সরিষা ঘরে তুলতে ব্যস্ত কৃষক

0
70
Print Friendly, PDF & Email

কৃষি ডেস্ক( ফেব্রুয়ারী): দেশের বিভিন্ন স্থানে এবার সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছেসাঁথিয়া অনুকূল আবহাওয়া বিরাজ ও সময়মত বৃষ্টিপাত হওয়ায় পাবনার সাঁথিয়ায় কৃষকরা রোপা আমন ধান কাটার পর কার্তিক মাসে তেলজাতীয় ফসল সরিষার আবাদ করেছিলেন ব্যাপকভাবেএবার সরিষার বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছেএলাকায় শুরু হয়েছে সরিষা তোলা ও মাড়াইয়ের কাজসরিষা ঘরে তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন কৃষকরা
সাঁথিয়া উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১ হাজার ৬১০ হেক্টর জমিতেআবাদ হয়েছে ১ হাজার ৪২৫ হেক্টর জমিতেএবার টরি-৭, রাই-৫, বারি-৯ ও ১৪, এসএস-৭৫ জাতের সরিষা আবাদ করা হয়েছেসরিষা উত্পাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার ৭১০ মেট্রিক টন
সাঁথিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোশাররফ হোসেন আমার দেশকে জানান, সঠিক সময়ে, উন্নতমানের বীজ, উফশী জাতের বীজের সহজলভ্যতা, সুষম মাত্রায় সার ও কীটনাশক ব্যবহার, কৃষকদের সঠিক পরামর্শ প্রদান এবং উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিয়মিত মাঠ তদারকির ফলে ও পোকা-মাকড়ের আক্রমণ না থাকায় মাঠে সরিষার বর্তমান অবস্থা অত্যন্ত ভালোআবহাওয়া অনুকূলে থাকলে উচ্চমানের ফলন হবে বলে তিনি আশাবাদী
উপজেলার জোড়গাছা গ্রামের কৃষক ইউনুস আলী জানান, তিনি প্রায় ১ বিঘা জমিতে সরিষার আবাদ করেছেনতার শ্রমিক, সার, কীটনাশক বাবত খরচ হয়েছে প্রায় ২ হাজার ৫০০ টাকাসরিষা আবাদে খরচ সীমিত হওয়ায় প্রায় ৩ মাসের মধ্যে সরিষা ঘরে তোলা যায়এছাড়া বিঘাপ্রতি গড়ে সরিষা ৫-৬ মণ ফলন হয়মৌসুমের সময় সরিষার বাজারদর ২ হাজার ৫০০ টাকা হলেও পরে তা ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা যায়খরচ বাদে তার আয় হবে প্রায় ১০ হাজার টাকা
নীলফামারী : শীতের আগমনে নীলফামারীর প্রকৃতিক রূপ বদলে যাচ্ছেএবার সরিষার ব্যাপক চাষ হয়েছে, দিন দিন আবাদ বেড়েই চলছেনীলফামারী জেলায় এ বছর ১৫১০ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও আবাদ হয়েছে ২০২০ হেক্টর জমিতেযা গত বছরের তুলনায় প্রায় ৬শহেক্টর বেশিজেলায় এ বছর সরিষার ফলন আশা করা হচ্ছে হেক্টরপ্রতি ১ টন করে
জেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, এ বছর কৃষককে সরিষা চাষে সচেতন করা হয়েছেফলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি সরিষা চাষ হবে বলে তাদের ধারণাতাছাড়া কর্মকর্তারা সব সময় মাঠে থেকে কৃষককে সব ধরনের সহযোগিতা করে আসছেন
মো. মোস্তাফিজুর রহমান আমিন ভৈরব (কিশোরগঞ্জ)
সরিষা ফুলের হলুদ বর্ণে বর্ণিল হয়ে উঠেছে ভৈরবের মাঠ-প্রান্তরফুলের মৌ মৌ গন্ধে চারদিক বিমোহিতমৃদু বাতাসের দোলায় প্রস্ফুটিত সরিষার ফুলের সঙ্গে মৌমাছি ও নানা জাতের ফড়িং আর প্রজাপতির নাচন কৃষকের দুই চোখে জমিয়েছে ভালো ফলন পাওয়ার স্বপ্নস্বল্প খরচ ও পরিশ্রমে অধিক ফলন ও ফসল বিক্রি করে ভালো দাম পাওয়ায় সরিষা চাষে দিন দিন আগ্রহী হয়ে উঠছেন ভৈরবের কৃষকরাফলে এখানে প্রতি বছরই আশাব্যঞ্জক বাড়ছে সরিষার আবাদবীজ বোনার দুই মাসের মধ্যে সরিষার ফলন ঘরে তোলা যায় বলে বোরো আবাদের কোনো সমস্যা হয় না বলেও সংশ্লিষ্টদের অভিমতসামান্য পরিমাণ ইউরিয়া ছাড়া আর কোনো সারের প্রয়োজন পড়ে না সরিষার আবাদেচারা গজানোর পরপর আগাছা পরিষ্কার ছাড়া তেমন কোনো শ্রমেরও দরকার হয় নাতাই প্রতি বিঘা সরিষা আবাদে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকার বেশি খরচ হয় নাকৃষকরা জানান, প্রতি বিঘা জমিতে সরিষার ফলন হয় ৬ থেকে ৭ মণ এবং প্রতি মণ সরিষা দুই হাজার টাকা দরে বিক্রি করলেও ১২ থেকে ১৪ হাজার টাকা পাওয়া যায়ফলে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা মুনাফা হয় কৃষকদেরধানসহ অন্য যে কোনো ফসল আবাদে এমন মুনাফা না পাওয়ায় ধীরে ধীরে ভৈরবের কৃষকরা সরিষা আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠছেন
ভৈরব কৃষি অধিদফতর জানায়, কয়েক বছর আগেও সরিষা চাষে আগ্রহী ছিলেন না স্থানীয় কৃষকরাসাম্প্রতিক সময়ে দেশের তেলের ঘাটতি পূরণের লক্ষ্যে কৃষি বিভাগ কৃষকদের পরামর্শসহ নানা সহযোগিতা দিয়ে আগ্রহী করে তুলছেঅন্যদিকে অল্প শ্রম আর খরচে অধিক মুনাফা পাওয়ায় কৃষকরাও সরিষা আবাদে আকৃষ্ট হচ্ছেনসাধারণ দেশীয় জাতের সরিষা আবাদে কৃষক আগে যেখানে প্রতি হেক্টরে ফলন পেতেন এক টনেরও কম, সেখানে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের আবিষ্কৃত বারী-৯জাতের বীজ চাষ করে ফলন পাচ্ছেন দেড় থেকে দুই টনবারী-৯ জাত আবাদে ফলনও ওঠে খুব অল্প সময়েতাই সরিষার আবাদ শেষে বোরো ধান আবাদে কোনো ধরনের সমস্যা হয় নাফলে দিন দিন সরিষার আবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে আশানুরূপচলতি মৌসুমে ভৈরবে দেড় হাজার একর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও, চাষ হয়েছে প্রায় আঠারশএকরগত মৌসুমে দেড় হাজার একর জমিতে সরিষার চাষ হয়েছিলপ্রতি বছর এ হারে ভৈরবে সরিষার আবাদ বৃদ্ধিকে আশপাশের বিভিন্ন এলাকাসহ সারা দেশের জন্য অত্যন্ত ইতিবাচক হিসেবে দেখছে সংশ্লিষ্ট কৃষি বিভাগ

 

নিউজরুম

 

শেয়ার করুন