সম্প্রতি ঢাকা সেনানিবাস

0
286
Print Friendly, PDF & Email

০১ফেব্রুয়ারী২০১৩:শাটল বাস
সম্প্রতি ঢাকা সেনানিবাস ও মিরপুর সেনানিবাস এলাকায় নামমাত্র মূল্যে দুই টাকা সার্ভিস চার্জে সেনা পরিবহন নামে শাটল বাসগুলো শুধু সেনানিবাসের অভ্যন্তরেই ৪৫ মিনিট পর পর চলাচল করে, যা খুবই দীর্ঘ বিরতিরএতে সেনানিবাস এলাকা থেকে দূরে বসবাসরত চাকরিজীবীদের অফিসে আসা-যাওয়া, সেনানিবাস এলাকার বিভিন্ন অফিসের জরুরি চিঠিপত্র এবং অসুস্থ রোগী নিয়ে দ্রুত হাসপাতালে, বিশেষ করে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পৌঁছানো সম্ভব হয় না
সেবার মান বৃদ্ধিকল্পে বালুঘাট-ফার্মগেট-গুলিস্তান-যাত্রাবাড়ী রুট চালু এবং সেনানিবাসের অভ্যন্তরে চাকরিজীবীদের সময়ের গুরুত্বের কথা চিন্তা করে অধিক বাস চলাচলের জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পাশাপাশি নৌ ও বিমানবাহিনীরও শাটল বাস সার্ভিস চালু করা একান্ত প্রয়োজন
এ অবস্থায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বালুঘাট, ফার্মগেট, গুলিস্তান, যাত্রাবাড়ী রুট চালু এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পাশাপাশি নৌ ও বিমানবাহিনীরও শাটল বাস সার্ভিস চালু করার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি
মো. মজনু মৃধা
নারিশা খালপাড়, দোহার, ঢাকা

চাকরিপ্রার্থীদের বয়স
আমাদের দেশে বর্তমানে সরকারি চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩০ বছরচাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর করার দাবি উঠেছেএ নিয়ে পত্রপত্রিকায় লেখালেখি হচ্ছে, বিভিন্ন সংগঠন আন্দোলন করছেজনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকেও চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ানোর জন্য সুপারিশ করা হয়েছেএটা খুবই যৌক্তিক দাবিকারণ, সরকার চাকরি থেকে অবসর গ্রহণের বয়স বাড়িয়ে ৫৭ থেকে ৫৯ বছর এবং মুক্তিযোদ্ধাদের ৬০ বছর করেছেতা ছাড়া ৪৫ শতাংশ কোটা এবং নিয়োগ-বাণিজ্য তো রয়েছেইকিন্তু প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে নির্বাক, যা বর্তমান তরুণসমাজকে হতাশায় ফেলে দিচ্ছে এবং ক্রমেই তারা অন্ধকার পথে পা বাড়াচ্ছেএর দায় সরকারকেই নিতে হবে
তাই প্রধানমন্ত্রী সমীপে আবেদন, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা অবিলম্বে বাড়ানো হোকযাতে একটি সন্তান তার মা-বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে পারে
আফরিন, কদমতলী, ঢাকা

পরীক্ষা
গত ২৮ জানুয়ারি প্রথম আলো পত্রিকায় দেখলাম, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এখন আর প্রথম সাময়িক পরীক্ষা হবে নাএখন থেকে বছরে দুটি অর্থা অর্ধবার্ষিক ও বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবেউদ্যোগটি অবশ্যই প্রশংসনীয়এতে পরীক্ষার্থীর পরীক্ষাভীতি কমবে এবং পরীক্ষার্থীরা পড়ালেখা ও নিজেকে তৈরি করতে যথেষ্ট সময় পাবেআগে দেখা যেত, মার্চ কিংবা এপ্রিলে প্রথম সাময়িক পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে ছাত্রছাত্রীরা যথেষ্ট সময় পেত নাসিলেবাসভিত্তিক পড়ালেখায় পুরো সিলেবাস শেষ করতে ছাত্রছাত্রীসহ শিক্ষকদের কিছুটা হিমশিম খেতে হতো প্রথম দিকেএখন যেমন প্রথম সাময়িক পরীক্ষার জন্য পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যাবে, তেমনি বার্ষিক পরীক্ষার জন্যও যথেষ্ট সময় পাবে শিক্ষার্থীরাএতে মেধার মান বাড়বেকেননা ছাত্রছাত্রীদের নানা সৃজনশীল প্রশ্নের মাধ্যমে প্রতিটি পাঠ ভালোভাবে পড়ানোর সুযোগ পাবেন শিক্ষকেরাএতে পরীক্ষার দ্রুত প্রস্তুতির জন্য দৌড়ঝাঁপের প্রয়োজন হবে নাসহজ-সাবলীলভাবে ছাত্রছাত্রীরা এগিয়ে যাবেএতে প্রতিটি পাঠের বিষয়বস্তুর ওপর আলোচনাসহ মূল্যায়ন এবং ছাত্রছাত্রীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দেখা যাবে শিক্ষকের পাঠদানের সময়অন্যদিকে, যেহেতু বছরে দুটি পরীক্ষা, সেহেতু ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে একটা অলস ভাব সৃষ্টি হতে পারে দীর্ঘ সময়ের ব্যবধানেআর এই ব্যবধানটা ঘোচাতে হবে শ্রেণী পরীক্ষার মাধ্যমে কিংবা নানা মূল্যায়নের মাধ্যমেছাত্রছাত্রীদের পড়ালেখার মধ্যে সক্রিয় রাখতে প্রতিটি পাঠ শেষে সংক্ষিপ্ত মূল্যায়ন আবশ্যকতবে সেটা করতে হবে ছাত্রছাত্রীদের ওপর কোনো রূপ চাপ সৃষ্টি না করে
সঞ্জয় কুমার ভৌমিক
সহকারী শিক্ষক, আলিশারকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শ্রীমঙ্গল

 

 

 

শেয়ার করুন