ম্যারাডোনা হতে পারেন ইরাকের কোচ

0
293
Print Friendly, PDF & Email

নিউজ রুম , ২২ ডিসেম্বর ।। আবার কোচ হিসেবে মাঠে ফিরছেন দিয়েগো ম্যারাডোনা৷ আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বরকে নিয়ে এমন খবর নিশ্চয়ই বহুবারই পড়েছেন বা শুনেছেন৷ আর্জেন্টিনাকে ১৯৮৬-র বিশ্বকাপ জেতানো সুপারস্টার এবার নাকি ইরাকের কোচ হচ্ছেন! খেলোয়াড় হিসেবে যতটা সফল ছিলেন কোচ ম্যারাডোনা এখনো ততটা সফল হতে পারেননি৷ আর্জেন্টিনার কোচ হয়েছিলেন, নিয়েছিলেন দুবাইয়ের অতি অখ্যাত ক্লাব আল ওয়াসলকে সফল করার চ্যালেঞ্জও৷ দুজায়গাতেই মর্মান্তিকভাবে ব্যর্থ তিনি৷ কোনো দায়িত্ব থেকেই হাসিমুখে বিদায় নেয়ার সুযোগ হয়নি৷ আল ওয়াসলের চাকরি গেছে গত জুলাই মাসে৷ তবে ক্লাব কর্তৃপক্ষ এখনো তাঁকে পরামর্শক হিসেবে রেখেছে৷ এরই মাঝে গত অক্টোবরে শোনা গেল এবার ইংল্যান্ডের ব্ল্যাকবার্ন রোভার্সের কোচ হচ্ছেন৷ তারপর তিন মাস পেরোতে চলল, এখনো কিন্তু সেই দায়িত্বে দেখা যায়নি তাঁকে৷

 

তাই ইরাকের কোচও হবেন কিনা, এ নিয়ে সংশয় উঁকি দিতেই পারে সবার মনে৷ কিন্তু ফিফার নিয়োগ দেয়া একজন এজেন্ট যদি বলেন, তাঁর কথা উড়িয়ে দেবেন কী করে! হারনান তোফোনি আর্জেন্টাইন হিসেবে যেমন ম্যারাডোনার ঘনিষ্ঠ, ফিফার এজেন্ট হিসেবে তেমনি সন্দেহাতীতভাবেই দায়িত্বশীল৷ তিনি জানিয়েছেন, ইরাকের ফুটবল ফেডারেশন চায় ম্যারাডোনাকে, আর ম্যারাডোনাও চান বাছাইপর্ব পেরিয়ে ইরাককে ব্রাজিল বিশ্বকাপে নিয়ে যেতে৷

 

 ম্যারাডোনা এ সুযোগটা পাচ্ছেন ব্রাজিলের সাবেক তারকা ফুটবলার জিকো ইরাকের কোচের দায়িত্ব ছেড়ে দেয়ায়৷ এশিয়া অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে এ মুহূর্তে গ্রুপ বিতে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইরাক৷ মারাদোনা চাচ্ছেন স্বল্প মেয়াদের জন্য না হয়ে ব্রাজিল বিশ্বকাপ পর্যন্ত কোচ হতে৷ ইরাক একবারই বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলেছে৷ ১৯৮৬ সালে৷ সেবারই আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপ জিতিয়েছিল ম্যারাডোনা ম্যাজিক৷ ২৬ বছর পর কি আবার ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরে ফিরবে ইরাক? তাদের নিয়ে ম্যারাডোনাও কি যাবেন ব্রাজিলে?

 

 সম্ভাবনা খুব বেশি৷ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে হারনান তোফোনি জানিয়েছেন, দুটো কারণে দায়িত্বটা নিতে ম্যারাডোনা খুব আগ্রহী৷ প্রথমত, এশিয়ার একটি দেশকে বিশ্বকাপে নিয়ে যাওয়া এমনিতেই কঠিন চ্যালেঞ্জ৷ দ্বিতীয়ত, এটা আরো বড় চ্যালেঞ্জ, কেননা, জিকো ইরাক দলের দায়িত্ব ছেড়ে গেছেন৷ তোফোনি বলছেন, সে কারণে নাকি ম্যারাডোনা ইরাক ফেডারেশন কী সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে তা জানার জন্য অস্থির, দিয়েগো খুব আগ্রহী৷ সে কারণে প্রত্যেক দিনই ফোন করে আমাকে৷ কাজটাতে চ্যালেঞ্জ আছে এবং সেটা করতে গেলে জিকোর স্থলাভিষিক্ত হতে হবে, এই দুটো বিষয় ভেবে ও খুবই উত্তেজিত৷

 

শেয়ার করুন