রাজশাহীতে জামায়াতের ঢিলেঢালা হরতাল চলছে

0
65
Print Friendly, PDF & Email

রাজশাহী: জামায়াতের ডাকে বুধবার ভোর ৬টা থেকে রাজশাহীতে ঢিলে ঢালাভাবে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে। হরতাল শুরুর পর দুই একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সকাল ৮টা পর্যন্ত মহানগরীর কোথাও রাস্তায় নামতে পারেনি জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা।

হরতালকে কেন্দ্র করে ভোর থেকে কঠোর অবস্থানে রয়েছে র্যাব ও পুলিশ। ফলে এ সময় পর্যন্ত বড় ধরনের কোনো অপ্রীতকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মহানগরীর কাটাখালি এলাকায় সড়কের ওপর টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধের চেষ্টা করে শিবিরকর্মীরা। কিন্তু পুলিশ যাওয়ার আগেই পালিয়ে যায়। পরে মহানগরীর ভদ্রা এলাকার আরএইচ ছাত্রাবাসের সামনে হরতালের সমর্থনে সড়কের ওপর টায়ার জ্বালিয়ে ঝটিকা মিছিল বের করে শিবিরকর্মীরা কিন্তু পরে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

এছাড়া, মহানগরীর খড়খড়ি এলাকায় একটি যাত্রাবাহী বাস ভাঙচুর করেছে পিকেটাররা। তবে, এতে কেউ হতাহত হয়নি।

মহানগরীর পার্কের গেটের সামনে শিবিরকর্মীরা ঝটিকা মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ ধাওয়া করে সেখান থেকে চার জনকে আটক করে। এরপর থেকে শিবিরকর্মীরা মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্নভাবে রাস্তার ওপর টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়।

ফলে হরতালে রাজশাহীর জনজীবনে তেমন প্রভাব পড়েনি। সকাল থেকে সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নগরীর জীবনযাত্রা অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে আসছে।

বুধবার সকাল থেকে মহানগরীর প্রধান সড়কসমূহে বিজিবির টহল লক্ষ্য করা না গেলেও র্যাব ও পুলিশের যৌথ টহল ও নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা বজায় রয়েছে। প্রতিটি পয়েন্টে তৎপর রয়েছে এ দুই বাহিনীর সদস্যরা।    

সকাল ৮টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত হরতালকে কেন্দ্র করে বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। যেকোনো নাশকতা এড়াতে ভোর থেকেই মহানগরীজুড়ে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ছোট ছোট ইউনিটে টহল দিচ্ছে র্যাব-পুলিশ।

হরতালের কারণে দূরপাল্লার কোনো বাস চলাচল শুরু না হলেও ধীরে ধীরে আন্তঃজেলা রুটে বাস ও ট্রাক চলাচল শুরু হচ্ছে। মহানগরীর বেশিরভাগ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই খুলতে শুরু করেছে। বর্তমানে মহানগরীতে রিকশা, অটোরিকশাসহ হালকা যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন থেকে বিভিন্ন রুটের আন্তঃনগর ও লোকাল ট্রেন চলাচলও স্বাভাবিক রয়েছে।

মহানগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট, কুমারপাড়া, গণকপাড়া, আলুপট্টি, মণিচত্তর, সোনাদিঘীর মোড়, তালাইমারী, কাটাখালি, গৌরহাঙ্গা রেলগেট, শালবাগান, নওদাপাড়া, বিনোদপুর, তালাইমারী, ভদ্রা, কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বাস টার্মিনাল, লক্ষীপুর, কোর্ট চত্বর, নিউমার্কেট এলাকাসহ বিভিন্ন স্পর্শকাতর এলাকায় বিপুল পরিমাণ পুলিশ ও আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার এস.এম মনির-উজ-জামান বলেন, “বুধবার ভোর থেকেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। নাশকতা এড়াতে মহানগরীর বিভিন্ন স্পর্শকাতর এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ ও র্যাব মোতায়েন রয়েছে। তারা নিয়মিত টহল দিচ্ছে।”   

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় রাজশাহী মহানগর জামায়াতের আমির ও কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য আতাউর রহমানকে ঢাকায় আটকের প্রতিবাদে রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় বুধবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয় রাজশাহী জামায়াত।

মহানগরীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি ডা. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর ও বিভাগীয় টিম সদস্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক  বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়।

 ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩

শেয়ার করুন