদার্থবিদ লর্ড কেলভিনতাপ, বিদ্যু, চুম্বকসহ পদার্থবিদ্যার বিভিন্ন শাখায় তাঁর অবদান এখনোস্মরণীয়তাঁর উদ্ভাবিত তাপমান যন্ত্র কেলভিন স্কেল এখনো বিশ্বজুড়ে ব্যবহারকরা হয়কিন্তু এত কিছুর পরও তিনি রেডিওর কোনো ভবিষ্য দেখতে পাননিঅথচতাঁর কথার ঠিক উল্টো চিত্র এখন বিশ্বজুড়েবিশ্বে বর্তমানে এক বিলিয়নেরবেশি রেডিও সেট এবং ৩৩ হাজারের বেশি রেডিও স্টেশন আছেকেলভিনের আরেকমন্তব্য, বাতাসের চেয়ে ভারী কোনো উড়ন্ত যন্ত্র উদ্ভাবন অসম্ভবঅথচ তিনিবেঁচে থাকতেই রাইট ব্রাদার্স প্রথম আকাশে উড়িয়েছিল বায়ুর চেয়ে অনেক ভারী একযন্ত্রএখন তো মানুষের কাছে আকাশে ওড়া আরও সহজএকইভাবে টেলিভিশন অচিরেইমানুষ ডাস্টবিনে ফেলে দেবে বলে ধারণা করেছিলেন সে সময়ের নামকরা অনেকবিজ্ঞানী

রেডিও-টেলিভিশনের মতো আজ টেলিফোনও মানুষের দৈনন্দিনজীবনের অংশঅথচ বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগে টেলিফোনকে অনেকেই ভালো চোখেদেখেননিব্রিটিশ পার্লামেন্টে সে সময়ের পোস্ট অফিসের প্রধান প্রকৌশলীস্যার উইলিয়াম প্রিন্স মন্তব্য করেছিলেন, আমেরিকার টেলিফোনের প্রয়োজন থাকতেপারে, কিন্তু তাঁদের নেইকারণ, তাঁদের যথেষ্ট বার্তাবাহক আছেএমনকিবিশ্বখ্যাত মার্কিন সাহিত্যিক মার্ক টোয়েনও টেলিফোনের ভবিষ্য অন্ধকারদেখেছিলেন

আরেক বিখ্যাত মার্কিন উদ্ভাবক টমাস আলভা এডিসনঅল্টারনেটিং কারেন্ট বা এসি সম্পর্কে বলেছিলেন, কেউ এ ধরনের বিদ্যুব্যবহার করবে নাতাই এটা নিয়ে কথা বলাই বোকামিসারা বিশ্বে বাসাবাড়ি, শিল্প কারখানায় তাঁর উদ্ভাবিত ডাইরেক্ট কারেন্ট বা ডিসির চেয়ে এসিবিদ্যুতের ব্যবহার হচ্ছেআইরিশ বিজ্ঞানী ড. ডায়োনিসিস লার্ডার দৃঢ় বিশ্বাসছিল, রেলগাড়ি বাহন হিসেবে খুব বেশি গতিসম্পন্ন হবে নাতাঁর ধারণা, রেলগাড়ি বেশি গতিসম্পন্ন হলে এর যাত্রীরা শ্বাস বন্ধ হয়েই মারা যাবেঅথচতাঁর কথাকে মিথ্যা প্রমাণ করার জন্যই হয়তো বর্তমানে রেলগাড়ি ঘণ্টায় ৫০০কিলোমিটারের গতিকেও ছাড়িয়ে গেছে

এদিকে, ১৮৯৯ সালে আমেরিকার পেটেন্টঅফিসের পরিচালক সে সময়ের মার্কিন প্রেসিডেন্টকে এই বলে আশ্বস্ত করেছিলেন, মানুষের পক্ষে যা কিছু উদ্ভাবন করা সম্ভব, তার সবই ইতিমধ্যে উদ্ভাবিতহয়েছেএ ক্ষেত্রে মন্তব্য একেবারেই নিষ্প্রয়োজন

 

(রুপশী বাংলা নিউজ) ২৬ এপ্রিল /২০১৩.

 

শেয়ার করুন