ক্ষমতায় এলে অতি উৎসাহী কর্মকর্তাদের বিচার হবে: আমির খসরু

0
141
Print Friendly, PDF & Email

চট্টগ্রাম (২২ ডিসেম্বর) : প্রশাসনের যেসব কর্মকর্তা বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে মামলা করে নির্যাতন-নিপীড়ন চালাচ্ছে ক্ষমতায় আসার পর দ্রুত তাদের বিচার করা হবে বলে জানিয়েছেন নগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, `প্রশাসনের অনেক কর্মকর্তা অতি উৎসাহী হয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিচ্ছেন। তাদের গ্রেপ্তার করে বিভিন্ন হয়রানি করছেন। বিএনপি আগামীতে ক্ষমতায় এলে প্রশাসনের এসব কর্মকর্তাদের দ্রুততার সঙ্গে বিচারের মুখোমুখি করা হবে।`

শনিবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধন ও সমাবেশ কর্মসূচীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ভারপ্রাপ্ত মহাসচবি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, নগর বিএনপির সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান সহ গ্রেপ্তার হওয়া নেতাকর্মীদের মুক্তি ও নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ডা.শাহাদাৎ হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এ মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

শহীদ জিয়া শিশু-কিশোর ফাউন্ডেশন নামে একটি সংগঠনের চট্টগ্রাম উত্তর, দক্ষিণ ও মহানগর জেলা কমিটি যৌথভাবে এ কর্মসূচী পালন করে।

আমির খসরু আরও বলেন, `আমাদের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে আটকের পর চট্টগ্রামে শান্তিপূর্ণ মিছিল হয়েছে। এটি নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন। কিন্তু পুলিশ গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ এনে ডা.শাহাদাৎ সহ নেতাকর্মীদের নামে দ্রুত বিচার আইনে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। যারা এ ধরনের অন্যায় কাজ করছেন, আমরা ক্ষমতায় তাদেরও দ্রুত বিচার করব।`

তিনি বলেন, `আওয়ামী লীগের মহাসচিবকে যদি গ্রেপ্তার করা হত, তাহলে তারা সারাদেশে আগুন লাগিয়ে দিত। মানুষের বাড়িঘরে হামলা করত। অথচ বিএনপি মির্জা ফখরুল ইসলামকে আটকের পরও নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতিতে আন্দোলন করে যাচ্ছে। এরপরও বিএনপি নেতাকর্মীদের নির্যাতন-নিপীড়ন সহ্য করতে হচ্ছে।`

তিনি বলেন, `সরকার বিরোধী দলের আন্দোলন দমানোর জন্য নানা কৌশল অবলম্বন করছে। তারা এতদিন ধরে প্রশাসনকে লেলিয়ে দিয়েছিল। কিন্তু আন্দোলন দমাতে না পেরে সরকার এখন সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করছে। শীর্ষ সন্ত্রাসীদের জেল থেকে ছেড়ে দিচ্ছে।`

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ও কাউন্সিলর মো.আজমের সভাপতিত্বে কর্মসূচীতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুবুর রহমান শামীম, সাবেক পিপি আব্দুস সাত্তার, এম এ হাশেম রাজু, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, নগর মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক জেলি চৌধুরী।

নিউজরুম

শেয়ার করুন