যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করতে হবে জাতীয়ভাবে: ড. কামাল

0
99
Print Friendly, PDF & Email

 স্মৃতিসৌধ (সাভার, ১৬ ডিসেম্বর):  গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, শ্রদ্ধা জানানোর আরেকটি দিক হল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার। এই বিচার করতে হবে জাতীয়ভাবে, কোন দলের হয়ে নয়।

রোববার মহান বিজয় দিবসের সকালে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, যারা এই বিচার প্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি করছে তাদের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে। ইনশাল্লাহ বাধা সৃষ্টি করতে পারবে না।

এর আগে ভোর সোয়া ৬টার দিকে জাতীয় স্মৃতিসৌধে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৬টা ২৫ এ মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের ৪১ বছর পূর্তিতে স্মৃতিসৌধের বেদিমূলে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান দেন তিনি।তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল এ সময় সালাম জানায়। শহীদদের স্মরণে বিউগলে বাজানো হয় করুণ সুর। কিছুটা সময় নিরবে দাঁড়িয়ে একাত্তরের সেই শহীদদের স্মরণ করেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর পর স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান স্পিকার আব্দুল হামিদ। শ্রদ্ধা জানান সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকবৃন্দসহ সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠন। এসময় পতাকা আর ফুল হাতে জনতার ঢল নামে সৌধ প্রাঙ্গণে। ফুলে ফুলে ভরে ওঠে স্মৃতির এ মিনার।

১৬ ডিসেম্বর পুরো জাতির মুক্তিযুদ্ধ জয়ের আনন্দে উদ্বেলিত হওয়ার দিন। ৪২তম মহান বিজয় দিবস। নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ শেষে ১৯৭১ সালের আজকের দিনটিতেই বাঙালি জাতি স্বাধীনতা সংগ্রামের চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করেছিল। রাজধানী ঢাকার তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে (সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) দখলদার পাকহানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে এ দিনেই স্বাধীনতার রক্তিম সূর্যালোকে উদ্ভাসিত হয়েছিল স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।

নিউজরুম

শেয়ার করুন