দক্ষিণ এশীয়ার বাস্কেটবলে অঘোষিত চ্যাম্পিয়ন- বাংলাদেশ

0
44
Print Friendly, PDF & Email

স্পোর্টস ডেস্ক(২২ জানুয়ারী): মুহুর্মুহু ফ্ল্যাশ জ্বলছেছবি তুলতে ব্যস্ত ফটোসাংবাদিকেরাসঙ্গে পাল্লাদিয়ে ছবি তুলছে দর্শকেরাওকেউ মুঠোফোনে, কেউ-বা আইপ্যাডেগৌরবময়মুহূর্তটাকে ধরে রাখতেই এত ব্যস্ততা
বাংলাদেশ বাস্কেটবল দলের হাতেগৌরবের এ মুহূর্তটার বোধন হয়েছিল আসলে গত পরশুই, যখন পাকিস্তানকে হারিয়েইদক্ষিণ এশীয় বাস্কেটবলে অঘোষিত চ্যাম্পিয়ন হয়ে যায়কাল ছিল নিছকআনুষ্ঠানিকতার ম্যাচধানমন্ডি উডেনফ্লোরে সেই ম্যাচটাও জিতল দাপটের সঙ্গেমালদ্বীপকে হারাল ৬৯-৫৪ পয়েন্টেটানা চার ম্যাচ জিতে বাংলাদেশ অপরাজিতচ্যাম্পিয়নরানার্সআপ হয়েছে পাকিস্তান, নেপাল তৃতীয়বাংলাদেশেরবাস্কেটবলের ইতিহাসে নিঃসন্দেহে এটি স্মরণীয় অর্জনএর আগে দক্ষিণ এশীয়বাস্কেটবলে লাল-সবুজের দল কখনোই চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি
এমনিতেইবাংলাদেশ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার সুযোগ পায় খুব কমকোনোটুর্নামেন্টে আবার অংশ নেওয়ার যোগ্যতা অর্জনই করতে পারে নাএমনও হয়েছে, এশিয়ার কোনো টুর্নামেন্টে আমন্ত্রণ পেলেও আর্থিক সীমাবদ্ধতায় দল পাঠাতেপারেনি ফেডারেশনএত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও বাংলাদেশের বাস্কেটবল যেন মাথাউঁচু করে দাঁড়াচ্ছেআসামে ২০০২ সালে বাংলাদেশ প্রথম দক্ষিণ এশীয়বাস্কেটবলে হয়েছিল রানার্সআপঢাকায় ২০১০ এসএ গেমসে জিতেছিল ব্রোঞ্জপরেরবছর ঢাকায় আয়োজিত শেখ কামাল আন্তর্জাতিক বাস্কেটবলে চ্যাম্পিয়নগত বছরএশিয়ান বিচ গেমসে থ্রি অন থ্রিবাস্কেটবলে হয়েছিল চতুর্থএবার এল এইসাফল্য
এবারের টুর্নামেন্টে সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন মিথুন বিশ্বাসতাঁরক্যারিয়ারে এই প্রথম এমন কৃতিত্বকিন্তু তাঁর মুখে গর্বের দীপ্তি ফুটে উঠলনা! উল্টো হাতের মুঠোয় ব্যক্তিগত সেরার ট্রফিটি নিয়ে বললেন, ‘আমাদের এমনবড় একটা অর্জন, অথচ কোনো প্রাইজমানিই পাচ্ছি নাতবে এসব ভুলে দিনটাকেমনের গহিনে গেঁথে রাখতেই চাইলেন তোজাম্মেল, ‘চ্যাম্পিয়ন হয়েছিএর চেয়েওবেশি আনন্দ হচ্ছে পাকিস্তানকে হারিয়েছি
টুর্নামেন্ট উপলক্ষে ঢাকায়এসেছেন ফিবার (আন্তর্জাতিক বাস্কেটবল ফেডারেশন) এশিয়া অঞ্চলের সভাপতি শেখসউদ বিন আলী আল-থানিদক্ষিণ এশীয় বাস্কেটবল ফেডারেশন কর্মকর্তাদের সঙ্গেএকটি বিশেষ সভাও করলেন তিনিসভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামী জুন-জুলাইয়েদক্ষিণ এশীয় জুনিয়র বাস্কেটবলের আসর বসবে ঢাকায়বাংলাদেশের এমন আয়োজনেরপ্রশংসা করে আল-থানি বাংলাদেশের বাস্কেটবলে উন্নয়ন সহযোগিতার আশ্বাস দিলেন, ‘ফিবা বাংলাদেশকে ভবিষ্যতে কোচ, প্রশিক্ষক দিয়ে বিশেষ সহায়তা করবেকিন্তু এমনও বললেন, এ দেশে বাস্কেটবলের জনপ্রিয়তা ফেরাতে ফেডারেশনকেইউদ্যোগ নিতে হবেফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এ কে সরকার জানেন, কাজটা সহজনয়, ‘অবকাঠামোগত সমস্যাটাই আমাদের বেশিগ্যালারিতে বসে ভালোভাবে খেলা দেখাযায় নাক্রিকেটে ভালো পরিবেশ আছে বলেই সবাই খেলা দেখতে যায়এখানেও ভালোপরিবেশ দরকারলম্বা ক্যাম্পের জন্য মিরপুর ইনডোর ভাগাভাগি করতে হয়খেলোয়াড়দেরএটাও একটা বিড়ম্বনাতবে এত কিছুর মধ্যেও আশার আলো দেখছেনসাবেক বাস্কেটবল খেলোয়াড়, ‘আমরা খুঁজে খুঁজে যেসব খেলোয়াড় এনেছি তাদেরউচ্চতা খারাপ নয়ভালোভাবে যত্ন নিলে এদেরও একটা পর্যায়ে নেওয়া যাবেআশাকরি, একদিন বাস্কেটবল আবার ফিরে পাবে জনপ্রিয়তা

 

নিউজরুম

 

শেয়ার করুন