রামুর জনসভায় বেগম জিয়া আ‘লীগ জামায়াতকে নিয়ে নির্বাচনে যাওয়ার চেষ্টা করছে

0
117
Print Friendly, PDF & Email

রামু (কক্সবাজার, নভেম্বর): জামায়াতকে নিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নির্বাচনে যাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াশনিবারবিকেলে রামুর খিজারী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় বিএনপি আয়োজিতসম্প্রীতি সমাবেশে দেওয়া প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এ অভিযোগ করেন  খালেদাজিয়া বলেন, “এই জামায়াত ছিলো তাদের (আওয়ামী লীগ) দোসরতারা ১৯৯৫-৯৬ সালেজামায়াতকে নিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছে৮৬ সালে জামায়াতকে নিয়েএরশাদ নির্বাচন করেছেননিজামীকে পাশে বসিয়ে হাসিনা আমাদের বিরুদ্ধেআন্দোলন কর্মসূচি ঠিক করেছেন”<br>

তখন কোথায় ছিলো যুদ্ধাপরাধীপ্রশ্নতুলে খালেদা জিয়া বলেন, “আমরাও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাইতবে সেটা হতেহবে নিরপেক্ষ ও আন্তর্জাতিক মানের” “এখনো জামায়াতের সঙ্গে তলে তলেতাদের (আওয়ামী লীগ) সম্পর্ক আছে কি না তা কে জানেবলে সংশয় প্রকাশ করেতিনি বলেন, “তারা চেষ্টা করছে কিভাবে জামায়াতকে পক্ষে নেওয়া যায়জামায়াতএখন সন্ত্রস্তকিভাবে আপোষ করে তাদের নিয়ে নির্বাচন করা যায় সে চেষ্টাকরছেএজন্য তাদের (জামায়াত) ওপর নির্যাতন বাড়িয়ে দিয়েছে।<br>

 
রামুর বৌদ্ধ বসতি ও বিহারে হামলার ঘটনায় প্রশাসন, গোয়েন্দা ও সরকারকে দায়ী করেন খালেদা জিয়া
জনগণেরটাকা লুটপাট করে তারা এখন (আওয়ামী লীগ) মোটাতাজা হচ্ছেমন্তব্য করেখালেদা জিয়া বলেন, “আপনাদের নাওয়ের তলা ফুটা হয়ে গেছেপালাতে পারবেন নাএ সময় সরকারকে রামুতে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করার আহবান জানিয়ে ওই ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানান বিরোধী দলীয় নেতাতিনি বলেন, “রামুর ঘটনায় জড়িতদের বিচার না করলে আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় এলে তাদের বিচার করা হবে”<br>

তিনি বলেন, “দেশে তৈরি সম্ভব না হলে প্রয়োজনে বিদেশ থেকে মূর্তি এনে ক্ষতিগ্রস্ত বিহারে স্থাপন করা হবেসাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে সবাইকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করারও আহবান জানান তিনিখালেদা জিয়া বলেন, “এক দিকে নাফ নদী, আরেক দিকে সাগর, পালাবে কোথায়আওয়ামী লীগ পালাতে পারবে নাপ্রধানমন্ত্রীশেখ হাসিনার দিকে ঈঙ্গিত করে তিনি বলেন, “তাদের খায়েশ হয়েছে যতদিন বাঁচবেক্ষমতায় থাকবেএজন্য সংবিধান সংশোধন করে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করে নিয়েছেএখনআমাদের সামনে পথ দুটি-নিজেরাই তারা নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার পুনর্বহালকরবে অথবা আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটানো হবে”<br>

তিনি বলেন, “আমরা সম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করিবৌদ্ধরা নিরীহতারা শান্তিময়জীবন-যাপন করতে পছন্দ করেন২৯ সেপ্টম্বর ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে আমরা তদন্তকমিটি গঠন করেছিলামতাক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়েছিআমরা উচ্চ পর্যায়ের বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটি করার দাবি জানিয়েছিলামকিন্তু সরকার করেনি, কারণ এতেআওয়ামী লীগ জড়িতওই তদন্ত কমিটি করলে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসতোখালেদাজিয়া বলেন,  “এখান থেকে থানা মাত্র দুশ গজ দূরেঅথচ ঘটনার সময় পুলিশআসেনিকারণ, সরকার নির্দেশ <br>

