ডিজেল রপ্তানির পরিকল্পনা

0
108
Print Friendly, PDF & Email

ব্যবসা ও অর্থনীতিডেস্ক( ফেব্রুয়ারী): ভারতের আসামভিত্তিক নুমালিগড় রিফাইনারি লিমিটেড (এনআরএল) তাদের জ্বালানি তেল পরিশোধন কারখানা সম্প্রসারণের অংশ হিসেবে অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশে জ্বালানি তেল বিশেষত ডিজেল রপ্তানির পরিকল্পনা করছে
ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ সরকার এবং বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা করেছে বলে প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ভারতীয় দৈনিক পত্রিকা বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে জানিয়েছেন
এনআরএলের একজন কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশ সরকার ও বিপিসি উভয়ই এ বিষয়ে আগ্রহ দেখিয়েছেইতিমধ্যে এনআরএলের মূল প্রতিষ্ঠান ভারত পেট্রোলিয়াম করপোরেশন লিমিটেড (বিপিসিএল) এবং এনআরএলের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ সরকার ও বিপিসির সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন বলেও তিনি জানান
যদি এনআরএলের সঙ্গে সমঝোতা চূড়ান্ত হয়, তাহলে পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে ১৭০ কিলোমিটার দীর্ঘ পাইপলাইনের মাধ্যমে বাংলাদেশের পার্বতীপুরে ডিজেল সরবরাহ করা হবে
এর আগে ২০০৭-০৮ সময়কালে এনআরএল নৌপথে ডিজেলের কিছু চালান বাংলাদেশে পাঠিয়েছিলকিন্তু ব্রহ্মপুত্র নদের নাব্যতা সংকট, রাতের বেলা নৌ-চলাচলের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ও সংকেতের অভাবসহ বিভিন্ন কারণে এই চালান আর অব্যাহত রাখা সম্ভব হয়নি
পরবর্তীকালে এনআরএল বিকল্প উপায়ে জ্বালানিসামগ্রী বাংলাদেশে পাঠানোর চিন্তা করতে থাকেআর তাই পাইপলাইনের মাধ্যমে ডিজেল রপ্তানির উপায় খুঁজে বের করে প্রতিষ্ঠানটিএটিকেই দীর্ঘমেয়াদে লাভজনক ব্যবসা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে
এনআরএলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা আরও জানিয়েছেন যে পাইপ লাইনে ডিজেল রপ্তানি করতে হলে তা দুই দেশের সীমান্ত অতিক্রম করে যাবেএ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও ভারত দুই দেশের সরকারের সম্মতি ও অনুমতি লাগবেআর তা সময়সাপেক্ষ বিষয়তিনি আরও জানান, প্রকল্পটির বিস্তারিত সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবেআর এই প্রতিবেদন তৈরি করতে ছয় মাস সময় লাগবে
বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আসামের গোলাঘাট জেলার নুমালিগড়ে পরিশোধন কারখানাটির বর্তমান সক্ষমতা বার্ষিক ৩০ লাখ মেট্রিক টনএনআরএল তা বাড়িয়ে ৮০ থেকে ৯০ লাখে উন্নীত করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেপ্রকল্পটি ভারতের ১২তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছেএ জন্য আর্থ-প্রাযুক্তিক সম্ভাব্যতা প্রতিবেদন প্রণয়নের কাজ করছে ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্ডিয়া লিমিটেড
সক্ষমতা বাড়ানোর পর উপাদিত বাড়তি জ্বালানিসামগ্রী ভারতের উত্তর-পূর্ব, পূর্বাঞ্চল, উত্তর প্রদেশের কিছু অংশ ও ভুটানে বিক্রির পরিকল্পনা করা হয়েছে

 

নিউজরুম্

 

শেয়ার করুন