নলডাঙ্গা পৌর মেয়র বরখাস্তের পর পদ শুন্য ঘোষনা

0
120
Print Friendly, PDF & Email

নিজস্ব প্রতিবেদক. নাটোর: নাটোরের নলডাঙ্গা পৌরসভার ভুয়া ব্যাংক ড্রাফট (জালবিডি) দিয়ে ৩৫ লাখ টাকার টেন্ডার যুবলীগ নেতাকর্মীরা বাগিয়ে নেয়ার ঘটনায় পৌরসভার মেয়র বিএনপি নেতা আব্বাস আলী নান্নু বরখাস্ত হওয়ার পর এবার মেয়রের পদ শুণ্য ঘোষনা করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব রেহানা ইয়াসমিন প্রেরিত আদেশ সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ধারা ৩২ (১)(ঘ) মোতাবেক নলডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী নান্নুকে প্রথমে অপসারন করা হয়।

পরে এরই প্রেক্ষিতে স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ধারা ৩৩ (১)(ঘ) মোতাবেক এবার পৌর মেয়রের পদশুন্য ঘোষনা করা হলো। নির্বাচন কমিশনের সচিব বরাবর পাঠানো এই আদেশের কপি অনুলিপি হিসেবে নাটোরের জেলা প্রশাসক মোঃ জাফর উল্লাহ, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, নলডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র ও সচিবের কাছে পাঠানো হয়েছে।
জানা যায়, গত ১১ এপ্রিল নলডাঙ্গা পৌরসভার বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের জন্য এডিবির অর্থায়নে ১৩ টি গ্রুপের টেন্ডার আহ্বান করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। ৩ মে টেন্ডার দাখিলের দিন ধার্য করা হয়। এসব কাজের জন্য ব্যয় বরাদ্দ করা হয় ৩৫ লাখ টাকা। নির্ধারিত দিনে প্রায় দুশ’ টেন্ডার জমা পড়ে। লটারির মাধ্যমে ১৩ টি গ্রুপের কাজ বরাদ্দ দেওয়া হয়। এদিকে ওই লটারির পর বঞ্চিত ঠিকাদাররা অভিযোগ করেন, যুবলীগের স্থানীয় ৮ নেতা কর্মী টেন্ডার ডকুমেন্ট দাখিলের সময় ভুয়া ব্যাংক ড্রাফট জমা দিয়েছে। ওই ৮ নেতা কর্মী ও তাদের স্বজনদের নামে ১৩টি গ্রুপের ১০৪ টি সিডিউলের সঙ্গে প্রাইম ব্যাংক রাজশাহী শাখার নামে যে ব্যাংক ড্রাফট জমা দেয় তার সবগুলোই ভুয়া। কম্পিউটারের মাধ্যমে নিজেরাই ব্যাংক ড্রাফটগুলি তৈরী করে জমা দিয়েছে।  ইতোপুর্বেও এভাবে জালিয়াতি করা হয়েছে বলে কয়েকজন ঠিকাদার অভিযোগ করেন। ঠিকাদারদের অভিযোগ থানা যুবলীগের সভাপতি মোস্তফা মাসুদের স্ত্রী জান্নাতুন ফেরদৌসের নামে ও যুবলীগ নেতাকর্মিদের নামে বিডিগুলি ক্রয় করা হয়। পরে তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা প্রমানিত হয়।
 নাটোর সদর উপজেলা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, জাল বিডির বিষয়ে জড়িতদের বিরুদ্ধে পৌর মেয়রকে মামলা করার জন্য সে সময় নাটোরের জেলা প্রশাসক নির্দেশ দেন। কিন্তু মেয়র মামলা না করে জাল বিডিগুলি পুড়িয়ে ফেলেন। যুবলীগের স্থানীয় সেই ৮ নেতা কর্মীর নামে টেন্ডার ডকুমেন্টের সঙ্গে জমা দেওয়া ১০৪ টি ব্যাংক ড্রাফট ভুয়া হলেও তাদের নামে তিনি কাজ বরাদ্দ দেন। এ বিষয়ে জানতে পৌর মেয়র আব্বাস আলী নান্নুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি পদশুন্য ঘোষনার খবরের সত্যতা স্বীকার করেছেন।

আপলোড, ৮ফেব্রুয়ারী) ২০১৩ নিউজরুম

শেয়ার করুন