হলমার্ক কেলেঙ্কারি: সোনালী ব্যাংকের জিএম ও ২ ডিজিএম আটক

0
164
Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা (২৪ ডিসেম্বর ): বহুল আলোচিত হলমার্ক কেলেঙ্কারির ঘটনায় আরো তিন আসামিকে আটক করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় তাদের রাজধানীর রমনা এলাকা থেকে আটক করা হয়। বাংলানিউজকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন হলমার্ক কেলেঙ্কারি ঘটনায় দুদকের তদন্ত টিমের প্রধান ও জ্যেষ্ঠ উপ-পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী।

আটক আসামিরা হলেন- সোনালী ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মীর মহিদুর রহমান (ওএসডি), উপ-মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) শেখ আলতাব হোসেন ও সফিজউদ্দিন আহমেদ। দুইজন ডিজিএম এ মুহূর্তে সাময়িক বরখাস্ত অবস্থায় রয়েছেন।

দুদক জানায়, মীর জয়নুল আবেদীন শিবলীর নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি টিম সন্ধ্যায় তিনজনকে আটক করে। আটক ব্যক্তিরা রমনা থানায় রয়েছেন। সোমবার তাদের দুদক কার্যালয়ে নেওয়া হবে।

গত ৪ অক্টোবর হলমার্ক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তানভীর মাহমুদ, চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক (জিএম) তুষার আহমেদ ও সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক ও ডিজিএম (সাময়িক বরখাস্ত) একেএম আজিজুর রহমানকে আসামি করে ২৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। ২৭ জনের মধ্যে হলমার্কের সাতজন এবং সোনালী ব্যাংকের ২০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এ মামলার প্রধান আসামি তানভীর ও তুষার মিরপুর থেকে ৭ নভেম্বর গ্রেফতার হন। ১৪ অক্টোবর রমনা এলাকা থেকে গ্রেফতার হন আজিজুর এবং ১৮ নভেম্বর মানিকগঞ্জ থেকে তানভীরের স্ত্রী ও প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলামকে র‌্যাব ও দুদকের বিশেষ টিম গ্রেফতার করে। এ চার আসামি রিমান্ড শেষে এ মুহূর্তে কারাগারে রয়েছেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা হোটেল শাখা থেকে হলমার্ক মোট দুই হাজার ৬৮৬ কোটি ১৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে। এর মধ্যে স্বীকৃত বিলের বিপরীতে পরিশোধিত (ফান্ডেড) অর্থ হচ্ছে এক হাজার ৫৬৮ কোটি ৪৯ লাখ ৩৪ হাজার ৮৭৭ টাকা। দুদকের প্রাথমিক অনুসন্ধানে ওই পরিশোধিত অর্থ লোপাটে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় সোনালী ব্যাংক ও হলমার্ক কর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

নিউজ রুম

শেয়ার করুন