মুক্তির জীয়নকাঠি

0
86
Print Friendly, PDF & Email

ছবিটা সাধারণছবিটা নেহাত সাদাকালোছবিটা একটি টেবিল ঘিরে কয়েকজন মানুষের বৈঠক করা নিয়েআপাত নিরীহ (!) এমন এক ছবির সামনে দাঁড়াতেই কিনা শরীরের ভেতর রি রি করে উঠল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শোভন রহমানেরচোয়াল শক্ত করে আড়চোখে তাকালেন তিনি সঙ্গে আসা বন্ধু অদিতের দিকেএবং বিস্ময়! সত্যিই বিস্ময়! শোভন দেখলেন অদিতের চোখেমুখেও সেই একই যন্ত্রণার আধিপত্য
এবার আপনি, সেই ছবির ক্যাপশন পড়ে দেখুন তো, শোভন ও অদিতের অনুভূতির সঙ্গে আপনার অনুভূতি মিলে যায় কি না—‘টিক্কা খানের সঙ্গে বৈঠক করছেন গোলাম আযম ও তাঁর দোসররা
ঢাকার সেগুনবাগিচায় অবস্থিত মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে রাখা আছে এই ছবিএখানে আছে মুক্তিযুদ্ধের আরও অসংখ্য নিদর্শনপ্রতিদিন শত শত তরুণ-তরুণী ভিড় করেন এখানেকেননা এখানে এলে মুক্তিযুদ্ধকে খুব কাছ থেকে উপলব্ধি করা যায়এখানে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের জীয়নকাঠিদাবি, এখানে ঘুরতে আসা একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সারা তাসকিনের
কথা মিথ্যে নয়এখানে নীরব ভাষায় গল্প বলছে একাত্তরমহ সেই গল্প শুনতে হলে শোভন-অদিত-সারার মতো আপনাকেও আসতে হবে এই জাদুঘরেপা রাখতে হবে ভবনের সব কটি কক্ষেযেমনটা এসেছেন মেহেদী, রিপন, ভূপেশ, লিপু, বৃষ্টি ও মিমছয় সদস্যের এই তরুণ দল এসেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে
পাঁচ নম্বর কক্ষে এসে গতি শ্লথ হয় তাঁদেরদ্যাখ, দ্যাখ, এই রেডিও রিসিভারটা স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে ব্যবহূত হতো…এই হেলমেট, এই পানির মগ… এগুলো ব্যবহার করতেন মুক্তিযোদ্ধারাটুকরো টুকরো কথা আর মুক্তিযুদ্ধের নিদর্শন দেখা চলে একসঙ্গেমুক্তিযোদ্ধাদের পোশাক, মেশিনগানের গুলির চেন, শরণার্থী শিবিরের করুণ ছবি, ভারতের কোন রাজ্যে কতজন বাঙালি আশ্রয় নিয়েছিল তার পরিসংখ্যান, পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে খণ্ড-বিখণ্ড বৌদ্ধমূর্তি, স্বাধীন বাংলার পতাকা, মুক্তিযোদ্ধাদের লেখা চিঠি, ডায়েরি, সেই সময়ের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পত্রিকার কাটিং, ইন্দিরা গান্ধী ও এডওয়ার্ড কেনেডির শরণার্থী শিবির পরিদর্শনের ছবি, পাকিস্তানি বাহিনীকে আহ্বান জানিয়ে লেখা যৌথ বাহিনীর লিফলেটের খণ্ডাংশ ইত্যাদি দেখতে দেখতে তাঁরা হঠা আবিষ্কার করেন তাঁদের বন্ধু মেহেদী নিখোঁজ! কোথায় গেল, কোথায় গেল? তাঁকে পাওয়া গেল ছয় নম্বর কক্ষেদুহাত বুকে ভাঁজ করা, বিমর্ষ মুখ, চোখে জলমেহেদী ঠায় দাঁড়িয়ে আছেন স্বচ্ছ কাচঘেরা এক বাক্সের সামনেআর বাক্সটা ভর্তি মানুষের হাড়গোড় আর মাথার খুলিতে! বাক্সের গায়ে লেখা—‘মিরপুর মুসলিমবাজার ও জল্লাদখানা বধ্যভূমি থেকে উদ্ধার করা শহীদদের কঙ্কাল ও মাথার খুলি
বন্ধুর বিষণ্নতা মুহূর্তেই সংক্রমিত হয় অন্য বন্ধুদের মধ্যেমুহূর্তেই সবার চোখের উপকূল ভিজে ওঠে জলেসেই জলভরা চোখ নিয়েই বেরিয়ে আসেন সবাইকারও মুখে কোনো কথা নেইকথা বলার দরকারই বা কী! মুখের ভাষার চেয়ে চোখের জলের ভাষাই তো অনেক বেশি সহজ

২৪ মার্চ/২০১৩/নিউজরুম.

শেয়ার করুন