সাগর-রুনি হত্যার বিচার দাবিতে সচিবালয় এক ঘণ্টা অবরুদ্ধ

0
489
Print Friendly, PDF & Email


 

ঢাকা ( ১ জানুয়ারী) : সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনিসহ সব সাংবাদিক হত্যার বিচার ও সাংবাদিকদের নিরাপত্তার দাবিতে ডাকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে মঙ্গলবার সচিবালয় কার্যত এক ঘণ্টা ছিল অবরুদ্ধ।

দুপুর সাড়ে ১২টায় সচিবালয়ের সব গেট বন্ধ করে দেওয়া হয়। বেলা দেড়টা পর্যন্ত একটানা সচিবালয়ের সব গেট বন্ধ রাখা হয়। এ সময় দর্শনার্থী, সাংবাদিকসহ সাধারণ কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও সচিবালয়ে প্রবেশ করতে পারেননি।  
কর্মসূচি শুরুর সময় থেকে প্রেসক্লাবের বিপরীতে সচিবালয়ের ৫ নম্বর গেট বন্ধ করে দেওয়া হয়। যদিও অন্যদিন ব্যাগ ছাড়া সাংবাদিক-কর্মকর্তারা ঢুকতে পারতেন। মঙ্গলবার তাও দেওয়া হয়নি।

ডিজিটাল বøক লাগানোর কারণে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দুই নম্বর গেট বন্ধ থাকায় এক নম্বর গেটটিই ছিল সব ধরণের লোকজনের জন্য সচিবালয়ে ঢোকার একমাত্র প্রবেশ পথ। কিন্তু বেলা ১২টা থেকে সাংবাদিকদের ঘেরাও কর্মসূচি শুরুর পর বেলা সাড়ে ১২টা থেকে সেটিও বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ অবস্থা চলে কর্মসূচি চলা বেলা দেড়টা পর্যন্ত।  

তবে নিরাপত্তা কর্মীদের বক্তব্য, প্রয়োজনে পাশ দেখে প্রবেশের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে এক নম্বর গেটের কাছে সাংবাদিকদের কর্মসূচির কারণে আব্দুল গনি রোডের সচিবালয় গেট সংলগ্ন রাস্তাটি পুরোপুরি বন্ধ ছিলো। এছাড়া একই কারণে যানবাহন চালাচল করেনি প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তা ও আব্দুল গনি রোডের এক পাশের রাস্তায়।

এ কারণে প্রেসক্লাব, জিপিও, পুরানা পল্টন মোড়, হাইকোর্ট প্রেসক্লাবের মোড়, মৎস্যভবন এলাকায় এ সময়ে গাড়ি চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে পড়ে। যানজটে আটকে যায় হাজার হাজার গাড়ি। ভোগান্তির মধ্যে পড়েন সাধারণ মানুষ।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনিসহ সব সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডের বিচারসহ সাংবাদিকদের নিরাপত্তার দাবিতে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), জাতীয় প্রেসক্লাব ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) যৌথভাবে এ কর্মসূচি পালন করে।

একই দাবিতে সাংবাদিকরা আগামী ২০ জানুয়ারি ঢাকায় মহাসমাবেশও ডেকেছেন।

এর আগে ২৩ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের গণ অনশন কর্মসূচি থেকে ১ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘেরাও ও ২০ জানুয়ারি ঢাকায় মহাসমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ইকবাল সোবহান চৌধুরী।
 
উল্লেখ্য, গত  ১১ ফেব্রয়ারি ভোররাতে রাজধানীর রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারওয়ার ও এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার মেহেরুন রুনি।

চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার প্রায় ১১ মাস পার হয়ে গেলেও হত্যার নেপথ্যে যারা রয়েছে তাদের গ্রেফতার করতে পারেনি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সন্দেহজনকভাবে ছয়জনকে এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আটকের কথা জানান মিডিয়াকে।

নিউজরুম

 

 

শেয়ার করুন