চাঁদপুরের পাঁচ উপজেলার কয়েক হাজার একর জমি অনাবাদির আশঙ্কা

0
270
Print Friendly, PDF & Email

রুপসীবাংলা, কৃষি ডেস্ক : শাহরাস্তিতে খিলা-ঘুঘুরচপ ব্রিজের ঠিকাদারের গাফিলতিতে পাঁচ উপজেলার ইরি বোরো মৌসুমের খিলাখাল ভাসমান ইরিগেশন সেচ প্রকল্পের পাম্পের পাকা বাঁধ ভেঙ্গে গেছে। এর ফলে পাঁচ উপজেলায় কয়েক হাজার একর জমি অনাবাদি থাকার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জানা যায়, খিলা-ঘুঘুরচপ ব্রিজের ঠিকাদার মোহাম্মদ জাকির হোসেন তার ব্রিজের কাজ করাবস্থায় পাঁচ উপজেলার ২০ লক্ষাধিক লোকের ইরি বোরো মৌসুমের সেচ প্রকল্পের একমাত্র সম্বল খিলা ভাসমান পাম্পের বাঁধটি ভেঙ্গে ফেলে। ফলে ইরি বোরো মৌসুমে শাহরাস্তি, লাকসাম, বরুড়া, কচুয়া ও মনোহরগঞ্জসহ বৃহত্তর এলাকার কয়েক হাজার একর সম্পত্তি ইরি বোরো চাষের সুবিধা হতে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

খিলাখাল ভাসমান পাম্পের ম্যানেজার আবু হানিফ জানান, খিলাখাল ভাসমান ইরিগেশন সেচ প্রকল্পের পাকা বাঁধ ঘুঘুরচপ-খিলা ব্রিজের ঠিকাদারের অবহেলার কারণে ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে ২০১২-১৩ অর্থ বছরের ইরি বোরো চাষের অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। বাঁধটি ভেঙ্গে ফেলার পর ঠিকাদারের সাথে বেশ কয়েকবার এ বিষয়ে বসার পরও তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান। বিষয়টি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, কৃষি কর্মকর্তা, উপ-সহকারী প্রকৌশলী বিএডিসি (সেচ)সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে লিখিতভাবে অবহিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে ব্রিজের ঠিকাদার মোহাম্মদ জাকির হোসেনের সাথে বেশ কয়েক বার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় কৃষকরা জানান, বাঁধটি পুনঃনির্মিত না হলে ৫টি উপজেলার চলতি ইরি বোরো মৌসুমে কয়েক হাজার একর সম্পত্তি অনাবাদি থাকার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে কৃষি উৎপাদনে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটবে। স্থানীয় কৃষকরা অতিদ্রুত খিলাখাল ভাসমান পাম্পের ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধটি পুনঃনির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন।

নিউজরুম

শেয়ার করুন