জাতীয় ঈদগাহেই জুমার নামাজ পড়লেন সবাই

0
125
Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা: জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের নামাজে জানাজায় অংশ নিতে আসা রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সামরিক বেসামরিক কর্মকর্তাসহ সাধারণ মানুষ জুমার নামাজ আদায় করেছেন।

দুপুর সোয়া ১টার দিকে তারা নামাজ আদায় করেন।

জুমার নামাজে অংশ নেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মির্জা আব্বাস, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াসহ সামরিক বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে দুপুর আড়াইটায় রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের শেষ জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে আগ থেকেই রাজনৈতিক নেতাসহ সর্বস্তরের মানুষ সেখানে সমবেত হয়েছেন।

উল্লেখ্য বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ৪৭ মিনিটে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ১২টায় বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তাকে ঢাকায় আনা হয়। ১২টা ১০ মিনিটে ফ্লাইট থেকে রাষ্ট্রপতির কফিন নামানো হয়। পরে রাষ্ট্রপতির মরদেহ বঙ্গভবনে নিয়ে যাওয়া  হয়। সেখানে শ্রদ্ধা জানানোর পর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘরে তার মরদেহ রাখা হয়।

শুক্রবার সকালে প্রথম জানাজার জন্য রাষ্ট্রপতির মরদেহ শুক্রবার সকালে বিশেষ হেলিকপ্টার যোগে তার জন্মস্থান ভৈরবে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে জানাজা শেষে হেলিকপ্টারটি আবার ঢাকার উদ্দেশে ভৈরব ত্যাগ করে। এসময় ভৈরবের হাজার হাজার মানুষ হাত নেড়ে শেষ বিদায় জানায় তাদের প্রিয় নেতা জিল্লুর রহমানকে।

ঢাকার জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে বিকেল ৪টায় বনানী কবরস্থানে পূর্ণাঙ্গ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে দাফন করা হবে। সেখানে প্রিয়তমা স্ত্রী আইভি রহমানের কবরে সমাহিত হবেন তিনি।

উল্লেখ্য বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ৪৭ মিনিটে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ১২টায় বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তাকে ঢাকায় আনা হয়। ১২টা ১০ মিনিটে ফ্লাইট থেকে রাষ্ট্রপতির কফিন নামানো হয়।

পরে রাষ্ট্রপতির মরদেহ বঙ্গভবনে নিয়ে যাওয়া  হয়। সেখানে শ্রদ্ধা জানানোর পর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘরে তার মরদেহ রাখা হয়।

২২ মার্চ, ২০১৩

শেয়ার করুন