বিএনপির সমর্থন ছাড়াই জামায়াত নিষিদ্ধ সম্ভব: হানিফ

0
47
Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা: আইনের মাধ্যমে বিএনপির সমর্থন ছাড়াই জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ।

সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউস্থ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে হরতালবিরোধী কর্মসূচি পালনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

হানিফ বলেন, “আইন পাশের আগে আমরা বলেছিলাম, জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করতে আইন প্রণয়নে বিএনপির সমর্থন প্রয়োজন। কিন্তু রোববার এ সংক্রান্ত আইন পাশ হওয়ায় জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করার পথ প্রসারিত হয়েছে। এখন এ আইনের মাধ্যমেই জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা সম্ভব।”

তিনি বলেন, “মুক্তিযুদ্ধের সময় শুধু জামায়াতের আটক নেতারা যুদ্ধাপরাধ করেননি। তারা রাজনৈতিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে যুদ্ধাপরাধ করেছিলেন।”

মানুষ হরতাল প্রত্যাখ্যান করেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “রাস্তায় গাড়ি ভাঙচুর, মানুষ হত্যা, সর্বশেষ বাড্ডায় গাড়ি উল্টে মানুষ হত্যার মাধ্যমে বিএনপি-জামায়াতের ফ্যাসিস্ট চরিত্রের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।”

‘আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় এলে সব মানবতাবিরোধী হত্যাকাণ্ডের বিচার করা হবে’, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে হানিফ বলেন, “প্রথমত বিএনপি আগামীতে ক্ষমতায় আসতে পারবে কি না সেটাই প্রশ্ন। তারা ক্ষমতায় যেতে পারলেই তো বিচার করবে। কারণ, বাংলার মানুষ তাদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। যুদ্ধাপরাধীদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা উড়ুক, আবারো দেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করা হোক দেশের জনগণ তা চায় না।”

তিনি আরো বলেন, “যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করতেই এর সঙ্গে অন্যান্য মানবতাবিরোধী হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি মেশানো হচ্ছে।”

শাহবাগ আন্দোলনকে যারা ভিন্ন পথে নিতে চায় তারা পাকিস্তানের ধারক-বাহক ও এজেন্ট মন্তব্য করে হানিফ বলেন, “জামায়াত পাকিস্তানের ধারক ও বাহক। বিএনপি পাকিস্তানের এজেন্ট।”

এ সময় অন্যদের মধ্যে ঢাকা মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজিত রায় নন্দী, এনামুল হক শামীম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৩

শেয়ার করুন