দেয়নিএই একই ঘটনা তারা বিডিআর এ ঘটিয়েছিলএখন সরকারের লোকের এসে মায়াকান্না করছেগত দুই মাসে তারা কিছু করেনিআমরাআসবো শুনে তাড়াহুড়া করে কিছু ঘরবাড়ি বানাচ্ছেবিরোধী দলীয় নেতাবলেন, “তারা (আওয়ামী লীগ) চায়নি আমরা এখানে আসিএ কারণে আমি ফেনী থেকেআসার পর সেখানকার গডফাদার ককটেল মেরে ভয় দেখিয়েছেযাতে আমরা ভয় পেয়েরামুতে না আসিতিনি বলেন, “এই আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে, ততবার সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা ও নির্যাতন করেছেআমি তরুণদের বলবো, তোমরাপুরানো বইপত্র ঘেঁটে দেখ, তাহলে দেখতে পাবে ১৯৭২ থেকে ৭৫ পর্যন্ত তারা কিকরেছিলতোমাদের সামনে আওয়ামী লীগের মুখোশ খুলে যাবেখালেদা জিয়াবলেন, “আওয়ামী লীগ এবার ক্ষমতায় এসেছে লুটপাট, নির্যাতন আর খুন-গুম করতেআওয়ামী লীগ নাকি ধর্ম নিরপেক্ষ! মূলত এটা তাদের মুখোশ, বাহ্যিক আবরণবিএনপি ধর্মীয় মূল্যবোধের কথা বলেআওয়ামী লীগকে যদি দেখেন বুঝতে পারবেনপ্রতিদিন গুম আর খুন তাদের কাজজিনিসপত্রের দাম বেশি, তাদের কাছে মানুষেররক্তের দাম নেই৪ টাকার লবণের দাম এখন ৩২ টাকা”<br>

খালেদা জিয়াবলেন, “ফখরুদ্দীন-মইনুদ্দিনের দয়ায় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছেতাদের কিসেরভয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার দিতেফুটবল খেলায় দুটি দল থাকেআমাদের দেশে অনেকদল আছেপ্রধান দল হলো দুটিখেলতে গেলে মাঠ সমান থাকতে হবেলেভেলপ্লেয়িং ফিল্ড হতে হবেনির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবেপদত্যাগ করেতত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবেপুলিশ প্রশাসনেরউদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগই চিরস্থায়ী সরকার নয়তাদের কথা শুনবেননাস্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অন্যায় আদেশ মানবেন নাএই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ১৭বছর জেল হয়েছিলপ্রধানমন্ত্রীর নামে যতগুলো মামলা রয়েছে তার নিরপেক্ষবিচার হলে শাস্তি হতে পারেঅথচ তার নামের মামলা তুলে নেওয়া হয়েছেআরআমাদের নামে হয়রানির মামলা দেওয়া হচ্ছেপ্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে লগি-বৈঠাদিয়ে মানুষ হত্যা করা হয়েছেসেইসব ভিডিও ফুটেজ আমাদের কাছে আছেএর বিচারহলে প্রধানমন্ত্রী কি করবেনবিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াবৌদ্ধদের উদ্দেশ্যে বলেন, “যারা আপনাদের ক্ষতি করেছে তাদের বিচার হবেআমরাসরকারে এলে বৌদ্ধদের ঘরগুলো সুন্দর করে গড়ে দেববিদেশ থেকে মূর্তি এনেসাজাতে পারবেন”<br>

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় বিএনপি সভাপতিআহমেদুল হক চৌধুরীআরো বক্তব্য রাখেন- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, এম মোরশেদ খান, ড. সুকোমল বড়ুয়া, স্থানীয় বিএনপি দলীয় এমপি লুফর রহমান কাজল, জামায়াতেরএমপি আ. ন. ম শামসুল ইসলাম, বৌদ্ধভিক্ষু শুদ্ধানন্দ মহাথেরো প্রমুখমির্জা ফখরুল বলেন, “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আপনার রসনা সংযত করুননইলে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবেমওদুদবলেন, “এখানে তদন্ত করতে এসে জেনেছি আওয়ামী লীগ প্রভাবিত এলাকায়বৌদ্ধবিহার ও মন্দির, বাড়িঘর ধ্বংস হয়েছেকিন্তু বিএনপি প্রভাবিত এলাকায়কোনো বৌদ্ধ বিহার ধ্বংস হয়নি।<br>

সুকোমল বড়ুয়া বলেন, “ম্যাডাম বৌদ্ধসম্প্রদায় আপনার সঙ্গে আছেপ্রধানমন্ত্রী এখানে এসেছিলেনতার সমাবেশেবৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানুষ আসেনি”<br>

 

 

নিউজরুম

শেয়ার করুন