চির উন্নত মম শীর-২

0
310
Print Friendly, PDF & Email

: আজ মহান বিজয় ও গৌরব মাসের ১৩তম দিন, ১৩ ডিসেম্বর। ৪০ বছর আগে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মাসের এ দিনটি ছিল কাঙ্খিত স্বাধীনতার দিকে আরো একধাপ এগিয়ে যাওয়ার দিন। পাকসেনাদের বিরুদ্ধে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করছে বাংলাদেশের মুক্তিবাহিনী, বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও ইতিহাসের খাতায় মিত্রবাহিনী নামে পরিচিত ভারতীয় সেনাবাহিনী। চূড়ান্ত বিজয় অর্জনে তারা বদ্ধপরিকর। লক্ষ্য শুধু একমাত্র পাকসেনা বাহিনী ও তাদের ঘাঁটি।
আর পাকিস্তনী বাহিনীর কাজ ছিল ঠিক তার বিপরীত। পরাজয় নিশ্চিত জেনে তারা শেষ মুহূর্তে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞে মেতে ওঠে। তারা বুঝতে পেরেছিল এদেশ তাদের নয়। তাই যত্রতত্র তারা হামলা চালায় তারা। নিরস্ত্র নিরীহ মানুষোরা তাদের লক্ষ্যবস্তু হয়। লক্ষ লক্ষ নিরীহ মানুষদের তারা নির্বিচারে হত্যা করে চলেছে। গণহত্যায় মেতে ওঠে শকুনের মত। দেশের অবকাঠামো ভেঙ্গে দিতে ধ্বংসযজ্ঞ চালায় বিভিন্ন ব্রিজ, কালভার্ট, বড় বড় ভবন, স্থাপত্যসহ বিভিন্ন কলকারখানায়। জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দেয় গ্রামের পর গ্রাম। এ সুযোগে শেষ সম্বল কুড়িয়ে নেয়ার মত আখেরী লুটপাটে মত্ত হয় পাকিস্তানীদের এদেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামস আর তথাকথিত শান্তি কমিটির নেতৃবৃন্দ।
তবে, দিন যে তাদের ফুরিয়ে গিয়েছে তা দেশ বিদেশের লোকজনের আর বুঝতে বাকি ছিল না। দু’হাত তুলে তাদের আত্মসমর্পণের দিন ক্রমেই ঘনিয়ে আসছিল। আর আশায় বুক বাঁধছিল মুক্তিকামী বাঙালী। তাদের বিজয় উল্লাস আর ‘জয়বাংলা’ শ্লোগান আকাশ-বাতাস মুখরিত হচ্ছিল। অপেক্ষা শুধু বিজয়ের ঘোষণার ক্ষণ জানার।

শেয়ার করুন