গাবতলী রণক্ষেত্র, অবরোধকারীদের হটিয়ে দিচ্ছে সরকার সমর্থকরা

0
313
Print Friendly, PDF & Email

রুপসীবাংলা, গাবতলী (০৯ ডিসেম্বর) অবরোধকারী ও সরকার সমর্থকদের সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে গাবতলী। সংঘর্ষ থামাতে অন্তত ৪০ রাউন্ড টিয়ার শেল ছোঁড়ে পুলিশ। আরো ছোঁড়ে অসংখ্য শটগানের গুলি।

আর পুলিশের এমন মারমুখী অবস্থানের সুযোগ নিয়ে পুরো গাবতলী এলাকা থেকে অবরোধকারীদের হটিয়ে দিতে শুরু করেছে সরকার সমর্থকরা।

এর আগে তারা অবরোধকারীদের আমিনবাজারের দিকে হটিয়ে দেয়। রোবব‍ার সকাল ছয়টায় অবরোধের শুরু থেকেই গাবতলী স্ট্যান্ড ও রাজপথ দখলে রাখা অবরোধকারীদের সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ আন্ডারপাসের ওপাশে আমিনবাজারের দিকে হটিয়ে দেয় সরকার সমর্থকরা।

এর ফলে আন্ডারপাসের আমিনবাজার প্রান্ত অবরোধকারী ও মাজার রোড প্রান্ত সরকার সমর্থদের দখলে চলে যায়। মাঝখানে অবস্থান নিয়ে সংঘর্ষ নিবারকের কাজ করতে থাকে পুলিশ।

এর আগে সকাল ছ’টার পর থেকে মিছিল শুরু হয় গাবতলীতে। সরকারদলীয় ক্যাডারদের ধাওয়া দিয়ে অবরোধকারীরা সশস্ত্র মহড়া দিতে শুরু করে।

তবে টারমিনালের বাগবাড়ী এলাকায় সরকার দলীয় কর্মীরা অবস্থান করছে। এদিকে কোর্টবাড়ীসহ গাবতলীর বিভিন্ন স্থানে শিবির ও ছাত্রদলের ক্যাডাররা মহড়া দিচ্ছে।

তবে সকালে ঘণ্টা দেড়েকের মধ্যেই অন্তত একডজন গাড়ি ভাঙচুর করে অবরোধকারীরা। দু’একটি গাড়িতে আগুনও দেয় তারা। সকাল আটটার মধ্যে অন্তত ৫টি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনাও ঘটে।

সকাল সাড়ে সাতটার মধ্যেই লাঠি উঠে যায় সবার হাতে। বাসস্ট্যান্ড এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেয় অবরোধকারীরা। মূল সড়কের বেশ ক’টি স্থানে টায়ারও জ্বালায় তারা।

গাবতলীর কোর্টবাড়ী এলাকা থেকে টারমিনাল পর্যন্ত এলাকায় ছাত্রদল-শিবির কর্মীদের মহড়া দেখা যায়।

এ সময় অবরোধকারীরা এ এলাকার বিএনপি দলীয় সাবেক এমপি এসএ খালেকের নামে স্লোগান দিতে থাকে।

পুলিশের সামনেই টোলারবাগে প্রায় ৮/১০টি চলন্ত গাড়ি ভাঙচুর করে অবরোধকারীরা। পরে সনি সিনেমা হলের সামনে একটি গাড়িতে আগুন দেয়।

নিউজরুম

শেয়ার করুন