২০১২ সালে বাংলাদেশ থেকে ছয় লাখেরও বেশি শ্রমিক রপ্তানি

0
51
Print Friendly, PDF & Email

 

ঢাকা (৩ জানুয়ারী) : সদ্য সমাপ্ত ২০১২ সালে বাংলাদেশ থেকে আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারে ছয় লাখেরও বেশি  শ্রমিক রপ্তানি হয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্যে জানা যায়, ২০১২ সালে জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত শ্রমিকদের বহির্গমন ছাড়পত্র ইস্যু হয়েছে ছয় লাখ সাত হাজার ৭৯৮টি।

বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরে ৩২ হাজার ৪০৯ জন শ্রমিক রপ্তানি হওয়ায় এ বছর শেষে এ সংখ্যা চয় লাখ পেরিয়েছে। যদিও বছরের প্রথম মাসের তুলনায় শেষ মাসে জনসংখ্যা রপ্তানি প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। তবে এ বছর জনসংখ্যা রপ্তানি ছিল গত তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। ২০১১ সালে শ্রমিক রপ্তানির সংখ্যা ছিল পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার ৬২ জন।

গেলো বছর সর্বোচ্চ সংখ্যক শ্রমিক গেছে মে মাসে। যার সংখ্যা ৭২ হাজার ২৭১ জন। আর অক্টোবরে গেছে ২৯ হাজার ৬২৮ জন শ্রমিক। মাসের হিসাবে যা ছিল বছরের সবচেয়ে কম।

পরিসংখ্যান বলছে, বছরের শুরুর ছয় মাসে জনশক্তি রপ্তানি হয়েছে চার লাখ ৩৭ হাজার ৫৫০ জন। আর বাকি সময়ে রপ্তানি হয়েছে মাত্র এক লাখ ৭০ হাজার ২৪৮ জন শ্রমিক।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বাংলাদেশের অন্যতম বড় বাজার সংযুক্ত আরব আমিরাত। সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়া সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়ায় বছরের শেষের দিকে জনশক্তি রপ্তানি কমে গেছে। বিষয়টি পরিসংখ্যানেও স্পষ্টভাবে ফুটে উঠেছে।

তবে মালয়েশিয়ার প্রাথমিকভাবে ১০ হাজার শ্রমিকের চাহিদাপত্র পাঠানো আশাবাদী করে তুলেছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়কে।

মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. জাফর আহমেদ খান বলেন, বাংলাদেশের বড় বড় বাজার বন্ধ থাকা সত্ত্বেও জনশক্তি রপ্তানি ছয় লাখ পার হওয়া অবশ্যই সুসংবাদ। নতুন ৫৫টি দেশে জনশক্তি রপ্তানি করতে পেরেছি বলেই গত বছরের (২০১১) চেয়ে এ বছর (২০১২) রপ্তানি বেড়েছে। নতুন বছরেও আমরা আশা করছি শ্রমিক রপ্তানি আগের চেয়ে বাড়বে।’

নিউজরুম

শেয়ার করুন