মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রপ্তানিতে নারী শ্রমিকের সুযোগ কম

0
154
Print Friendly, PDF & Email

রুপসীবাংলা (ঢাকা, ১০ নভেম্বর): মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রপ্তানির বিষয়ে বিভিন্ন রকমসুখবর থাকলে ও আপাতত সুখবর নেই এদেশের মহিলা শ্রমিকদের জন্যকারণ, প্রাথমিকভাবে মালয়েশিয়া সরকার বাংলাদেশ থেকে যে সকল সেক্টরে কাজের জন্যশ্রমিক চেয়েছে সেগুলোর জন্য মহিলা শ্রমিকরা উপযুক্ত নয়এজন্য আপাতত তাদেরজন্য মালয়েশিযাতে কোন সুযোগ থাকছে না

 

জানা যায়, কৃষি(এগ্রিকালচার), বৃক্ষায়ন(প্লানটেশন), পাদন(ম্যানুফ্যাকচারিং), নির্মাণ এবং সেবা(সার্ভিস) এই পাঁচটি কাজে লোক নিতে তারা আগ্রহ প্রকাশকরেছে মালয়েশিয়াএছাড়া মাছ ধরার জন্য জেলেও নেওয়া হতে পারেএদেরমধ্যে সেবা(সার্ভিস) ছাড়া বেশীর ভাগ কাজের জন্যই পুরুষকে অগ্রাধিকার দেওয়াহয়এজন্য আপাতত মহিলা শ্রমিক পাঠানো সম্ভব হচ্ছেনাতাছাড়া এখনো পর‌্যন্তমালয়েশিয়াতে আনুষ্ঠানিকভাবে মহিলা শ্রমিক পাঠানো শুরু হয়নিকারণ, আমাদেরদেশের মহিলা শ্রমিকরা মুলত: যে তিনটি কাজের জন্য বিভিন্ন দেশে যায় সেসবকাজের জন্য মালয়েশিয়া এখনো লোক চায়নিতবে এবার সেখানকার শ্রম বাজার খোলারপর মহিলা শ্রমিকদের ব্যাপারেও সুসংবাদ থাকবে বলে আশা করছেন অনেকেই

ব্যাপারে বাংলাদেশ অভিবাসী মহিলা শ্রমিক এসোসিয়েশনের পরিচালক সুমাইয়াইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, লেবানন, জর্ডানসহ বিশ্বের অনেক দেশে এখন আমাদেরমহিলা শ্রমিকরা কাজ করেদীর্ঘদিন মালয়েশিয়ার শ্রম বাজার বন্ধ থাকায় সেখানেব্যাপকভাবে সে ধরনের সুযোগ সৃষ্টি হয়নিআর এখন যখন বন্ধ থাকা সে বাজারখুলতে যাচ্ছে তখনও সে সুযোগ থাকছে নাকারণ, আমাদের দেশের মহিলারা মুলতঃনার্সিং, গার্মেন্টস এবং গৃহশ্রমিক এ তিনটি কাজে বিদেশ যায়মালয়েশিয়া এসবকাজে লোক চায়নিতারা যে কাজে লোক নিচ্ছে সেসব কাজ মহিলাদের জন্যঝুঁকিপূর্ণ

প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. জাফর আহমদ খানবলেন, ‘যে পাঁচ ধরনের কাজের জন্য মালয়েশিয়া শ্রমিক চেয়েছে, সেগুলোতে মহিলা শ্রমিকদের সুযোগ কমএগুলো অনেক ঝুঁকিপূর্ণ এবং কষ্টের কাজতবে বলতে গেলে আপাতত মহিলাদের জন্য মালয়েশিয়াতে কোন সুযোগ নেইচূড়ান্তচুক্তির পরে মালয়েশিয়া লোক মহিলা শ্রমিক চাইলে তাদের ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়াহবে

 

বাড়তে পারে রেজিস্ট্রেশনের সময়: মালয়েশিয়াগমনেচ্ছুরা অনলাইনে নাম নিবন্ধন করতে পারবেনপ্রথমে নিবন্ধনের জন্য একদিনসময় নির্ধারনের কথা ভাবা হলেও পরে তা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেজানিয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষএক্ষেত্রে তিন থেকে সাত দিন সময়দেওয়া হতে পারে  এ ব্যাপারে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড.জাফর আহমদ খান বলেন, ‘নাম নিবন্ধনের ব্যাপারে প্রাথমিকভাবে একদিন সময় দেয়ারচিন্তা করা হলেও তা বাড়ানোর কথা ভাবা হচ্ছেপ্রত্যন্ত অঞ্চলের এখনোইন্টারনেট সহজপ্রাপ্য নয়তারা যাতে মফস্বলে বা জেলা শহরে যেয়ে নিবন্ধনকরতে পারে সেজন্য তিন থেকে সাতদিন পরর‌্যন্ত সময় বাড়ানোর কথা ভাবা হচ্ছে

