গণআদালতে সরকারের বিচার হবে: নোমান

0
92
Print Friendly, PDF & Email

 

চট্টগ্রাম (২৯ ডিসেম্বর) : দৈনিক আমার দেশের সম্পাদক মাহমুদুর রহমান নয়, সরকারই দেশদ্রোহী বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান। একইসঙ্গে গণআদালতের মাধ্যমে সরকারের সব অন্যায়, নির্যাতন, দুর্নীতির বিচার করারও হুমকি দিয়েছেন তিনি।

তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, `মাহমুদুর রহমান সত্য প্রকাশ করেছেন, দেশের বিরুদ্ধে কিছু করেননি। এরপরও আপনারা মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দিয়েছেন। কিন্তু আপনারা রাগ-অনুরাগের বশবর্তী হবার শপথ নিয়েও পদে পদে সেই শপথ ভঙ্গ করছেন। তাই মাহমুদুর রহমান নন, আপনারাই দেশদ্রোহী। আপনাদের সকল অন্যায়, নির্যাতন, লুটপাটের বিচার হবে গণআদালতে।`

শনিবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবদুল্লাহ আল নোমান এসব কথা বলেন। আমার দেশ`র সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দায়েরসহ হয়রানির প্রতিবাদে সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ ও নাগরিক ফোরাম যৌথভাবে এ কর্মসূচীর আয়োজন করে।

নোমান বলেন, `সরকার রাগ-অনুরাগের বশবর্তী না হয়ে সংবিধান রক্ষা করার শপথ নিয়েছিল। অথচ ক্ষমতায় বসার পর সাংবাদিক মাহমুদুর রহমানসহ বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরসহ বিভিন্ন ধরনের হয়রানি নির্যাতন করে সেই শপথ ভঙ্গ করেছে। তারা বেগম খালেদা জিয়াকে তার বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে শপথ ভঙ্গ করেছে।`

তিনি বলেন, `সরকার ক্ষমতায় বসার পর থেকে দুর্নীতির মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করছে। শেয়ারবাজারের ৩৩ লক্ষ বিনিয়োগকারীকে পথে বসিয়ে সরকারদলীয় লোকজন দেড় হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। সোনালী ব্যাংকের অর্থ লোপাটের পেছনে কারা জড়িত সেটা দেশবাসী জেনে গেছে।`

নোমান বলেন, `সরকার শপথ নিয়েও সংবিধান রক্ষা করতে পারেনি। তাই সরকারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা যায়।`

তিনি বলেন, `এ সরকার ব্যর্থ সরকার। সরকার জনবিচ্ছিন্ন হয়ে মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। সংবাদপত্র, স্বাধীন চিন্তার মানুষের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করছে। মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। কিন্তু সরকারকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, অন্যায় নির্যাতন বন্ধ না করলে এক মাহমুদুর রহমানের পরিবর্তে শত শত মাহমুদুর রহমান সৃষ্টি হবে।`

নোমান বলেন, `তারা দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন করে ২০২১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকতে চায়। কারণ তত্তাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে তারা আর ক্ষমতায় আসতে পারবেনা, এটা তারা বুঝে গেছে।`

সাবেক বিএমএ নেতা ডা.খুরশীদ জামিল চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি`র সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মীর মো.নাছির উদ্দিন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খোন্দকার, সাংসদ জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, মহিলা দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরী আরা ছাফা, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ডা.শাহাদাৎ হোসেন, সাবেক সাংসদ সরওয়ার জামাল নিজাম, অ্যাডভোকেট এস ইউ নূরুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট মফিজুল হক ভূঁইয়া।

মানববন্ধন ও সমাবেশ শেষে আবদুল্লাহ আল নোমানের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

নিউজরুম

 

শেয়ার করুন