পাখির রাজ্যে

0
125
Print Friendly, PDF & Email

কৃষি ডেস্ক(০৪ ফেব্রুয়ারী): বড়লেখা উপজেলার হাকালুকি হাওর পারের তালিমপুর ইউনিয়নের হাল্লা গ্রামের মনোহর আলী মাস্টারের পতিত বাড়িটি বছর জুড়েই পাখির কলকাকলিতে মুখরিত থাকেতবে শীতের আগমনী বার্তার সঙ্গে সঙ্গে পাখির সমাগমও বৃদ্ধি পায়হাজার হাজার পাখির আগমনে পুরো এলাকা পাখির রাজ্যে পরিণত হয়সন্ধ্যা নামার সঙ্গে হাকালুকি হাওরের বিভিন্ন বিল জলাশয় থেকে পাখিরা এসে আশ্রয় নেয় মনোহর আলীর পতিত বাড়ির গাছগাছালিতেভোর হলেই পুনরায় পাখিরা চলে যায় খাবারের সন্ধানে হাওরের বিভিন্ন বিল বাদাড়েএ পাখি বাড়ির অবস্থান বড়লেখা শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার পশ্চিমে হাল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় লাগোয়া
সরেজমিনে এক সন্ধ্যায় গিয়ে দেখা গেছে, হাকালুকি পারের হাল্লা গ্রামের আশপাশের বিল জলাশয় থেকে হরেক রকমের হাজার হাজার পাখি ঝাঁকে ঝাঁকে মনোহর আলী মাস্টারের বাড়ির গাছ গাছালিতে জড়ো হচ্ছেএ যেন অন্যরকম এক পাখির মেলাপাখির ডানার শব্দে মনে হয় পাশ দিয়ে বিমান যাচ্ছেপাখি বাড়িতে বসবাসকারী হাল্লা প্রাইমারি স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর একজন ছাত্রী এখানে আসা অনেক পাখির নাম এক নিঃশ্বাসে বলে ফেললসে জানায়, প্রতিদিন এখানে নিশি বক, সাদা বক, লাল বক, হাঁস পাখি, ঝাটিংগা, পানিকৌড়ি, শুকরাজ, হরালি, দুগদুগি প্রজাতির পাখিরা জড়ো হয়
হাকালুকি হাওরের পাখি আভয়াশ্রম কাজে জড়িত এনজিও সংস্থা সিএনআরএসের লেখা সাইনবোর্ডে মনোহর আলী মাস্টারের পতিত বাড়ি লেখা থাকলেও প্রকৃতপক্ষে এখানে পাঁচটি পরিবার তাদের আপন মমতায় পাখিদের সঙ্গে বসবাস করে আসছেএমন কথা জানালেন মৃত মনোহর আলী মাস্টারের ছেলেতিনি জানালেন, ‘তারও জন্মের আগে থেকে তাদের বাড়িতে পাখির নিরাপদ আবাসস্থল ছিলপ্রায় পাঁচ একর জায়গাজুড়ে বছর চারেক ধরে সারা বছর পাখির বিচরণ থাকে তবে শীতকালে দেশীয় পাখির সঙ্গে পরিযায়ী পাখিরাও বসবাস করেপ্রতিদিন সন্ধ্যার সময় হিজল করচসহ শতাধিক গাছে পাখির কিচিরমিচির শব্দে পুরো এলাকা পাখির নগরীতে পরিণত হয়তারাও পাখিদের পরিবারের সদস্যদের মতো মনে করেনপ্রতিদিন দেশি-বিদেশি পর্যটকরা এখানে পাখি দেখতে সন্ধ্যার আগে ভিড় জমান
কথা হয় এ বাড়িরই আরও এক যুবকের সঙ্গেতিনি জানান, এখানে পাখি বাস করায় শিকারিদের অনেক হুমকি-ধমকির কারণে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেনরাতের আঁধারে পাখি শিকারিরা বন্দুক দিয়ে পাখি শিকারের চেষ্টা চালালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তা প্রতিহত করেনপাখি অভয়াশ্রমের কাজে জড়িত এনজিও সংস্থা সিএনআরএস-এর বড়লেখা অফিসের ফিল্ড অফিসার জানান, ‘পাখির অভয়াশ্রমে প্রকৃতপক্ষে পাহারাদার নেইহাকালুকি বিলের বিসিজি লোকেরা অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে পাখি দেখভাল করেন
বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মুহাম্মদ আমিনুর রহমান জানান, ‘অচিরেই পাখির অভয়াশ্রমে স্থায়ীভাবে একজন পাহারাদার নিয়োগ দেয়া হবেপাখিদের বসবাসের জন্য বাঁশ দিয়ে খাঁচা তৈরি করে দেয়া যায় কিনা সে বিষয়েও চিন্তাভাবনা চলছে

 

নিউজরুম

 

শেয়ার করুন