 

থাকছে জেলা কোটা: মালয়েশিয়াতে সরকারিভাবে লোক পাঠানোর ক্ষেত্রে এবার জেলা, উপজেলা কোটা রাখাহয়েছেনিবন্ধনের ক্ষেত্রেও তা মানা হবেজেলা বা উপজেলাগুলোর কোটা পুরণহয়ে গেলে সে সংক্রান্ত তথ্য সয়ংক্রিয়ভাবে পর্দায় ফুটে উঠবেএক্ষেত্রেআগ্রহীদের অপেক্ষা করতে হতে পারে আরো ছয়মাসকারণ, সরকার আশা করছে ছয় মাসপরপরই লোক পাঠানো যাবেতবে এখনো পর‌্যন্ত সবকিছু নির্ভর করছে চুক্তিবাস্তবায়নের উপরড. জাফর আহমেদ খান জানান, ‘দেশের সব জেলারমানুষের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত করতে কোটার ব্যবস্থা রাখা হয়েছেপ্রত্যেক জেলাথেকে কতজন শ্রমিক যেতে পারবেন তা নির্ভর করছে মালয়েশিয়া কত লোক নিবে তারউপর

 

সাক্ষাকার গ্রহণ জেলা টিটিসিতে: মালয়েশিয়াযেতে নিবন্ধনের জন্য আলাদা কোন ঠিকানা নয়, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ওপ্রশিক্ষণ ব্যুরোর ওয়েবসাইটেই পাওয়া যাবে নির্দিষ্ট ফরমটিনিবন্ধনের পরএকটি নিশ্চিতকরণ বার্তা দেওয়া হবে যাতে প্রার্থীর সাক্ষাকারের তারিখ দেওয়াজানিয়ে দেওয়া হবেআর এ সাক্ষাকার গ্রহণ করা হবে জেলা কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্রে(টিটিসি)তবে যেসকল জেলায় টিটিসি নেই সেসব জেলার প্রার্থীদেরকেপার্শ্ববর্তি জেলার টিটিসিতে ডাকা হবেএকইভাবে জেলার প্রশিক্ষণকেন্দ্রগুলোতে স্বাস্থ্য পরীক্ষার বুথ থাকবেসাক্ষাকারের পর চূড়ান্তভাবেবাছাইকৃতদের এসব কেন্দ্রে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে

থাকবে ১০ দিনের বিশেষ প্রশিক্ষণ: স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর চূড়ান্তভাবে বাছাইকৃত শ্রমিকদের জন্য ১০ দিনেরবিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হবেতবে সেটা কোন টেকনিক্যাল বিষয়ে নয়মালয়েশিয়ারভাষা, সংস্কৃতি সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হবে এই প্রশিক্ষণেসেদেশর আইনসম্পর্কিত পুস্তিকাও বিতরণ করা হবেএরপরই তারা যেতে পারবে মালয়েশিয়ায় নিজনিজ কর্মস্থলেতবে টেকনিক্যাল প্রশিক্ষণ না দিয়ে শ্রমিকদের পাঠানো ফলাফলখারাপ হতে পারে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে প্রবাসী কল্যাণ সচিব বলেন, ‘কৃষি, বৃক্ষরোপনসহ যেসব কাজে লোক পাঠানো হচ্ছে সেসব কাজে বাঙালিরা স্বভাবই দক্ষএজন্য আলাদা প্রশিক্ষণের প্রয়োজন হবে নাসচিব আরো জানান, চুক্তিস্বাক্ষর হওয়ার আগে মন্ত্রণালয় প্রাথমিকভাবে এসব পরিকল্পনাসহ কিছু কাজএগিয়ে রাখছেচূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে মালয়েশিয়ার চাহিদার অনুযায়ীঅর্থা সবকিছু নির্ভর করছে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের ওপর

 

 

 

 

 

নিউজরুম

 

শেয়ার করুন